বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

আগৈলঝাড়ার দুঃস্থ মানবতার হাসপাতালে অপ-চিকিৎসায় নবজাতকের মৃত্যু

শামীম আহমেদ :: বরিশাল জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলার বে-সরকারী দুঃস্থ মানবতার হাসপাতালের নার্সদের অপ-চিকিৎসায় এক নবজাতকের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় আগৈলঝাড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে নিহত নবজাতকের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার তালতার মাঠ গ্রামের ইলেকট্রিক মিস্ত্রী রহিম সরদারের স্ত্রী ইয়াসমিনের (২০) প্রসব বেদনা শুরু হলে রবিবার সকালে তাকে আগৈলঝাড়া সদরের বেসরকারী দুঃস্থ মানবতার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। হাসপাতালে প্রসূতি ইয়াসমিনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে নরমাল ডেলিভারির করানোর কথা বলেন চিকিৎসকেরা।

নিহত নবজাতকের মা ইয়াসমিন আক্তার জানান, চিকিৎসকের কথামত ওই দিন সকালেই তাকে হাসপাতালের ডেলিভারী কক্ষে নেয়া হয়। সেখানে কোন চিকিৎসক না থাকায় হাসপাতালের নার্স ও আয়া-বুয়া মিলে জোর করে তার (ইয়াসমিনের) নরমাল ডেলিভারির চেষ্টা করেন। ডেলিভারিতে দেরী হওয়ায় চারজন নার্স ও একজন আয়া প্রসূতি ইয়াসমিনকে চেপে ধরে জোর করে বাচ্চা ডেলিভারি করান। ডেলিভারির পর জানতে পারেন তার (ইয়াসমিন) একটি পুত্র সন্তান হয়েছে। যার ওজন তিন কেজি ৮শ গ্রাম।
তিনি আরও জানান, সন্তান প্রসবের পরপরই নবজাতকের অবস্থা সংকটাপন্ন জানিয়ে নার্সরা নবজাতককে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয়। পরবর্তীতে ওই হাসপাতালের এ্যাম্বুলেন্সযোগে দ্রুত বাচ্চা নিয়ে শেবাচিম হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক নবজাতক শিশুকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। উল্লেখ্য, এরপূর্বেও আগৈলঝাড়া উপজেলার দুঃস্থ মানবতার হাসপাতাল নামের বেসরকারী ওই হাসপাতালের ডাক্তার-নার্সদের বিরুদ্ধে রোগীদের অপ-চিকিৎসা দেয়ার বিস্তর অভিযোগ রয়েছে।

ওই হাসপাতালের ম্যানেজার মনির মাহমুদ জানান, বাচ্চা ডেলিভারির সময় আমি হাসপাতালে ছিলাম না।
তিনি আরও জানান, ওইদিন আরো দুইটা নরমাল ডেলিভারী হয়েছে। এরমধ্যে একটি বাচ্চা সুস্থ অবস্থায় বাড়ি চলে গেছে। অন্য একটি বাচ্চা অসুস্থ হয়ে পরলে চিকিৎসকরা তাকে বরিশালে নেয়ার পরামর্শ দেন।

এবিষয়ে আগৈলঝাড়া থানার ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম জানান, নবজাতকের মৃত্যুর ঘটনায় ইয়াসমিনের ভাই আতিক হাওলাদার বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনা তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :