বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

অতিরিক্ত বহন খরচে মেহেন্দিগঞ্জে ডিলাররা আনছেন টিসিবি’র পণ্য, ভোক্তাধিকারে ক্রেতারা বঞ্চিত!

মনির দেওয়ান, মেহেন্দিগঞ্জ প্রতিনিধি :: জেলা থেকে উত্তোলনে অতিরিক্ত খরচ বহন করে টিসিবি’র ডিলাররা ন্যায্য মূল্যের কোন পণ্যই আনছেনা মেহেন্দিগঞ্জে। পণ্য না আনার কারনে ভোক্তাধিকারে বঞ্চিত হচ্ছে ন্যায্য মূল্যের সাধারণ ক্রেতারা।

ডিলাররা বলেন, প্রতি ডিউতে মোট ২ টন মাল পাচ্ছেন তারা। ওই ২ টনে নুন্যতম খরচ হচ্ছে ৬,০০০/- থেকে ৬,৫০০/- টাকা। ফলে বারতি খরচ বহন করেও পেঁয়াজে গুনতে হচ্ছে ভর্তুকি। তারা আরো বলেন, প্রথমে বরিশাল গোডাউন থেকে লেবাররা ট্রাকে উত্তোলন বাবদ ৭০০/- টাকা, ট্রাক পরিবহন ১৫০০/- টাকা, ট্রলারে মাল উঠানো বাবদ লেবার ১৮০০/- টাকা, ঘাট খরচ ৫০০/- টাকা, ট্রলার ভাড়া মেহেন্দিগঞ্জে পৌঁছানো বাবদ ১৫০০/- টাকা, আবার ডিলারের ঘরে উঠানো বাবদ ৫০০/- টাকা।

উলে­খ্য, ন্যায্য মূল্যের পণ্য জেলার নির্ধারিত মূল্য ও উপজেলায় অতিরিক্ত পরিবহন খরচ করেও একই মূল্য। পরিবহন ব্যয়ের কারনে মূল্য বৈষম্য ঠিক না থাকায় টিসিবি’র ডিলাররা কোন পণ্যই নিচ্ছেনা মেহেন্দিগঞ্জে। এতে ন্যায্য মূল্যের পণ্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন ভোক্তরা।

মেহেন্দিগঞ্জে টি.সি.বি’র ৭টি ডিলার একমত প্রকাশ করে বলেন, জেলা থেকে আমাদের দূরত্ব ৫০ কিলোমিটার ধরা হলেও নদীর নাব্যতার কারনে দূরত্ব বেরেই চলেছে।

সূর্য এন্টার প্রাইজ এর সত্বাধিকারী শামীম হায়দার বলেন, গত ট্রিপে আমার ও এইচ এন্ড নাথ এন্টারপ্রাইজ এর ন্যায্য মূল্য পণ্যের ৩৬ হাজার টাকা লোকসান গুনতে হয়েছে। সমস্যা হলো প্রতি ডিলারের পাওনা দুই টন পণ্যের মধ্যে দেড়টনই পেঁয়াজ দেয়া হয়, যার একতৃতীয়াংশই পঁচা।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পিজুস চন্দ্র দে মুঠোফোনে বলেন, জেলার খাদ্য গোডাউন থেকে পরিবহন ব্যয় ধরা আছে, তবুও কোথাও বারতি খরচ বা পরিবহন চাঁদা ধরা হয়ে থাকলে জেলা মাসিক সমম্বয় মিটিংএ বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট উপস্থাপন করা হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :