বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

আওয়ামী লীগের ৭০ বছরের অর্জণ

সোহেল সানি :: ভারতীয়রা রাজনীতি ও রাজতন্ত্রের সঙ্গে পরিচিত সুপ্রাচীণ কাল থেকে, কিন্তু রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তাদের পরিচয় ঘটে বৃটিশ শাসনামলে।
ভারত উপমহাদেশে অজস্র রাজনৈতিক দলের উৎপত্তি হলেও স্বাধীনতার পতাকাবাহী প্রধান দল তিনটি জাতীয় কংগ্রেস, মুসলিম লীগ ও আওয়ামী লীগ। ইতিহাসের নিজস্ব গতিতেই ঐতিহাসিক মুক্তিসংগ্রামের প্রয়োজনে দল তিনটির আত্মপ্রকাশ ঘটে।
বিভিন্নমুখী সংগ্রাম,
দলীয় নেতৃত্বের উত্থানপতন ও পালাবদলে ক্রমে “মুখ্যনেতা” হয়ে ওঠেন মহাত্মা মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। অবিসংবাদিত এই তিন নেতার নেতৃত্বে ভারত উপমহাদেশে স্বাধীন সার্বভৌম প্রজাতন্ত্র রূপে অভ্যুদয় ঘটে ভারত, পাকিস্তান ও বাংলাদেশের।
ভারত ও পাকিস্তানের স্বাধীনতা অর্জন বৃটিশ পার্লামেন্টের স্বেচ্ছাপ্রণোদিত আইনের অধীনে। যদিও স্বাধীনতা সুদীর্ঘ মুক্তিসংগ্রামেরই ফলস্বরূপ। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও ভারত-পাকিস্তানের স্বাধীনতার মধ্যে মৌলিক পার্থক্য চোখে পড়ে। ভারত-পাকিস্তানের স্রষ্টা জিন্নাহ- মহাত্মা স্বাধীনতা হাসিল করেন শান্তিপূর্ণ উপায়ে। দ্বিজাতিতত্ত্বের ভিত্তিতে বৃটিশ ভাইসরয় লর্ড মাউন্ট ব্যাটেনের মধ্যস্ততায়।
অপরদিকে স্বাধীন বাংলাদেশ অর্জন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে,রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে কারাবন্দী বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে।
যাহোক ভারতবর্ষের প্রথম রাজনৈতিক দল ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস গঠিত হয় ১৮৮৫ সালের ২৮ ডিসেম্বর। বোম্বাইতে সর্বভারতীয় প্রতিনিধিদের “ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ইউনিয়ন” সম্মেলনে। দলগঠনের উদ্যোক্তা বৃটিশরাজ কর্মচারী অ্যালান অক্টোভিয়াম হিউম। তিনিই “ইউনিয়ন” শব্দটির কর্তন করে কংগ্রেস শব্দটি সন্নিবেশিত করেন। নবগঠিত দলটির নামকরণ করা হয় “ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেস। বাংলায় “ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস।” সভাপতির পদটি অলংকৃত করেন কলকাতার বাঙালী উমেশচন্দ্র ব্যানার্জি। সেক্রেটারির পদগ্রহণ করেন ইংরেজ অক্টেভিয়াম হিউম সয়ং। বিপিনচন্দ্র পাল, বালগঙ্গাধর তিলক, দাদাভাই নওরোজী কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতা।
অ্যালান অক্টেভিয়াম হিউম তাঁর জীবনীগ্রন্থে লিখেছেন, “আমি ভারতে বিদ্রোহের কারণ সম্পর্কে স্যার সৈয়দ আহমদ খানের একখানা পুস্তক পরে সর্বপ্রথম অনুভব করি যে, ভারতীয় জনমতের মঞ্চস্বরূপ একটা রাজনৈতিক সংগঠন প্রয়োজন। এর প্রেক্ষিতেই আমি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের জন্ম দেই। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের পোষ্ট গ্রাজুয়েটদের মধ্যে চিঠি চালাচালি করি এবং ব্যাপক সাড়া পেলে দলগঠনে প্রয়াসী হই। এদিকে স্যার সৈয়দ আহম্মদের মৃত্যুর পর আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাপ্রাপ্তরা মুসলমানদের স্বার্থরক্ষার প্রশ্নটিকে সামনে নিয়ে আসেন। ১৯০১ সালের ২১ অক্টোবর লক্ষ্মৌতে ব্যারিস্টার সৈয়দ শরফুদ্দিন আহম্মদের সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়।
১৯০৬ সালের ১১ অক্টোবর মহামান্য আগা খানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সিমলায় বড়লাট লর্ড মিন্টোর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে মুসলমানদের জন্য পৃথক নির্বাচন দাবি করেন। প্রতিনিধি দলের পেছনে ১৪ লাখ ৬১ হাজার ১৬৩ জন মুসলমান সিমলায় সমবেত হয়েছিলেন।
১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর ঢাকায় সর্বভারতীয় মুসলিম শিক্ষা সম্মেলন থেকে নওয়াব ভিকারুল মুলকের নীতিদীর্ঘ বক্তৃতার পর নবাব স্যার সলিমুল্লাহ “নিখিল ভারত মুসলিম লীগ ” নামে একটি দল গঠনের প্রস্তাব করেন। তা সকলে সমর্থন করেন। মহামান্য আগা খান সভাপতি ও নবাব ভিকারুল মুলক ও মোহসীন উল মুলক যুগ্ম সম্পাদক হন। ১৯০৭ সালে ৩০ ডিসেম্বর করাচীতে সম্মেলনে বোম্বাইয়ের স্যার আদমজী পীরভাই গঠনতন্ত্র উত্থাপন করলে কাউন্সিল প্রতিনিধিরা তা অনুমোদন করে। উল্লেখিত নেতারা ছাড়াও মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা প্রাণপুরুষ হলেন, মওলানা মোহাম্মদ আলী, মওলানা শওকত আলী, নবাব সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী, লাহোরের শাহ দীন, হাকিম আজমল খান, মওলানা জাফর আলী খান, বোম্বাইয়ের সৈয়দ আমীর আলী প্রমুখ।
লর্ড মিন্টোর আগে লর্ড কার্জন ১৯০৫ সালে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে “বঙ্গভঙ্গ আইন” পাস করিয়ে বাংলা প্রেসিডেন্সি ভেঙ্গে দিয়ে পূর্ববঙ্গ ও আসাম নামে একটি নতুন প্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গ নামে পৃথক প্রদেশে পরিনত করায় মুসলিম লীগ তাকে স্বাগত জানায়। কিন্তু কংগ্রেসের তীব্র আন্দোলনের ফলে ১৯১২ সালে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট “বঙ্গভঙ্গ রদ আইন” পাস করে। বাংলা প্রেসিডেন্সিকে আবার এক হয়। আন্দোলন সংগ্রামের ঢেউ ভারতের তৎকালীন রাজধানী কলকাতা কেন্দ্রিক হওয়ায় রাজধানী দিল্লীতে স্থানান্তর করা হয়। বাংলার রাজধানী হিসাবে কলকাতা টিকে থাকলেও কংগ্রেস ও মুসলিম লীগের ওপর বাঙালী হিন্দু মুসলমানদের প্রভাব ক্রমে হ্রাস পেতে থাকে। নেতাজী সুভাসচন্দ্র বসুর অন্তর্ধানের মধ্য দিয়ে তার সশস্ত্র স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতি ঘটে কমে যায় কলকাতার প্রভাব। ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের দুবারের সভাপতি নেতাজী সুভাষ স্বাধীনতা সংগ্রামের নীতি নিয়ে মতদ্বৈধতার মুখে দলত্যাগ করে ফরোয়ার্ড ব্লক গঠন করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। জাপানে বিমান দুঘটনায় নিহত হন বলা হলেও ইতিহাসে তা এখন রহস্যময়।
তৃতীয় দলটি হলো বর্তমান বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার ঐতিহাসিক রোজগার্ডেনে “পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে তার আত্মপ্রকাশ। এক নিষ্ঠুর বাস্তবতার মুখে পাকিস্তান প্রস্তাবক হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নির্দেশনায় ও মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বে দলটির জন্ম। নেতৃত্বের দ্রুত বিকাশ ঘটে শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে। আদর্শগত বৈপরীত্যের দ্বন্দ্বে ১৯৫৭ সালে ভাসানী দল ত্যাগ ও ১৯৬৫ সালে সোহরাওয়ার্দীর রহস্যজনক মৃত্যুর পর শেখ মুজিব লাইমলাইটে উঠে আসেন। ঐতিহাসিক ছয়দফা তাঁকে হিমালয়সম ব্যক্তিত্বে পরিনত করে। ডাকসু ভিপি তোফায়েল আহমেদ ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানের পর কারামুক্ত শেখ মুজিবুর রহমানকে বঙ্গবন্ধু উপাধিতে ভূষিত করেন। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অভ্যুদয় ঘটে স্বাধীন বাংলাদেশের। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট জাতির পিতা শেখ মুজিবকে সপরিবারে হত্য ও মহান মুক্তিযুদ্ধ কালীন মুজিব নগর সরকারের চারস্তম্ভ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী ও এএইচএম কামরুজ্জামান হত্যা রাজনৈতিক শূন্যতার সৃষ্টি করে। নেতৃত্বের সংকটে পড়েন নেতারা। আওয়ামী লীগের রূপান্তর ঘটানো হয় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ-বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে। কিন্তু খুনী সরকার ১ সেপ্ট
একটি নতুন রাষ্ট্রকে গড়ে তোলার উপযোগী কর্মসূচী প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের পরিবর্তে স্বল্পকালের মধ্যেই ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগের অভ্যন্তরে নেতারা অন্তর্ঘাতমূলক তৎপরতায় জড়িয়ে পড়েন। পাকিস্তানের স্রষ্টা মোহম্মদ আলী জিন্নাহর মৃত্যুর পর তা প্রকট হয়ে ওঠে। ১৯৪৯ সালে পশ্চিম পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী মামদোতের খানকে পদচ্যুত করা হলে মুসলিম লীগের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যরূপ ধারণ করে। সিন্ধু ও বেলুচিস্তান প্রাদেশিক সরকারকেও একইভাবে পদচ্যুত করা হয়। পাকিস্তানের জনক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর সভাপতিত্বে গণপরিষদের প্রথম অধিবেশন বসে। পাকিস্তান প্রস্তাবক হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী মুসলিম লীগের নাম “জাতীয়তাবাদী লীগ” নামকরণের দাবি করে গণপরিষদের একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেন। এতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নবাবজাদা লিয়াকত আলী খান তাঁকে ভারতের লেলিয়ে দেয়া কুকুর বলে অভিহিত করেন এবং সোহরাওয়ার্দীর গণপরিষদের সদস্য পদ কেড়ে নেয়া হয়। পরিস্থিতি আরও টালমাটাল হয়ে পড়ে। সোহরাওয়ার্দীকে ৯০ (ক) ধারা জারি করে পূর্ববাংলায় প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়। এক কঠিন বাস্তবতার মুখে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীকে নেতৃত্বভাগে রেখে পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে একটি দল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিতে তাঁর অনুসারীদের নির্দেশনা দেন। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন দল গঠনের তারিখ নির্ধারণের নেপথ্যেও একটা ঐতিহাসিক কারণ ছিলো। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন বিশ্বাসঘাতকতামূলক পলাশী যুদ্ধে ইংরেজ ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানীর কাছে নবাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয় ঘটে। অর্থাৎ বাংলা, বিহার উড়িষ্যার স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়ে যায়। শেরেবাংলার লাহোর প্রস্তাবভিত্তিক ভারত বিভাগ না হওয়া অর্থাৎ ভারত বিভাগের মাধ্যমে তিনটি স্বাধীন রাষ্ট্র ভারত, পাকিস্তান ও বৃহত্তম বাংলা না হওয়ায় নিখিল বঙ্গ মুসলিম লীগ নেতাকর্মীরা বিক্ষুব্ধ ছিলো। আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠার নেপথ্যে শহীদ সোহরাওয়ার্দীর স্বাধীন বৃহত্তর বাংলা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্নভাঙ্গার করুণ স্মৃতি হাতড়ে বেরিয়ে ছিলো। ভারতবিভাগ পূর্ব অবিভক্ত বাংলার প্রধানমন্ত্রী শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও বিরোধী দলীয় কংগ্রেস নেতা নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসুর ভ্রাতা শরৎ বসু যুক্তবাংলা গঠনের যে প্রস্তাব করেছিলেন ইংরেজ ভাইসরয় মাউন্ট ব্যাাটেনের কাছে তা মূলত অগ্রাহ্য করে দেয় নিখিল ভারত কংগ্রেস।
সোহরাওয়ার্দীর ডাইরেক্ট এ্যাকশন ডে হিন্দু- মুসলিম দাঙ্গা বাঁধলে সব প্রস্তাব ভেস্তে যায়। দাঙ্গা ৬ লাখ নরনারীর প্রাণ কেড়ে নেয়। মহাত্মা মোহন দাশ করমচাঁদ গান্ধী স্বাধীন বাংলা প্রস্তাব সমর্থন করলে পন্ডিত নেহেরু ও বল্লবভাই প্যাটেলের কংগ্রেস “ধিক্কার প্রস্তাব” পাশ করে। যাহোক সোহরাওয়ার্দীকেই শেষ পর্যন্ত জিন্নাহর নির্দেশে দিল্লী কনভেনশনে পাকিস্তান প্রস্তাব উত্থাপন করতে হয়। এ কনভেনশনে লাহোর প্রস্তাব সংশোধন করে বাংলা পূর্ব পশ্চিমে বিভক্ত করা হয়। নিষ্ঠুর এই পরিনতির কারণে সোহরাওয়ার্দীর কলকাতার বিষয় সম্পত্তি হারিয়ে পাকিস্তানে চলে আসেন। তাঁর ভক্ত অনুসারীরা কলকাতা ত্যাগ করে ঢাকায় চলে আসে। কিন্তু অচিরেই তাদের জন্য মুসলিম লীগের দরজা বন্ধ হয়ে যায়। এমন বৈরী পরিস্থিতিতে নব গঠিত দল আওয়ামী মুসলিম লীগের আত্মপ্রকাশ ঘটে। ইতিমধ্যেই টাঙ্গাইলের একটি উপনির্বাচনে মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর বিজয় বাতিল করা হয়। পুনরায় নির্বাচন দিলে সোহরাওয়ার্দী পন্থী মুসলিম লীগ কর্মীরা শামসুল হককে জমিদার খুররম খান পন্নীর বিরুদ্ধে প্রার্থী করে জয় ছিনিয়ে আনে। কিন্তু এ বিজয়ও বাতিল করা হয়। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন ঢাকার ঐতিহাসিক রোজ গার্ডেনে মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলনে শামসুল হক সকলের সম্মতিতে মূল দাবী প্রস্তাব উত্থাপন করেন। যাতে বলা হয়ঃ
“ইসলামের দৃষ্টিতে আল্লাহ্ কেবল মুসলমানের নয়, জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সমগ্র মানবের। মানবতার চূড়ান্ত মুক্তিসংগ্রাম যাতে বিলম্বিত না হয়, সেজন্য জনতাকে তাহাদের সমস্ত ব্যক্তিগত এবং দলগত বিভেদ বিসর্জন দিয়া এককাতারে সমবেত হইতেই মুসলিম লীগ কর্মীসম্মেলন আবেদন জানাইতেছে।”
১৯৪৯ সালের ২৩ ও ২৪ জুন ঢাকার স্বামীবাগস্থ বিখ্যাত রোজগার্ডেনে অনুষ্ঠিত মুসলিম লীগ কর্মীসম্মেলন থেকে “আওয়ামী মুসলিম লীগ” নামে একটি দল গঠনের ঘোষণা দিয়ে এই আহবান জানানো হয়। উপস্থিত তিন শতাধিক কর্মীসমর্থক অকুন্ঠ সমর্থন ব্যক্ত করে নতুন দল গঠনের সিদ্ধান্তকে করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানায়। সারা পাকিস্তানভিত্তিক একটি কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক কাঠামো গঠনের আগাম চিন্তাভাবনার অংশ হিসাবে প্রথমে পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা করা হয়। ঢাকার ১৫০ মোগলটুলী ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগ ক্যাম্পের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও আবুল হাশিমপন্থীরাই নতুন করে একটি দলগঠনের মনো ব্রত হন। জুন মাসের ২৩ তারিখকে বেছে নেয়া হয় এই কারণে যে ১৭৫৭ সালের ওই দিনে বাংলার স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়েছিলো পলাশীর বিশ্বাসঘাতকতা মূলক প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের ইংরেজ ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির কাছে নবাব সিরাজুদ্দৌলার পরাজয়ের মাধ্যমে। নবাব সিরাজুদ্দৌলাকে হত্যার পর তাঁর মস্তকবিহীন মরদেহ হস্তির পিঠে বেঁধে বাংলার রাজধানী মুর্শিদাবাদ ও কলকাতা শহরে আনন্দ মিছিল করে ইংরেজ সৈন্যরা। বলাবাহুল্য বিশ্বাসঘাতক প্রধান সেনাপতি মীর জাফর আলী খান নবাব উপাধি ধারণ করে বাংলার সিংহাসনে বসলেও কার্যত সমস্ত ক্ষমতার কেন্দ্র বিন্দু হয়ে ওঠেন লর্ড ক্লাইভ। ঐতিহাসিক এ দিনটিকে সামনে রেখে ১১৯৩ বছর আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে এই দলটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বিকেল তিনটায় ঢাকার তৎকালীন বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব হুমায়ুন বশীরের সাহসী উদ্দীপনা ও মুসলিম লীগ কর্মীদের ইস্পাত কঠিন মনোযোগে মওলানা রাগীব আহসানের পবিত্র কোরআন থেকে তেলওয়াতের মধ্য দিয়ে সম্মেলনের শুরু হয়।
দেশবিভাগপূর্ব আসাম প্রাদেশিক মুসলিম লীগ সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নেতৃত্বে ‘পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ” নামে দলটির কার্যক্রম শুরু হয়। দলপ্রতিষ্ঠার মূলপরিকল্পনাকারী অবিভক্ত বাংলার সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রী ও পাকিস্তান প্রস্তাবক হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। যে কারণে সরকারি বা রাষ্ট্র কাঠামোয়ে পূর্ববাংলা নামটি অদৃশ্য না হলেও আওয়ামী মুসলিম লীগ নামের সঙ্গে পূর্বপাকিস্তান শব্দটির সংযোগ ঘটানো হয়। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ১৯৫৬ সালের শাসনতন্ত্রে “পূর্ববাংলা” প্রদেশের নাম “পূর্ব পাকিস্তান” নামকরণ করা হয়। ওই সময়ে শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় পরিষদে তীব্র প্রতিবাদ করেন এবং পূবপাকিস্তান নয়, এমনকি পূর্ব বাংলা বা পূর্ববঙ্গ নয়, এই প্রদেশের নাম “বাংলাদেশ” রাখার লিখিত প্রস্তাব উত্থাপন করেন। ১৯৪৮ সালের ৪ জানুয়ারি নিখিল পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগের নেতৃত্বের দ্বন্দ্বকে কেন্দ্র করে শেখ মুজিবের প্রচেষ্টায় গঠিত মুসলিম ছাত্রলীগ নামের সঙ্গে পূর্ব পাকিস্তান শব্দটির যুক্তকরণের নেপথ্যেও ছিলো সোহরাওয়ার্দীর “পাকিস্তান জাতীয়তাবাদ।” মুসলিম ছাত্রলীগের ১৫ নেতাই ছিলেন সোহরাওয়ার্দী পন্থী মুসলিম লীগ কর্মী বা কাউন্সিলর। উল্লেখ্য, এ কারণেই আওয়ামী লীগকে ছাত্রলীগের মাতৃসংগঠন বলা হয়ে থাকে।
“নেতৃবর্গের মধ্যে যোগসূত্র”

১৯৪৯ সালের ৯ জুন ঢাকায় এসে তাঁর বেশ কিছু ভক্তানুসারীসহ দেশবিভাগপূর্ব আসাম প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর সঙ্গে শলাপরামর্শ করেন। চারদিনের মাথায় ভাসানীকে আহবায়ক ও ইয়ার মোহাম্মদ খানকে সদস্যসচিব করে মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। এরপর রোজগার্ডেন থেকে পূর্বপাকিস্তান প্রাদেশিক আওয়ামী মুসলিম লীগের নাম প্রচারিত হবার পর সভাপতি হিসাবে মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীর নাম ঘোষণা করেন আতাউর রহমান খান। মওলানা ভাসানী সহসভাপতি পদে আতাউর রহমান খান, সাখাওয়াত হোসেন, আলী আহম্মদ খান, আলী আমজাদ খান, আব্দুস সালাম খান, সাধারণ সম্পাদক পদে শামসুল হক ও যুগ্মসম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান, খন্দকার মোশতাক আহমেদ, সহ যুগ্মসম্পাদক পদে একে রফিকুল হোসেন এবং কোষাধ্যক্ষ পদে ইয়ার মোহাম্মদ খানের নাম ঘোষণা করেন। এ
রপর শামসুল হক জানান, সভাপতি মহোদয় ৪০ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির বাদবাকী পদে মনোনীত করে তা ঘোষণা করবেন। বলা বাহুল্য, আওয়ামী মুসলিম লীগের জন্য শুধুমাত্র সদস্যদের একটি তালিকা চূড়ান্তকরণ হলেও তা কখনই আর আলোর মুখ দেখেনি। এমনকি অফিস পরিচালনার জন্য একটি দফতর সম্পাদকের পদও তৈরি করা সম্ভব হয়নি। মওলানা ভাসানী ও শামসুল হকের আগেই শেখ মুজিব ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারি কারামুক্ত হন। তিনি ৯০ নম্বর নবাবপুরস্থ বাড়ির একটি কক্ষে দুটো চেয়ার, দুটো টুল ও একটি টেবিল নিয়ে অফিস খুলে বসেন। মোহাম্মদুল্লাহ নামের এক তরুণ উকিল স্বেচ্ছায় কাজ করার আগ্রহ প্রকাশ করলে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিব তাকে দপ্তরের কাজে বসিয়ে দেন। ১৯৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিলে শেখ মুজিব সাধারণ সম্পাদক হয়ে মোহাম্মুদুল্লাহকে দপ্তর সম্পাদক নিয়োগ দেন। ১৯৭২ সাল পর্যন্ত মোহামুদুল্লাহ এই পদে ছিলেন। পরে স্পিকার,রাষ্ট্রপতি করা হলেও শেখ মুজিব হত্যার পর খুনী মোশতাকের উপরাষ্ট্রপতি এবং বিএনপিতে যোগ দিয়ে বিচারপতি সাত্তারেরও দুদিনের জন্য উপরাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন মোহাম্মদ উল্লাহ।
উল্লেখ্য দলটির প্রতিষ্ঠাতা সহসভাপতি সাখাওয়াত হোসেন, আলী আমজাদ খান ও সহ যুগ্মসম্পাদক একে রফিকুল হোসেন ১৯৪৯ সালের ১১ অক্টোবর কর্মসূচিপালনকালে ভাসানী ও শামসুল হক গ্রেফতার হবার পর আতঙ্কিত হয়ে পত্রিকায় বিবৃতি দিয়ে আওয়ামী মুসলিম লীগের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করেন। শেখ মুজিবের গ্রেফতারের পর অন্যতম যুগ্ম সম্পাদক খন্দকার মোশতাক দূরে সরে যান।
ফলে ১৯৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিলেই কমিটি থেকে বাদ পড়েন মোশতাক আহমেদ। ১৯৫৪ সালের মনোনয়ন না পেয়ে মোশতাক স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে দাউদকান্দি থেকে জয়ী হয়ে পরে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। পরবর্তীতে বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে শেরেবাংলার যুক্তফ্রন্টে থাকার কারণে বা শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বহিস্কার হন মোশতাক। ১৯৫৫ সালে “মুসলিম” শব্দ রদ হলে আরেক বহিস্কৃত সহসভাপতি আব্দুস সালাম খানের সঙ্গে এক হয়ে মোশতাক আওয়ামী মুসলিম লীগ নামেই একটি দলের নাম টিকিয়ে রাখার ব্যর্থ চেষ্টা করেন। যুগ্ম সম্পাদকের পদ বিলুপ্ত করা হয়েছিলো মোশতাকের কারণেই। বঙ্গবন্ধুর জীবদ্দশায় যুগ্ম সম্পাদক বলে কোনো পদ ছিলো না। আওয়ামী লীগের প্রথম কাউন্সিলেই যুগ্মসম্পাদকের পদ বিলুপ্ত করা হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যাত্তোর এই পদ পুনরায় সৃষ্টি করা হয়। ১৯৫৩ সালের কাউন্সিলে সাংগঠনিক সম্পাদক, প্রচার সম্পাদক, শ্রম সম্পাদক ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদ সৃষ্টি করে তাতে নিয়োগ দেয়া হয় যথাক্রমে এম কোরবান আলী, আব্দুর রহমান, আব্দুস সামাদ আজাদ ও তাজউদ্দীন আহমেদকে।

“কেন্দ্রীয় আওয়ামী
মুসলিম লীগ গঠন”

পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠার এক বছরের মাথায় রাজধানী করাচীতে কেন্দ্রীয় দল গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয়। ১৯৫০ সালের ১৩ জুলাই বিভিন্ন প্রদেশের নেতাদের এক ‘প্রতিনিধি সম্মেলন’ অনুষ্ঠিত হয়। আর এ মধ্য দিয়ে আত্মপ্রকাশ করে “নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ।” নেতৃত্ব গ্রহণ করেন সয়ং হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। সাধারণ সম্পাদক পদ লাভ করেন পশ্চিম পাকিস্তানের মাহমুদুল হক ওসমানী। ১৯৫৫ সালে “মুসলিম” শব্দটটি পরিহার করে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় গড়ে তুলতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের জন্য দলের দরজা উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। সেই থেকে আজ পর্যন্ত “আওয়ামী লীগ” নামে পরিচিত হয়ে আসছে। “পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগ।”১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ যখন সারা পাকিস্তানের রাষ্ট্র ক্ষমতায় তখনই গঠন করা হয়েছিলো পশ্চিম পাকিস্তান আওয়ামী লীগ।

” কাগমারী সম্মেলন ও
আওয়ামী লীগের ভাঙ্গন ”

১৯৫৭ সালে আওয়ামী লীগে চরম ভাঙ্গণ দেখা দেয়। যখন কেন্দ্রে ও প্রদেশে শাসন ক্ষমতায় আওয়ামী লীগ। সেটা ছিল দেড় বছরের শাসনামল। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী সোহরাওয়ার্দীর মার্কিন ঘেঁষা বৈদেশিক নীতির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগে মতবিরোধ দেখা দেয়। পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী লীগ সভাপতি মওলানা ভাসানীসহ তাঁর অনুসারীরা কাগমারীতে দলের কাউন্সিল করেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অবাঙালী মাহমুদুল হক ওসমানী নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান করেন। মওলানা ভাসানীর “ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) প্রতিষ্ঠা করে কেন্দ্র ও প্রদেশের সভাপতি হন। কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন যথাক্রমে মাহমুদুল হক ওসমানী ও মাহমুদ আলী। আওয়ামী লীগ দলের সভাপতির শূন্য পদে মওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশকে মনোনীত করে।

“শামসুল হকের মস্তিষ্কে বিকৃতি”

আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক হলেও কার্যত শামসুল হক কারারুদ্ধ হয়ে পড়েন। যে কারণে তিনি সাংগঠনিক পরিসরে কর্মকান্ড পরিচালনা করতে পারেননি। ১৯৪৯ সালের ১১ অক্টোবর দলের দ্বিতীয় কর্মসূচি পালনকালে গ্রেফতার হন মওলানা ভাসানীর সঙ্গেই। যুগ্ম সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান ওদিন গ্রেফতার এড়াতে সফল হলেও করাচী থেকে আসার পর গ্রেফতার হয়ে যান। ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারী তিনি মুক্তি পেলেও ভাসানী-শামসুল হক কারাগারেই থাকেন। ভারপ্রাপ্ত সাধারণ হিসাবে শেখ মুজিবকেই দায়িত্বপালন করে যেতে হয়। শামসুল হক কারাগার থেকে মুক্তি পেলেও অপ্রকৃতিস্থ হয়ে পড়েন। কারারুদ্ধ অবস্থায় আচার আচারণে বিকৃতি ও দিনরাত জিকির করার খবর ছড়িয়ে পড়ে। এ কথা শুনে তাঁর সুন্দরী স্ত্রী অধ্যাপিকা আফিয়া খাতুন লন্ডন প্রবাসী এক অবাঙালীকে বিয়ে করে সেখানে সংসার পাতেন। এ খবরশুনে শামসুল হক একরকম পাগলবনে। আফিয়া খাতুন ছিলেন তাঁর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহপাঠী। বিয়েটা ছিল প্রেমের পরিণতি। কারাগার থেকে শামসুল হক পান।
১৯৫৩ সালে ঢাকা সিটি আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রথম কাউন্সিলে শামসুল হককেই প্রধান অতিথি করা হয়। কিন্তু তাঁর আচার-আচারণে এক বিব্রতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় সভামঞ্চে। তিনি তাঁর বক্তৃতায় নিজেকে সারা দুনিয়ার “খলিফা” বলে দাবি করে বসেন।
শামসুল হকের আশা এবার ছেড়ে দেয় দলটি। তিনি একসময় লাপাত্তা হয়ে সবার অলক্ষে চলে যান।
এভাবেই পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর রোষানলে পড়ে প্রতিভাবান এক নেতা চিরদিনের জন্য অন্তর্ধান হয়ে যান। করুণতরভাবে রাজনীতিতে যবনিকাপাত ঘটে সম্ভাবনাময় শামসুল হক অধ্যায়ের।

“শেখ মুজিবের উত্থান শুরু”

১৯৫৩ সালের প্রথম প্রাদেশিক কাউন্সিলে ভারপ্রাপ্ত থেকে শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠেন। ১৯৫৫ সালে আতাউর রহমান খানের মন্ত্রী পরিষদ থেকে পদত্যাগ করেন। দলীয় গঠনতন্ত্রে একই সঙ্গে মন্ত্রীত্ব ও নেতৃত্ব করার বিষয়ে বিধি নিষেধ থাকায় প্রশ্ন ওঠায় এ পন্থা অবলম্বন করেন তিনি।১৯৬৫ সালের ৫ ডিসেম্বর বৈরুতে সোহরাওয়ার্দীর রহস্যজনক মৃত্যুতে রাজনীতির দৃশ্যপট বদলে যায়। শেখ মুজিব হয়ে ওঠেন দলের কান্ডারী। ১৯৬৬ সালে প্রদেশের সভাপতি পদ গ্রহণ করেন এবং সাধারণ সম্পাদক করেন তাজউদ্দীন আহমেদকে। তখনও নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী লীগের সভাপতি পদে ছিলেন নওয়াবজাদা নসুরউল্লাহ খান ও সাধারণ সম্পাদক পদে জহিরুদ্দীন। ১৯৬৬ সালের ঐতিহাসিক ছয় দফাকে কেন্দ্র করে জেনারেল আইয়ুব খান আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় ফাঁসাতে চান শেখ মুজিবকে। ফলে তিনি অবিসংবাদী নেতায় পরিনত হন। ১৯৬৯ এর ছাত্রসমাজের গণঅভ্যুত্থান তাঁকে এনে দেয় “বঙ্গবন্ধু” খেতাব। ১৯৭০ সালের নির্বাচনের আগে শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান আওয়ামী লীগেরও সভাপতির পদ অলংকৃত করেন। সাধারণ সম্পাদক করা হয় এএইচএম কামরুজ্জামানকে। নির্বাচনের মাধ্যমে তিনি পাকিস্তানের রাজনীতিতে “কিংবদন্তী” হয়ে ওঠেন। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীত্ব হাতের মুঠো থেকে খসে যায় সামরিক জান্তা জেনারেল ইয়াহিয়া ও নির্বাচনে সংখ্যালঘু দল পিপলস পার্টির জুলফিকার আলী ভুট্টোর ষড়যন্ত্রের কারণে।
১৯৭১ এর মুক্তিযুদ্ধ নেতৃত্বদানকারী সংগঠন হিসাবে পাকিস্তান আওয়ামী লীগ পরিনত হয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে। বঙ্গবন্ধু থেকে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি হিসাবে হয়ে ওঠেন “জাতির পিতা।”

“জন্মসূত্র”
ভারত উপমহাদেশে শতশত দল গঠিত হলেও স্বাধীনতার পতাকাবাহী প্রধান দল তিনটি। একটি দলের প্রতিষ্ঠার সূত্র ধরে ঐতিহাসিক মুক্তিসংগ্রামের জন্য তিনটি দলের অভ্যুদয়। কংগ্রেস, মুসলিম লীগ ও আওয়ামী লী। কংগ্রস প্রতিষ্ঠাতা অ্যালেন অক্টেভিয়ান হিউম ও প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি উমেশ ব্যানার্জী।
মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠাতা মহামান্য আগা খান ও প্রস্তাবক নবাব স্যার সলিমুল্লাহ। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও প্রস্তাবক মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী। ১৮৮৫ সালের ২৮ ডিসেম্বর জাতীয় কংগ্রেস,১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর মুসলিম লীগ ও ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী লীগ জন্মলাভ করে।

“রাজনৈতিক সূত্র
অক্টেভিয়াম হিউম”

ইংরেজ আমলা হিউম দেশের মানুষকে দায়িত্বশীল ও ঐক্যবদ্ধ করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তিনি খোলা চিঠির মারফত ভারতীয়দের নৈতিক, মানসিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক জাগরণের লক্ষে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েটদের একটি সমিতি গঠনের আহবান জানান। লর্ড রিপনের শাসনামলে ১৮৮৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর “ভারতীয় জাতীয় ইউনিয়ন (ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ইউনিয়ন) নামে একটি সংগঠন আত্মপ্রকাশ করে। এরপর এ ব্যানারেই ১৮৮৫ সালের ২৮ ডিসেম্বর বোম্বাইতে সর্ব ভারতীয় প্রতিনিধিদের এক কংগ্রেস আহবান করা হয়।সম্মেলনের সিদ্ধান্তক্রমে ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল ইউনিয়েনের নাম ঈশৎ পরিবর্তন করে “ইউনিয়ন” শব্দটটি তুলে দিয়ে “কংগ্রস” শব্দটি স্থাপন করা হয়। এভাবেই ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের জন্মের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারতীয় জাতীয়তাবাদের উন্মেশ ঘটে। ইংরেজ হিউম মূল প্রতিষ্ঠাতা হলেও বাঙালী উমেশ ব্যানার্জী কংগ্রেসের প্রথম সভাপতি। বাল গঙ্গাধর তিলক, লালা লাজপত রায়, দাদাভাই নওরোজী, বিপীন চন্দ্র পাল প্রমুখ নেতা দলটির অন্যতম দিকপালে পরিণত হন। কংগ্রেসের লক্ষ ও উদ্দেশ্য বঙ্গভঙ্গকে কেন্দ্র করে ১৯০৫-১৯০৬ সালে দু’টো দাবিকে কেন্দ্র করে আবর্তিত হতে থাকে এবং তা ১৯৪৭ সালের স্বাধীনতালাভের পূর্বকাল পর্যন্ত চলতে থাকে। এক, স্বরাজ লাভ দুই, পূর্ণ স্বাধীনতা। বাল গঙ্গাধর তিলক ঘোষণা করেন “স্বরাজ আমার জন্মগত অধিকার, আর তা আমাকে পেতেই হবে।” দাদাভাই নওরোজীও একই সুরে বলেন,”স্বরাজ অর্জনই কংগ্রেসের কর্মধারার মূল লক্ষ। “পরবর্তীতে মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধীও স্বরাজের দাবিতে অহিংস অসহযোগ আন্দোলন গড়ে তোলেন। ১৯২৮ সালে কংগ্রেস আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্ণ স্বাধীনতার দাবি করে। এ সময় স্যার চিত্তরঞ্জন দাশ, গোপাল কৃষ্ণ গোখলে, সীতারামাইয়া, সরোজিনী নাইডু, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু, মওলানা আবুল কালাম আজাদ, পন্ডিত জওহরলাল নেহেরুর ন্যায় স্বাধীনতাকামী নেতাদের অভ্যুদয় ঘটে। ফলে কংগ্রেসের নেতৃত্বে ১৯৪৭ সালের ১৫ আগস্ট ভারত গণপ্রজাতন্ত্রী রাষ্ট্রের অভ্যুদয় ঘটে। নতুন রাষ্ট্র হিসাবে প্রতিষ্ঠা লাভ করে পাকিস্তান নামক অভিনব রাষ্ট্র। অপরদিকে স্যার সৈয়দ আহমদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় মুসলমানরা ইংরেজী শিক্ষায় ক্রমে শিক্ষিত হয়ে উঠলেও তারা ধীরে ধীরে উপলব্ধি করতে শুরু করে, যে ভারতবর্ষে হিন্দু মুসলমান দুটি আলাদা ও স্বতন্ত্র সম্প্রদায়।
আই, এইচ কোরশী তার বিখ্যাত গ্রন্থ History of the Freedom Movement,-এ যথার্থই লিখেছেন,” To many Hindus, nationalism and Hindu communalism became twin sisters.”
অ্যালেন অক্টেভিয়ান হিউম লিখেছেন, ভারতে বিদ্রোহের কারণ সম্পর্কে স্যার সৈয়দ আহম্মদ খানের পুস্তক পড়ার পরেই সর্বপ্রথম আমি অনুভব করি যে, ভারতীয় জনমতের মঞ্চস্বরূপ একটা সংগঠন প্রয়োজন। আর এই প্রয়োজনের প্রেক্ষিতেই আমি ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের জন্ম দেই।”
অবশ্য, ১৮৩৩ সালে কলকাতায় সুরেন্দ্রনানাথ ব্যানার্জী ইন্ডিয়ান এসোসিয়েশন নামে প্রথম একটি প্লাটফর্ম দাঁড় করিয়ে সকল ভারতীয়কে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়েছিলেন। বোম্বাই, মাদ্রাজ ও বাংলা প্রেসিডেন্সিতে একই নামে সংগঠন গড়ে উঠেছিল। স্যার সৈয়দ আহমদের মৃত্যুর পর আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা প্রাপ্তরা মুসলমান সম্প্রদায়ের স্বার্থ রক্ষার প্রশ্নটি সামনে নিয়ে আসা হয়। ১৯০১ সালের ২১ অক্টোবর লক্ষ্মৌতে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ব্যারিস্টার সৈয়দ শরফুদ্দীনের সভাপতিত্বে। স্যার সৈয়দ আহমদের বন্ধু নওয়াব ভিকারুল মুলক্ এগিয়ে আসেন।
১৯০৬ সালের অক্টোবরে মহামান্য আগা খানের নেতৃত্বে বড় লাট লর্ড মিন্টোর সঙ্গে সিমলায় সাক্ষাত করেন এবং মুসলমানদের জন্য পৃথক নির্বাচন দাবি করেন। বিস্ময় যে, ১৪ লাখ ৬১ হাজার ১৮৩ জন সদস্য প্রতিনিধি দলে ছিলেন।। ঢাকায় সর্ব ভারতীয় মুসলিম শিক্ষা সম্মেলনলন অনুষ্ঠিত হয় ১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর। নবাব ভিকারুল মুলক্ ভাষণ দেয়ার পর নবাব স্যার সলিমুল্লাহ “নিখিল ভারত মুসলিম লীগ”নামে একটি রাজনৈতিক দল গঠনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। আগা খান সভাপতি এবং নবাব ভিকারুল মুলক্ ও নবাব মোহসীন উল মুলক্ যুগ্মভাবে সম্পাদক হন।
১৯০৭ সালে ডিসেম্বর করাচীতে প্রথম সম্মেলনে বোম্বাইের স্যার আদমজী পীরভাই গঠনতন্ত্র পেশ করে তা অনুমোদন করিয়ে নেন। মহামান্য আগা খান, নবাব স্যার সলিমুল্লাহ, ভিকার উল মুলক্, মোহসীন উল মুলক্, নবাব সৈয়দ নওয়াব আলী চৌধুরী, লাহোরের শাহ্ দীন, হাকিম আজমল খান, মওলানা জাফর আলী খান, মওলানা মোহাম্মদ আলী, মওলানা শওকত আলী,বোম্বাইয়ের স্যার আদমজী পীরভাই, সৈয়দ আমির আলী প্রমুখ মুসলিম লীগের শীর্ষ নেতায় পরিণত হন। লর্ড মিন্টোর আগে লর্ড কার্জন ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বঙ্গভঙ্গ আইন পাস করে বাংলা প্রেসিডেন্সি ভেঙ্গে ফেলেন। পূর্ববঙ্গ ও আসাম নামে একটি এবং পশ্চিমবঙ্গ নামে আরেকটিটি প্রদেশ হলে মুসলিম লীগ তাকে স্বাগত জানায়। অচিরেই সর্বভারতীয় কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। তিনি মুসলিম লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীন পাকিস্তানের অভ্যুদয় ঘটিয়েছেন। ঠিক তেমনি মুসলিম লীগ থেকে বেরিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটান।
আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠন ছিলো পাকিস্তান ভিত্তিক।
পাকিস্তান গণপরিষদ এবং মুসলিম লীগ থেকে বহিস্কৃত হওয়ার জের ধরে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর নির্দেশনায় উভয় অঞ্চলে আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা করা হযেছিলো। নির্দেশনাদানকারী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ঢাকার রোজগার্ডেনের কর্মীসম্মেলনেও উপস্থিত থাকতে পারেননি। নুরুল আমীন সরকার কর্তৃক পূর্বপাকিস্তানে প্রবেশের ওপর তাঁর নিষেদ্ধাজ্ঞা ছিল।
“পূর্ববাংলা বা পূর্ববঙ্গ এর স্থলে প্রদেশের নাম
পূর্বপাকিস্তান যে কারণে” সোহরাওয়ার্দী সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা থেকে পূর্ববাংলা বা পূর্ববঙ্গ নয়, বিভক্ত বাংলার পূর্বাঞ্চলের নাম “পূর্বপাকিস্তান” রাখেন। মূলত, তিনি “পাকিস্তান জাতীয়তাবাদ” প্রবর্তনের আগাম পরিকল্পনা ব্যক্ত করেন এবং মুসলিম লীগের নাম ন্যাশনাল পার্টিকরণের প্রস্তাব করেছিলেন। পাকিস্তান প্রস্তাবক শহীদ সোহরাওয়ার্দীর গণপরিষদ সদস্য কেড়ে নেয়া হয় ওই বক্তব্যের জের ধরে। পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নবাবজাদা লিয়াকত আলী সোহরাওয়ার্দীকে অভিহিত করেন “পাকিস্তানের দুশমন ও ভারতের লেলিয়ে দেয়া কুকুর” বলে।
পাকিস্তানের জনক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের প্রথম গণপরিষদের অধিবেশনে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর দেয়া প্রস্তাবের মূলে ছিল, জাতীয়তাবাদী চেতনায় স্বাধীন পাকিস্তানকে সকল ধর্ম-বর্ণের মানুষের উপযোগী স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসাবে গড়ে তোলা।১৯৫৪ সালে গভর্নর জেনারেল গোলাম মহম্মদের অনুরোধে কেন্দ্রীয় আইন মন্ত্রী হওয়ার পর সোহরাওয়ার্দী পাকিস্তানের শাসনতন্ত্র প্রণয়ন করেন। ১৯৫৬ সালে গভর্নর জেনারেল জেনারেল ইস্কান্দার মীর্জার আহবানে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীত্ব গ্রহণ করে শাসনতন্ত্রে “এক ইউনিট” পন্থা গ্রহণ করে আওয়ামী লীগকে শক্তিশালী করে তোলেন। সিন্ধু, বেলুচিস্তান, পশ্চিম পাঞ্জাব প্রদেশকে “পশ্চিম পাকিস্তান” প্রদেশে পরিণত করেন আওয়ামী লীগ ও রিপাবলিকান পার্টির কোয়ালিশন সরকার।
মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী টাঙ্গাইলে জন্মগ্রহণ করলেও আসামের রাজনীতির পুরোধা ছিলেন। তিনি ভারতবিভাগ কালে ছিলেন আসাম মুসলিম লীগের সভাপতি। পূর্ববঙ্গের বা পশ্চিম বঙ্গের রাজনীতিতে তাঁর পরিচিতি ছিল না। দেশ বিভাগের পর আসাম ভারতের প্রদেশে পরিণত হলে বিপাকে পড়েন ভাসানী। আসামের এক কৃষক আন্দালনে নেতৃত্ব দিয়ে সফল হলে ভাসানচরের মানুষ তাঁকে “ভাসানী” উপাধী দেয়। কিন্তু আসামের উপাধীকে বহন করে তাঁকে আসাম ছেড়ে পূর্ববাংলায় চলে আসতে হয়।

“বাঙ্গাল খেদাও”

আন্দোলনের তোপে পড়ে ভাসানীকে গ্রেফতারবরণ করতে হয় এবং আসামের ধুবড়ী জেল থেকে মুক্তি পেয়ে টাঙ্গাইলে নিবাস গড়ে তোলেন। ঠিক এই সময় পাকিস্তান গণপরিষদের একজন সদস্যের মৃত্যুতে টাঙ্গাইল দক্ষিণ আসনটি শূন্য হয়। তখন উপনির্বাচনে মুসলিম লীগ প্রার্থী জমিদার হুমায়ুন খান পন্নীর বিরুদ্ধে মওলানা ভাসানী নির্দলীয় প্রার্থী হন। তিনি বিপুল ভোটে বিজয়ী হলেও সরকার ফলাফল বাতিল করে। ১৯৫০ সাল পর্যন্ত তাঁকে নির্বাচনে অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। আবার উপনির্বাচন দিলে ঢাকার ১৫০ মোগলটুলীর মুসলিম লীগ কর্মীরা শামসুল হককে হুমাযুন খান পন্নীর বিরুদ্ধে প্রার্থী করে। শেখ মুজিবুর রহমানসহ কলকাতা ফেরত ছাত্রলীগ নেতাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে শামসুল হক বিজয়ী হন। কিন্তু এই ফলাফলও বাতিল ঘোষিত হয়। ঢাকার রোজগার্ডেনে মুসলিম লীগ কর্মীসম্মেলনে “মূল দাবি” উত্থাপন করেন টাঙ্গাইলের শামসুল হক।
আবুল হাশিম নিখিল বঙ্গ মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন যখন সোহরাওয়ার্দী সভাপতি। কিন্তু আবুল হাশিম এই দলের সঙ্গে যুক্ত না হলেও তাঁর ১৫০ মোগলটুলী ক্যাম্পের তাঁর সমর্থনপুষ্টরা আওয়ামী মুসলিম লীগ গঠনের নেপথ্য বিরাট ভুমিকা রাখেন।দলের সাধারণ সম্পাদক শামসুল হকই ছিলেন আবুল হাশিমপন্থী বলে পরিচিত। ”
মুসলিম লীগের দরজা বন্ধ হওয়ার ফলে সোহরাওয়ার্দীর দল গঠন ছাড়া উপায় ছিলোনা। অবিভক্ত বাংলার সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রীই শুধু নন, তিনি ছিলেননিখিল বঙ্গ মুসলিম লীগের সভাপতি। তাঁকে সরিয়ে মওলানা আকরম খানকে সভাপতি করা হয় পূর্বপাকিস্তান মুসলিম লীগের। আর মুখ্যমন্ত্রী করা হয় খাজা নাজিমুদ্দিন। গভর্নর জেনারেল মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর মৃর্ত্যুর পর সংকট প্রকট হয়ে ওঠে। পাঞ্জাবের এককালীন মুখ্যমন্ত্রী চৌধুরী খলিকুজ্জামান নিখিল পাকিস্তান মুসলিম লীগের সভাপতি হন। পূর্ববাংলার মুখ্যমন্ত্রী খাজা নাজিমুদ্দিন জিন্নাহর স্থলে পাকিস্তানের গভর্নর জেনারেল পদে আসীন হন। পূর্ববাংলার মুখ্যমন্ত্রীর পদে বসানো হয় নুরুল আমীনকে। ফলে রাজনৈতিক পরিস্থিতি টালমাটাল হয়ে পড়ে। “উর্দু হবে একমাত্র রাষ্ট্র ভাষা” পাকিস্তানী শাসকদের এই হুঙ্কারে পূর্বপাকিস্তানে ছাত্রসমাজ গর্জে ওঠে। অবিভক্ত বাংলার প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও ঐতিহাসিক লাহোর প্রস্তাবক শেরেবাংলা একে ফজলুল হক মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী,মওলানা আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ, শামসুল হক, শেখ মুজিবুর রহমান, মহিউদ্দীন আহমেদ, তাজউদ্দীন আহমেদ, অলি আহাদ, আবদুস সামাদ আজাদ, গোলাম মাহবুব, গাজীউল হকসহ সর্বমহল মাতৃভাষা বাংলা চাই দাবিতে সোচ্চার হয়ে ওঠে। গঠিত হয় ভাষা সংগ্রাম পরিষদ।

“ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা”

ভাষা সংগ্রাম সূচনার আগেই নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগের অভ্যন্তরে একটি গ্রুপ ছিল। খাজা নাজিমুদ্দিন পন্থী, যার নেতৃত্বে ছিলেন শাহ আজিজুর রহমান এবং অন্যটি ছিল সোহরাওয়ার্দী পন্থী, যার নেতৃত্বে ছিলেন শেখ মুজিবুর রহমান। শেখ মুজিবের নেতৃত্বাধীন উপদলটি ১৯৪৮ সালের চার জানুয়ারি থাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফজলুল হক মুসলিম হল মিলনায়তনে মিলিত হয়ে “পূর্বপাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ” নামে একটি সংগঠনের আত্মপ্রকাশ ঘটায়। এবং ভাষা সংগ্রামে অগ্রণী ভুমিকায় অবতীর্ণ হয়। শেখ মুজিবসহ ছাত্রলীগ নেতারা কারারুদ্ধ হলে জনমত তাদের পক্ষে যায়। ধীরে ধীরে ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগের পকেট সংগঠনে পরিণত হওয়ায় অচিরেই শাহ আজিজুর রহমান ও শামসুল হুদা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন নিখিল পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ কার্যত অকার্যকর হয়ে পড়ে।
এরপর পরই সোহরাওয়ার্দী পন্থীরা মুসলিম লীগের সদস্যপদ লাভের জন্য তৎপর হয়ে ওঠেন। প্রথমে তাঁরা মওলানা আকরম খান ও পরবর্তীতে করাচীতে যান আনোয়ারা খাতুন এমএলএ এবং আতাউর রহমান খান। তাঁরা পাকিস্তান মুসলিম লীগ সভাপতি চৌধুরী খলিকুজ্জামানের দ্বারস্থ হয়ে বিমুখ হয়ে ঢাকায় ফিরে আসেন। ভক্তানুসারীদের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য সোহরাওয়ার্দী করাচী থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। স্টিমারযোগে নারায়ণগঞ্জ পৌঁছলে ওখান থেকেই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কেন্দ্রের নির্দেশনামা প্রদর্শন করে তাঁকে পূর্ববাংলায় নিষিদ্ধ ঘোষিত করেন।
১৯৪৯ সালের ৯ জুন সোহরাওয়ার্দী আবার ঢাকায় আসেন। ছাত্রলীগের অস্থায়ী আহবায়ক দবিরুল ইসলামের হেবিয়ার্স কর্পাস মামলা পরিচালনার জন্য। সুযোগে তিনি মওলানা ভাসানীকে সামনে রেখে দলগঠনের আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া শুরু করার জন্য তাঁর ভক্তদের পরামর্শ দিয়ে যান মওলানা ভাসানী আসামের ধুবড়ী জেল থেকে ছাড়া পেয়ে আগেই ঢাকায় এসে আলী আমজাদ খানের বাসায় উঠেছিলেন সোহরাওয়ার্দী ঢাকায় ক্যাপ্টেন শাহজাহানের বাসায় উঠলে ভাসানী তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।। ভাসানী একটি বৈঠক করেন সাখাওয়াত হোসেন,শামসুদ্দীন আহমেদ, ঢাকার শওকত আলী, আলী আমজাদ খান, খন্দকার আব্দুল হামিদ ও ইয়ার মোহাম্মদ খানের উপস্থিতিতে। “সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি” গঠন নিয়ে কথা হয়। তবে শুরুতেই বিরোধ দেখা দেয়। আলী আমজাদ খান আহবায়ক ও ইয়ার মোহাম্মদ খানকে সম্পাদক করা নিয়ে। শওকত আলী ও খন্দকার আব্দুল হামিদ কমিটির বিরোধিতা করেন।
পরে মওলানা ভাসানীকে আহবায়ক ও ইয়ার মোহাম্মদ খানকে সম্পাদক করে প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। ঢাকায় স্থান না পেয়ে তারা নারায়ণগঞ্জের রহমতগঞ্জ ইনস্টিটিউট ও পাইকপাড়ায় দু’দফা মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলন করার চেষ্টা করে। কিন্তু ব্যর্থ হন উদ্যোক্তারা। এসব খবর শুনে ঢাকা মিউনিসিপাল কর্পোরেশনের ভাইস চেয়ারম্যান কাজী বশীর হুমায়ুন তাঁর বিখ্যাত রোজগার্ডেনে সম্মেলন অনুষ্ঠানের স্থান নির্ধারণ করে দেন। সরকারি বাধা নিষেধের আড়ালে সম্মেলনের দু’দিন আগেই গায়ে কোম্বল জড়িয়ে ঘোড়ার গাড়িতে করে মওলানা ভাসানীকে রোজগার্ডেনে পৌঁছে দেন শওকত আলী। ২৩ জুন ১৯৪৯। বিকাল তিনটায় একেক করে লোকজন আসতে শুরু করে। তিন শত কর্মীর ওই সম্মেলন চলে গভীর রাত পর্যন্ত। শেরে বাংলা একে ফজলুল হক সম্মেলনে উপস্থিত হয়ে নতুন দল গঠনকে স্বাগত জানিয়ে কয়েক মিনিট বক্তৃতা করেন। সোহরাওয়ার্দীর নির্দেশনায় মূলত, মানকীর পীর শরীফের উওর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ আওয়ামী মুসলিম লীগের ন্যায় আওয়ামী মুসলিম লীগ আত্মপ্রকাশ ঘটে। আওয়ামী মুসলিম লীগের ম্যানিফেষ্টো হিসাবে গৃহীত হয়।

মূলদাবি

শিরোনামের প্রস্তাবটি। যাতে বলা হয়েছিলঃ
“পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলন মনে করে যে, সবকালের সবযুগের, সবদেশের যুগ প্রবর্তক ঘটনাবলীর ন্যায় লাহোর প্রস্তাবও একটা নতুন ইতিহাসের সৃষ্টি করিয়াছে। বিরুদ্ধ পরিবেশে মানবের দেহ, মন ও মস্তিষ্কের উন্নতি ও পূর্ণ বিকাশ সম্ভব নয়। মানুষ পরিবেশের দাস এ কথা বৈজ্ঞানিকরাও স্বীকার করেন। বিরুদ্ধ পরিবেশে পূর্ণ ইসলামিক মনোভাব এবং সমাজ বিধান গড়ে তোলা সম্ভব নয়। ভারতের মুসলমানগণ বহুশতাব্দীর সঞ্চিত অভিজ্ঞতা হইতে এই মহাসত্য উপলব্ধি করিয়াই বিরুদ্ধ পরিবেশে না দারুল হরবের পরিবর্তে ইসলামিক পরিবেশ বা দারুল ইসলাম কায়েম করার জন্য প্রতি প্রতিজ্ঞাববদ্ধ হইয়া ছিল। কিন্তু পাকিস্তান ইসলামিক রাষ্ট্র হইলেও শুধু মুসলমানের জন্য প্রতিষ্ঠিত করিবার এবং পাশ্চাত্য সভ্যতা ও শিক্ষা প্রভাবান্বিত ইসলাম বিরোধী সাম্রাজ্যবাদী, ধনতান্ত্রিক ও আত্মকেন্দ্রিক পরিবেশ গড়িয়া তুলিবার ইচ্ছা তাহাদের ছিল না। ইসলামের দৃষ্টিতে আল্লাহ কেবল মুসলমানের নয়, জাতি,ধর্ম ও বর্ণ নির্বিশেষে সমগ্র মানবের।… মানবতার চূড়ান্ত মুক্তিসংগ্রাম যাতে বিলম্বিত না হয়, সেজন্য জনতাকে তাহাদের সমস্ত ব্যক্তিগত এবং দলগত বিভেদ বিসর্জন দিয়া এককাতারে সমবেত হইতে মুসলিম লীগ কর্মী সম্মেলন আবেদন জানাইতেছে।
সাম্রাজ্যবাদী সরীসৃপের ফোঁস ফোঁস শব্দ আজ আমাদের সমাজের আনাচে কানাচে সর্বত্র শোনা যাইতেছে। সেই ফোঁস ফোঁস শব্দ যেন এ যুগের সঙ্গীত। আমাদের কওমী প্রতিষ্ঠান এই সরীসৃপদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম চালাইয়া তাহাদের বিষদাঁত উৎপাটন করিতে বদ্ধপরিকর। হযরত আবু বকর (রাঃ) বানীর উল্লেখ করে বলা হয় যে- “যদি আমি ঠিক থাকি, তবে আমাকে অনুসরণ করো, আর যদি আমি ভ্রান্ত হই, আমাকে সংশোধন করো।”
সত্যিই পাকিস্তান তা অনুসরণ না করার কারণে আওয়ামী লীগের ম্যানিফেষ্ট বারবার পরিবর্তন ঘটেছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে ১৬ ডিসেম্বর জন্ম নেয় স্বাধীন বাংলাদেশ। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট জন্মনেয়া স্বাধীন পাকিস্তানের বিরুদ্ধে এক সাগর রক্তের মূল্যে যে স্বাধীনতা। অথচ, ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী মুসলিম লীগের “মূল দাবিনামার শেষ পংক্তিটি ছিল, “আসুন আমরা কোটি কোটি নরনারী সমবেত চেষ্টায় গণআজাদ হাসিল করিয়া সোনার পূর্বপাকিস্তানকে সুখী, সমৃদ্ধ ও গণতন্ত্রের ভিত্তিতে গড়িয়া তুলি।”

“প্রতিষ্ঠাকালীন উপস্থিতি”

প্রতিষ্ঠাকালীন আওয়ামী মুসলিম লীগের কর্মীসম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ এমএলএ,
খয়রাত হোসেন এমএলএ,আনোয়ারা খাতুন এমএলএ,
আব্দুল জব্বর খদ্দর, আব্দুর রশীদ, মওলানা আরিফ চৌধুরী। “মুসলিম” শব্দ যুক্ত হওয়ায় মহম্মদ তোয়াহা ও অলি আহাদ কমিটিতে না থাকার কথা জানিয়ে স্থান ত্যাগ করেন। শেরেবাংলা ও জমিয়তে ওলামা ইসলামের মওলানা শামসুল হক ও মওলানা ইয়াকুব চৌধুরী এ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।

“প্রথম জনসভায়ই হামলা”
কর্মী সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে ২৪ জুন ঢাকার আরমানীটোলা ময়দানে আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রথম জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। চার হাজার মানুষ এতে যোগ দেয়। পুরান ঢাকার মুসলিম লীগের পেটোয়াবাহিনী কুখ্যাত গুন্ডা কালু,

“অফিস স্থাপন”

দুটি চেয়ার, একটি টেবিল,দুটি টুল ও একটা পুরান টাইপ মেশিন নিয়ে আওয়ামী মুসলিম লীগের পথচলা শুরু হয়। ১৯৫০ সালের ১ জানুয়ারি শেখ মুজিব জেল থেকে মুক্তি পেয়ে আওয়ামী মুসলিম লীগকে চাঙ্গা করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। তখনও ভাসানী -শামসুল হক কারাগারে। ৯০ নবাবপুরস্থ ভবনে একটি কক্ষে অফিস স্থাপন করে দলের কার্যক্রম পরিচালনা শুরু করেন তিনি। একটি টেবিল, দুটি টুল ও দুটি চেয়ার ব্যবস্থা করে নিজেই বসে যান শেখ মুজিব। মোহাম্মদ উল্লাহ নামের এক নবীন আইনজীবী স্বেচ্ছায় এসে শেখ মুজিবকে জানান, তিনি দলের হয়ে কাজ করতে চান। এ সময় একটি টাইপ মেশিন ব্যবস্থা করার জন্য সোহরাওয়ার্দীকে বার্তা পাঠান শেখ মুজিব। সোহরাওয়ার্দী ঢাকায় তাঁর এক ভক্তকে বলেও দেন। কথায় কাজ হয়। একটি পুরান টাইপ মেশিন পাওয়া যায়।মোহাম্মদ উল্লাহ বসে বসে দলের প্রেসরিলিজ টাইপ করা শেখেন। কার্যত দপ্তর সম্পাদক বনে যান সেই থেকে। যদিও মোহাম্মদ উল্লাহকে ১৯৫৩ সালের প্রথম কাউন্সিল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় দপ্তর সম্পাদক হিসাবে আনুষ্ঠানিক স্বীকৃতির জন্য। (এই মোহাম্মদ উল্লাহ ১৯৭২ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন। প্রথমে স্পিকার ও ১৯৭৪ সালে তিনি রাষ্ট্রপতি হন। বিশ্বাসঘাতক খন্দকার মোশতাক বঙ্গবন্ধু হত্যার পর রাষ্ট্রপতি হলে পদ মর্যাদানাশ করে উপরাষ্ট্রপতি পদে শপথ নেন। তিনি পরে বিএনপিতে যোগ দিয়ে রাষ্ট্রপতি আব্দুস সাত্তারেরও উপরাষ্ট্রপতি নিযুক্ত হন। কিন্তু তা দুদিনও স্থায়ী হতে পারেনি জেনারেল এরশাদের সামরিক আইন জারীর কারণে। মৃত্যুর আগে তিনি আওয়ামী লীগে ফিরে এসেছিলেন।

যুক্তফ্রন্ট এমএলএ

বিজয়ী প্রার্থীরা
আওয়ামী লীগ আতাউর রহমান খান-ঢাকা, আব্দুস সালাম খান, আবুল মনসুর আহমদ, শেখ মুজিবুর রহমান, হাশিমুদ্দীন আহমেদ, আনোয়ারা খাতুন, আব্দুল খালেক-যশোর, মহিউদ্দীন আহমেদ, ইয়ার মোহাম্মাদ খান, আমেনা বেগম, হাফেজ হাবিবুর রহমান, শামসুল হক, আব্দুল হামিদ মজুমদার, সিরাজুল হক, মোছলেম আলী মোল্লা, জহিরুদ্দীন, তাজউদ্দীন আহমেদ,
আব্দুল হামিদ চৌধুরী, খয়রাত হোসেন, মশিযুর রহমা যাদু মিয়া, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, জসিমুদ্দীন আহমেদ-নীলফামারী, হাতেম আলী খান-টাঙ্গাইল, আবুল হোসেন মিয়া-রংপুর, আজিজুর রহমান খন্দকার-গাইবান্ধা। নঈমুদ্দীন আহমেদ, আব্দুল আওয়াল, খন্দকার মোশতাক আহমেদ, আব্দুর রহমান খান, আব্দুল হামিদ চৌধুরী,
কংগ্রেস
মনোরঞ্জণ ধর, ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত, শরৎ চন্দ্র মজুমদার। গণতন্ত্রী দলঃ
মাহমুদ আলী।
কনভেনশনের বিরোধীতা ও শেরেবাংলার পক্ষ করায় ৯ এমএলএ বহিস্কার মোছলেম আলী মোল্লা, আব্দুস সামাদ আজাদ, আব্দুস সালাম খান,হাশিমুদ্দীন আহমেদ,খন্দকার মোশতাক আহমেদ, আনোয়ারা খাতুন, একেএম জহিরুল হক, মাহফুজুল হক, এমদাদ আলী খান, আমীর আলী খান, আব্দুল আওয়াল, আব্দুল ওয়াহেদ বোফাইনগরী,খালেক নেওয়াওয়াজ খান, আব্দুল হাকিম মিয়া, সৈয়দুজ্জামান মিয়া, আবুল হোসেন, মোঃ আব্দুল্লাহ,আব্দুল করিম,সৈয়দ শরফুদ্দীন হোসেন, আবতাব উদ্দীন আহমেদ, আলমাস আলী, ফজলে হক, এনায়েতুল্লাহ, মোজাম্মেল হোসেন, ইনসান আলী ভুঁইয়া, এম এ হামিদ, মোস্তাগাওসুল হক, আব্দুল হাকিম,
কেএসপি মোট এমএলএ
শেরেবাংলা একে ফজলুল হক, আবু হোসেন সরকার-রংপুর, ইউসুফ আলী চৌধুরী, রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, কফিল উদ্দীন চৌধুরী, আব্দুল লতিফ বিশ্বাস, আব্দুল জব্বার খান, এস এম সোলায়মান, আজিজুল হক নান্না মিয়া, মির্জা আব্দুল হাফিজ,আদেল উদ্দীন আহমেদ, কাজী রোকন উদ্দীন, হায়দার আলী মল্লিক জামালপুর, মুনির হোসেন জাহাঙ্গিরী-মুন্সিগঞ্জ, নাসির উদ্দীন আহমদ-হবিগঞ্জ।
নেজামে ইসলাম
মওলানা আতাহার আলী সৈয়দ মোয়াজ্জেম উদ্দীন হোসেন
গণতন্ত্রী দল মাহমুদ আলী।

গণপরিষদ সদস্য

যুক্তফ্রন্ট শেরেবাংলা আব্দুল ওহাব খান, হামিদুল হক চৌধুরী, ইউসুফ আলী চৌধুরী, আব্দুল লতিফ বিশ্বাস,
আব্দুল আলীম, আব্দুস সাত্তার, নুরুল হক চৌধুরী, মেজবাহ উদ্দীন, লুৎফর রহমান, আদেল উদ্দীন, আব্দুল জব্বার, আব্দুল করিম,মাহফুজুল হক, মাহমুদ আলী (গণতন্ত্রী দল), মওলানা আতাহার আলী (নেজামে ইসলাম) নেজামে ইসলাম সৈয়দ মোয়াজ্জেম উদ্দীন হোসেন মন্ত্রী কিশোরগঞ্জ,স্বতন্ত্রঃ সরদার ফজলুলকরিম, ফজলুর রহমান।
কংগ্রেসঃ বসন্ত কুমার দাস পিটারপল গোমেজ ভূপেন্দ্র দত্ত কান্তিশ্বর বর্মন। তফসিলী ফেডারেশনঃ রসরাজ মন্ডল গৌরচন্দ্র বালা অক্ষয় কুমার দাস
সম্মিলিত প্রগতিশীল দলঃ কামিনী কুমার দত্ত
ডাঃ শৈলেন সেন।

আওয়ামী লীগের গণপরিষদ সদস্যঃ এইচ এস সোহরাওয়ার্দী, আব্দুর রশীদ তর্কবাগীশ, আতাউর রহমান খান, আবুল মনসুর আহমেদ, শেখ মুজিবুর রহমান, মোজাফফর আহমদ, জহিরুদ্দীন, আব্দুর রহমান খান, আব্দুল খালেক, দিলদার আআহমেদ, নুরুর রাহমান, মোছলেম আলী মোল্লা।

” অন্তর্ঘাতমূলক কোন্দল”

১৯৫৪ সালের নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের ব্যানারে ১৪৩টি আসন পেয়ে আওয়ামী মুসলিম লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে। কিন্তু নির্বাচনকালীন ওয়াদা অনুযায়ী মাত্র ৪০টি আসন লাভকারী কৃষক শ্রমিক পার্টির সভাপতি শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হককে পূর্বপাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রীর পদ ছেড়ে দেয় দলটি। অচিরেই যুক্তফ্রন্ট ভেঙ্গে গেলে প্রথমে পূর্বপাকিস্তানে ও পরে রিপাবলিকান পার্টির সঙ্গে কেন্দ্রে আওয়ামী মুসলিম লীগ সরকার গঠন করে। সোহরাওয়ার্দী সারা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হন। পূর্বপাকিস্তানেও আওয়ামী লীগ আতাউর রহমান খানের মুখ্যমন্ত্রীত্বে সরকার গঠন করে। এর আগেই আওয়ামী লীগে ভাঙ্গন দেখা দেয়। আব্দুস সালাম খানের নেতৃত্বে ২৫ জন আইন পরিষদ সদস্য পূর্বপাকিস্তানের গভর্নর শেরেবাংলার যুক্তফ্রন্টকে বাঁচিয়ে রাখেন। আওয়ামী মুসলিম লীগের নামে একটি উপ দল সৃষ্টি করে। কৃষক শ্রমিক পার্টির আবু হোসেন সরকারকে মুখ্যমন্ত্রী মেনে নিয়ে আব্দুস সালাম খান, হাশিমুদ্দীন আহমেদ মন্ত্রী হন। খন্দকার মোশতাক আহমেদ চীফ হুইপ ও খালেক নেওয়াজ খান পার্লামেন্টের সচিব বনে যান। খালেক নেওয়াজ পূর্বপাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগের প্রথম সাধারণ সম্পাদক। ১৯৫৪ নির্বাচনে পূর্বপাকিস্তানের মুখ্যমন্ত্রী নুরুল আমীনের জামানত বাজেয়াপ্ত করে সারা পাকিস্তানের চমকে পরিনত হয়েছিলেন। যুক্তফ্রন্ট ভাঙ্গনের পরিণতি ভয়াবহ ফল বয়ে আনে। পার্লামেন্ট কক্ষে ডেপুটি স্পিকার শাহেদ আলী হামলার মুখে প্রাণ হারান। কেন্দ্রে ও প্রদেশে ষড়যন্ত্রের মুখে আওয়ামী লীগের দেড় বছরের শাসনামলের অবসান ঘটান পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট জেনারেল ইস্কান্দর মীর্জা ও সামরিক জান্তা জেনারেল আইয়ুব খান। সামরিক আইন জারী করে।

“মুসলিম শব্দ পরিহার”

১৯৫৫ সালে ২১-২৩ সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় কাউন্সিলে নিখিল পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের সভাপতি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর “মুসলিম” শব্দ পরিহার সম্পর্কিত প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান।
এ সময় পূর্বপাকিস্তান আওয়ামী মুসলীম লীগের সভাপতি মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী “মুসলিম” শব্দ পরিহারের প্রস্তাবটি সমর্থন করলে কাউন্সিলরা স্বাগত জানান। এভাবেই দলের নাম থেকে মুসলিম শব্দটি লুপ্ত হয়ে যায়।

“দল গঠনের নেপথ্যে”
একটি নতুন রাষ্ট্রকে গড়ে তোলার উপযোগী কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের পরিবর্তে স্বল্পকালের মধ্যেই ক্ষমতাসীন মুসলিম লীগের অভ্যন্তরে নেতারা অন্তর্ঘাতী তৎপরতায় জড়িয়ে পড়েন।
পাকিস্তানের স্রষ্টা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর মৃত্যুর পর তৎপরতা প্রকট হয়ে ওঠে।
১৯৪৯ সালে পশ্চিম পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী মামদোতের খানকে পদচ্যুত করা হলে মুসলিম লীগে দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যরূপধারণ করে। মামদোতের জিন্নাহ মুসলিম লীগ নামে একটি দল গঠন করেন। সিন্ধু ও বেলুচিস্তান প্রদেশেও ঘটে একই ঘটনা। মুখ্যমন্ত্রীদের পদচ্যুত করে মুসলিম লীগ থেকে বহিস্কার করা হয়।
সোহরাওয়ার্দী পাকিস্তানের প্রথম গণপরিষদে মুসলিম লীগের নাম জাতীয়তাবাদী লীগ করণের দাবি করেন। তাতে মুসলিম লীগে চরম অসন্তোষ দেখা দেয়। এবং তাঁকে “ভারতের লেলিয়ে দেয়া কুকুর” বলে অবহিত করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খান।
এই অভিযোগে সোহরাওয়ার্দী গণপরিষদ সদস্য পদ থেকে বহিস্কৃত হন। এরপর তিনি পূর্বপাকিস্তান ফেরার জন্য করাচী হতে স্টিমারযোগে ঢাকায় গমন করার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন এবং নারায়ণগঞ্জ ঘাটে পৌঁছলে তাঁকে গতিরোধ করা হয়। পূর্বপাকিস্তানে তাঁকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলে তিনি আইনের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে আবার করাচীতে ফিরে যান। বলা বাহুল্য যে, আওয়ামী মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠাতা সদস্যরা প্রত্যেকেই পাকিস্তানের স্বাধীনতা আন্দোলনের অগ্রসেনানী। ভারত বিভাগকালে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীই ছিলেন বঙ্গীয় মুসলিম লীগের মূল কান্ডারী। তথা বাংলার প্রধানমন্ত্রী হিসাবে তিনিই মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর নেতৃত্বাধীন নিখিল ভারত মুসলিম লীগের দিল্লী কনভেনশনে “পাকিস্তান প্রস্তাব” উত্থাপন করেন এবং তা সর্বসম্মতি ক্রমে পাস হয়।
শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের লাহোর প্রস্তাব থেকে একাধিক রাষ্ট্রগঠনের প্রস্তাব সংশোধন করে কেবল মাত্র সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের প্রদেশগুলোর সমন্বয়ে একটি রাষ্ট্র “পাকিস্তান” প্রতিষ্ঠার পক্ষে প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়। মুসলিম লীগের “ডাইরেক্ট এ্যাকশন ডে” ঘোষণার ফলে বিভিন্ন প্রদেশে হিন্দু-মুসলিম দাঙ্গা ছড়িয়ে পড়ে।
বাংলার প্রধানমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর বিরুদ্ধে ওই সময় হিন্দু নিধনের অভিযোগ আনা হয় এবং তিনি মুসলমানদের পক্ষে দাঙ্গায় উস্কানী দিয়েছেন মর্মে অভিযোগ তোলা হয়। কেন্দ্রীয় কংগ্রেস ও হিন্দু মহাসভা ও শিবসেনা সংঘ নামের হিন্দুত্ববাদী দলগুলো এতে সায় দেয়। ফলে সোহরাওয়ার্দী ও বঙ্গীয় কংগ্রেস কর্ণধার শরৎচন্দ্র বসুর “বৃহত্তম স্বাধীনবাংলা” বা “স্বাধীন যুক্তবাংলা” প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব ভেস্তে যায়।
ভারত অন্তর্বতীকালীন সরকারের স্বরাষ্ট্রমমন্ত্রী বল্লভভাই প্যাটেলের বিরুদ্ধবাদিতা ও অর্থমন্ত্রী মুসলিম লীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী খানের ষড়যন্ত্রের কারণে স্বাধীন তৃতীয় রাষ্ট্র “অবিভক্ত বাংলা” প্রতিষ্ঠা সম্ভবপর হয়নি। বিশেষ করে ১৯৪৬ নির্বাচনে পটুয়াখালী আসনে বাংলার প্রথম প্রধানমন্ত্রী কৃষক প্রজা পার্টির প্রধান শেরেবাংলার কাছে বাংলার দ্বিতীয়তম প্রধানমন্ত্রী মুসলিম লীগ প্রার্থী খাজা নাজিমুদ্দিন পরাজিত হয়ে রাজনীতি থেকেই অবসর গ্রহণ করে লন্ডনে পাড়ি জমান। কিন্তু বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী এটলি ১৯৪৮ সালের আগস্টের মধ্যে ভারতের ক্ষমতা ভারতীয়দের কাছে হসান্তরের জন্য ভাইসরয় মাউন্ট ব্যাটেনকে ভাইসরয় নিয়োগ করে পাঠালে রাজনীতির নানা মেরুকরণের শুরু হয়। মুসলিম লীগ ও কংগ্রেস উভয়ে মন্ত্রিমিশন প্রস্তাবের আলোকে অন্তবর্তীকালীন সরকার গঠন করে বৃটিশ রাজের বিদায় ঘন্টি বাজালেও জাতীয় বাজেটকে কেন্দ্র করে সংকটের মুখে পড়ে। প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরুর উক্তিকে কেন্দ্র করে কংগ্রেসের সঙ্গে মুসলিম লীগের সম্পর্কতিক্ত হয়ে ওঠে। পন্ডিত নেহেরু প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বগ্রহণের পরপরই বলেন,”মন্ত্রিমিশন প্রস্তাবে যা কিছু থাকুক না কেন, কংগ্রেস চাইলে তা সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে পরিবর্তন করবে।” এরপর পরই মুসলিম লীগ প্রধান মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ গর্জে ওঠেন। বাজেটে বরাদ্ধ ও অর্থ মঞ্জুর নিয়ে অর্থমন্ত্রী লিয়ালত আলী খানের সঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বল্লভভাই প্যাটেলের মধ্যে তুমুল দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হলে সরকার ভাঙ্গনের মুখে পড়ে। মুসলিম লীগ সেই পুরান দাবি “পাকিস্তান” ইস্যু আবারও সামনে নিয়ে আসে।
ফলশ্রুতিতে মাউন্ট ব্যাটেনের মধ্যস্ততায় একটি টেবিলে বসে মুসলিম লীগ ও কংগ্রেস নেতারা। এভাবেই নির্ধারিত সময়ের এক বছর আগেই ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট ভারতবর্ষে স্বাধীন পাকিস্তানের অভ্যুদয় ঘটিয়ে বাকী অংশকে পরের দিন ১৫ আগস্ট স্বাধীন ভারত বলে ঘোষণা করা হয়। ভারতের মোট ১১টি প্রদেশের মধ্য বাংলা সর্ববৃহৎ প্রদেশ হলেও বাংলার নেতারা মুসলিম লীগের ফাঁদে পড়ে নিঃশেষিত হওয়ার জন্য নিজেরাই নিজেদের কল্যাণের নামে “স্বাধীনতার স্বপ্ন”-কে জলাঞ্জলী দিয়ে অকল্যাণ ডেকে আনে। মুসলিম লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও এককালীন নিখিল ভারত মুসলিম লীগেরও সভাপতি শেরেবাংলা ফজলুল হক ছিলেন, ১৯৪০ সালের লাহোর প্রস্তাবক। যার ভিত্তিতে পাকিস্তান হাসিল করা হয়।
অথচ, সেই শেরেবাংলাকে “আজীবন বহিস্কার” করা হয় মুসলিম লীগ থেকে। বাংলার অবিসংবাদী নেতা শেরেবাংলা ও সোহরাওয়ার্দী। তাঁরা একসময় বঙ্গীয় মুসলিম লীগের যথাক্রমে সভাপতি সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন। মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠার ১৩ বছর পর কংগ্রেস ত্যাগ করে জিন্নাহ মুসলিম লীগ যোগ দিলে শেরেবাংলা কোনঠাসা হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে তিনি মুসলিম লীগ থেকে বহিস্কৃত হয়ে কৃষক প্রজা পার্টি গঠন করেন এবং নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসাবে আত্মপ্রকাশ করলে কংগ্রেস ঠেকানোর স্বার্থে মুসলিম লীগ শেরেবাংলার ওপর থেকে বহিস্কারাদেশ প্রত্যাহার করেন এবং মুসলিম লীগের নামেই নিজে প্রধানমন্ত্রী হয়ে বাংলায় সরকার গঠন করেন। তাঁর সরকারে মুসলিম লীগ নেতা হিসাবে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও খাজা নাজিমুদ্দিন উভয় মন্ত্রী হিসাবে ছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নীতিগত বিরোধে জড়িয়ে পড়ে শেরেবাংলার অনাস্থার সম্মুখীন হন। প্রধানমন্ত্রীত্ব হারান। চলে যায় নিখিল বঙ্গ মুসলিম লীগের সভাপতির পদও। শেরেবাংলা আাবারও প্রধানমন্ত্রী হন কংগ্রেস নেতা শ্যামা প্রসাদ মুখার্জীর সঙ্গে কোয়ালিশন সরকার গঠন করে। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। সমর্থন প্রত্যাহার হলে পতন ঘটে। প্রধানমন্ত্রী হন খাজা নাজিমুদ্দিন। তাঁর শাসনামলে বাংলায় খাদ্যাভাবে ৫০ লাখ লোক মারা যায়। অপরদিকে ১৭৭৬ সালে ইংরেজ শাসনামলে মহাদুর্ভিক্ষে বাংলার মোট জনসংখ্যা চার কোটির মধ্যে পৌনে দুই কোটিই মারা যায়।

“আওয়ামী লীগের জন্মের ঐতিহাসিক প্রেক্ষিত”

আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠার দিন ২৩ জুন হওয়ার নেপথ্যেও বড় একটা ট্রাজেডি রয়েছে। রয়েছে ঐতিহাসিক প্রেক্ষিত। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন বিশ্বাসঘাতকতামূলক পলাশী যুদ্ধে ইংরেজদের কাছে বাংলার নবাব সিরাজদ্দৌলার পতন ঘটে। বাংলার মানুষ ইংরেজদের স্বাগতও জানায়। প্রধান সেনাপতি মীর জাফর আলী খানের পুত্র মিরন ও মোহাম্মদী বেগের হাতে নবাব সিরাজদ্দৌলা নিহত হবার পর তাঁর মস্তকবিহীন মরদেহ হাতির পিঠে বেঁধে নিয়ে আসা হয় রাজধানী মুর্শিদাবাদে। অন্ধত্ববাদ কাকে বলে বাংলার মানুষেরা তা ইংরেজদের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়েছিল। লর্ড ক্লাইভ যখন হাতে ধরে পুরস্কার স্বরূপ মীর জাফরকে বাংলার সিংহাসনে বসিয়ে দিচ্ছিলেন, তখন হাতির পিঠে বাঁধা সিরাজদ্দৌলার মস্তকবিহীন মরদেহ মুর্শিদাবাদ নগরীর অলি গলি প্রদক্ষিণ করে চলছিল। সাধারণ মানুষও করতালি দিয়ে ইংরেজদের অভিনন্দিত করছিল।
লর্ড ক্লাইভ নিজেই স্বীকার করে বলেন, মুর্শিবাদবাসী যদি তাইতো আমাদের ইংরেজদের কচুকাটা করতে, তবে কারো বাঁচার সুযোগ ছিলনা। অথচ,বেকুবের ন্যায় তারা আমাদের ক্ষমতাগ্রহণের উৎসবে করতালি দিয়ে যোগ দিল।”
বাংলার মানুষকে এ জন্য চরম মূল্য দিতে হয় শুরু থেকেই। ট্রাজেডির ১৯ বছরের ব্যবধানে ১৭৭৬ সালের মহাদুর্ভিক্ষের মুখে পড়ে বাংলার মানুষ। ইংরেজ সৃষ্ট দুর্ভিক্ষ। বাংলার মোট জনসংখ্যার ৪ কোটির মধ্যে এক তৃতীয়াংশই মারা যায়। ওই ছিয়াত্তরের মনন্তর বলে বিবেচিত ওই দুর্ভিক্ষে মানুষ মানুষের মাংস খেয়েছে। আহার না পেয়ে মানুষ বীজ ধান, গাছ, পাতা, ঘাঁস খেয়ে মানুষ বাঁচতে চেয়েছে। মা তাঁর নিজের সম্ভ্রম বিক্রি করেছে প্রথমে পরে পেটের সন্তানও বিক্রি করে আহার যোগানোর নিস্ফল চেষ্টা করে শেষে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে।
শিয়াল কুকুর শকুনের দলও মরা মানুষ খেয়ে খেয়ে লাশ হ্রাস করতে পারেনি। রোগেভোগে জল বসন্তে বহু লোক অন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ১৪৬ বছর মানুষ বিশ্বাস করতো মীর জাফরই দেশপ্রেমিক। সিরাজদ্দৌলাহ লোভী, লম্পট, চরিত্রহীন, ভীরু কাপুরুষ ও অদক্ষ এক শাসক। অক্ষয় কুমার মিত্রের পলাশী নামক কবিতা সেই সাক্ষীই দেয়। আরেক হিন্দু লেখক নবাব সিরাজদ্দৌলা নাটক লেখার পর থেকে মানুষের হুশ ফিরে আসে। বিশ্বাস করতে শুরু করে যে, নবাব দেশপ্রেমিক, সুশাসক ছিলেন।
রাজ প্রাসাদ ষড়যন্ত্র, অসৎ ব্যবসায়ী চক্র ও প্রধান সেনাপতি মীর জাফর গং এর বিশ্বাসঘাতকতার কারণেই বাংলার স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়ে যায়। নবাবকে জীবন দিতে হয় পলাশীর আম্রকাননে পাতানো যুদ্ধ পরাজয়ের মধ্য দিয়ে। ইতিহাসের তিক্ততার ভিড়েও প্রথম হুশ এসেছিল মীর জাফর অচিরেই সিংহাসনচ্যুত হন। তার জামাতা মীর কাশেম আলী খানকে ইংরেজরা বাংলার সিংহাসনে বসান। কিন্তু মীর কাশেম শোষণ পীড়ণ সহ্য করতে না পেরে ইংরেজদের বিভিন্ন কুঠিতে আক্রমণ করেন। খাজনা দেয়া বন্ধ করে দেন। যুদ্ধ করতে করতে মৃর্তুবরণ করেন।
ভারতবর্ষের ইতিহাসে ইংরেজদের বিরুদ্ধে প্রথম স্বাধীনতা সংগ্রামের সশস্ত্র বীর মীর কাশেম। সেই থেকে ভারতবর্ষে তথা বাংলায় শুরু হয় স্বাধীনতার লড়াই।
ইংরেজরা একে একে গোটা ভারতবর্ষ জয় করে মুসলিম শাসনের অবসান ঘটায়। যে শাসন শোষণ চলে ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত। ইংরেজরা বাংলা বিজয়ের মধ্য দিয়েই ক্রমান্বয়ে গোটস ভারতবর্ষে প্রথমে ইংরেজ কোম্পানী শাসন ও ১৮৮৫ সাল থেকে সরাসরি ব্রিটিশ ওপোনিবেশিক শাসন শোষণ চালু করেছিল। পর্তুগিজ, আফগানীরা, ফরাসীরা এদেশ দখলের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়। কিন্তু ইংরেজরা সফল হয়। ১৮৮৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রাজুয়েট ডিগ্রীধারীদের দিয়ে গড়া ভারতের প্রথম রাজনৈতিক দল জাতীয় কংগ্রেসের প্রতিষ্ঠাতাও একজন ইংরেজ রাজকর্মচারী অ্যালান অক্টোভিয়াম হিউম। অবশ্য প্রথম সভাপতি বাঙালী উমেশ ব্যানার্জী। আবার ১৯০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর প্রতিষ্ঠিত নিখিল ভারত মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠার নেপথ্য ইন্ধনদাতা ইংরেজ ভাইসরয় লর্ড কার্জন। ঢাকার অবাঙ্গালী নবাব স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম লীগ গঠনের মূল উদ্যোক্তা হলেও সর্বভারতীয় মুসলিম লীগের সভাপতির পদটি অলঙ্কৃত করেন মহামান্য আগা খান।
কংগ্রেস ও মুসলিম লীগ গঠনের উদ্দেশ্য ছিল ইংরেজদের শাসন ক্ষমতার প্রতি জনমত সংঘটন। কিন্তু ধীরে ধীরে তা ইংরেজ বিরোধী দলে পরিণত হয়।
ইংরেজরা বাংলা থেকে তার বিজয় যাত্রা সূচনা করলেও বাঙালীদের ওপর নানা কারণে বিক্ষুব্ধ ছিল। ভারতের ও বাংলার উভয়ের রাজধানী ছিল কলকাতা। ফলে ইংরেজবিরোধী সব যুদ্ধ বিগ্রহ, দ্রোহ-বিদ্রোহের নেতৃত্ব ও এর সূত্রপাত কলকাতা সংশ্লিষ্ট ছিল।
বঙ্গভঙ্গ করে বাংলা দ্বিখন্ডিতকরণের নেপথ্যেও ছিল বাংলায় সংঘটিত অসংখ্য কৃষক বিদ্রোহ, নীলচাষ বিদ্রোহসহ ১৮৫৭ সালের সিপাহীবিদ্রোহ। বঙ্গভঙ্গ রদ করতে বাধ্য হলেও ১৯১১ সালে ব্রিটিশ পঞ্চম জর্জ দিল্লীর দরবার হলে রাজ্যাভিষেক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের পাসকৃত আইন অনুযায়ী বঙ্গভঙ্গ রদ ঘোষণা করেন। ফলে দুই বাংলা আবার একত্রিত হয়। কিন্তু বাংলার জন্য বড় একটা সর্বনাশ করে যান, ভারতের রাজধানী কলকাতা থেকে দিল্লীতে স্থানান্তরিত করে। সেই থেকে কলকাতার গুরুত্ব হ্রাস পেতে থাকে।
নেতাজী সুভাষচন্দ্র বসুর মতো সর্বভারতীয় কংগ্রেস সভাপতিকে যেমন কংগ্রেস ত্যাগ করতে হয় অবাঙালীদের দৌরাত্ম্যে, ঠিক তেমনি শেরেবাংলার মতো সর্বভারতীয় মুসলিম লীগের সভাপতিকে মুসলিম লীগ থেকে বিতাড়িত হতে হয় অবাঙালীদের দৌরাত্ম্যে। একসময় আসাম, ত্রিপুরা শুধু নয়, মুসলিম শাসনামলে মধ্য প্রদেশও সুবে বাংলার অঅন্তর্ভুক্ত ছিল। শাসন পরিচালনার অজুহাতে একেক করে বাংলা থেকে ওগুলোকে প্রদেশ বানিয়ে বিচ্ছিন্ন করা হয়।
সর্বশেষ যখন বাংলা আসাম, ত্রিপুরা নিয়ে বৃহত্তম বাংলা স্বাধীনতার কথা বলে তখনও ইংরেজরা আরেকটি মধুর প্রতিশোধ গ্রহণ করে। বাংলাকে আবার খন্ড করে।
ভারতের মধ্যে আসাম, ত্রিপুরা আর বাংলার পশ্চিমাংশে পশ্চিম বাংলা আর পাকিস্তানের ভেতরে পূর্বাঞ্চল মানে পূর্ববাংলা ফেলে ভারত ত্যাগ করে ইংরেজরা।
কলকাতা ন্যায়সঙ্গত পূর্ববাংলার ভাগে পড়ার কথা হলেও অবাঙালী খাজা নাজিমুদ্দিনের যোগসাজশে তা পশ্চিমবাংলার রাজধানী হিসাবে থেকে যায়।
বাউন্ডারি কমিশনের মধ্যস্ততায় কলকাতার আশা ছাড়া হয়। ক্ষতিপূরণ হিসাবে মাত্র তিন কোটি টাকা পায় পূর্ববাংলা। কলকাতার রাজনীতিতে সোহরাওয়ার্দীর আধিপাত্য থাকলে বাংলার ক্ষমতা সোহরাওয়ার্দীর হাতের মুঠোয় থেকে যাবে এমন আশঙ্কায় ঢাকার খাজা নাজিমুদ্দিন কলকাতা ছেড়ে দেয়ার নেপথ্যে কলকাঠি নাড়েন। পূর্ববাংলার রাজধানী তাহলে কলকাতাই হতো।
খাজা নাজিমুদ্দিন ঢাকা রাজধানী হলে তার প্রতিপত্তি বাড়বে এমন ধারণা থেকে কলকাতা হারান। মুসলিম লীগ খাজা নাজিমুদ্দিনকে পূর্ববাংলার মুখ্যমন্ত্রী করার পেছনে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী লিয়াকত আলী খানের কারসাজি ছিল।মুসলিম লীগের সভাপতি পদে মওলানা আকরম খানের আসীন করার পেছনেও তার ভুমিকা ছিল। শেরেবাংলা কলকাতা রক্ষার আন্দোলনে যোগদান করে আবার হতাশ হয়ে ঢাকায় ফেরেন। এবং দুঃখজনকভাবে পাকিস্তানের এটর্নি জেনারেল পদে নিয়োগপ্রাপ্ত হয়ে সমালোচিত হন।

লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট।

সম্পাদক স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল এসটিভি বাংলা

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :