বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

আজ ভাষা সৈনিক এ.কে মোহম্মদ হোসেন মিয়ার ২২ তম মৃত্যুবার্ষিকী

নিজস্ব প্রতিবেদক :: আজ ২৮ শে ডিসেম্বর ভাষা সৈনিক, মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, বীর মুক্তিযোদ্ধা,আমৃত্যু সংগ্রামী, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ, হিজলা উপজেলা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মহান নেতা এ.কে মোহম্মদ হোসেন মিয়ার ২২ তম মৃত্যুবার্ষিকী।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক এই নেতা ১৯২৮ সালের ১০ এপ্রিল হিজলা উপজেলার,গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের, পত্তনী ভাঙ্গা গ্রামের এক মুসলিম সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা হাজী মফিজুউদ্দিন মিয়া ও মাতা জাবেদা খাতুনের বড় ছেলে তিনি। ছাত্র জীবনে থাকা অবস্থায়ই তার রাজনৈতিক জীবন শুরু হয় যা ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণের মধ্যেই তার রাজনৈতিক জীবনের পরিপূর্ণ সূত্রপাত হয়। পরবর্তীতে তিনি বাংলার স্বাধীনতা ও মুক্তিকামী সকল আন্দোলন-সংগ্রামে সক্রিয় ভাবে অংশ গ্রহণ করেন ও নেতৃত্ব দেন।

স্বাধীনতার মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের ডাকে সারা দিয়ে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। তিনি মুক্তি বাহিনীকে নেতৃত্ব দিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে সম্মুখ যুদ্ধের নেতৃত্ব দেন এবং জয় লাভ করেন। ভারত থেকে মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ নিয়ে স্বদেশে এসে দেশকে শত্রুমুক্ত করতে জীবন বাজি রেখে মরণপণ যুদ্ধ করে গেছেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের নেতৃত্বে দানকারী সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর হিজলা উপজেলা শাখার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি। স্বাধীনতা যুদ্ধের পূর্বে, যুদ্ধচলাকালীন সময় ও পরবর্তী সময়ে তিনি উপজেলা আওয়ামিলীগের সভাপতি ও নেতৃত্বে ছিলেন।

ভাষা আন্দোলনে তার অবদান সরুপ- ২১শে ফেব্রুয়ারি ‘আন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস’-২০১৭ হিজলা উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে (মরণোত্তর ) সম্মাননা প্রদান করা হয়। বর্ণাঢ্য ও বীরত্বপূর্ণ রাজনৈতিক জীবনের পাশাপাশি, ‘শিক্ষিত জাতি গঠনের লক্ষ্যে’ পেশা হিসেবে শিক্ষকতার মহান পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করেন।তিনি হিজলা উপজেলার মাউলতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় আমরণ শিক্ষকতা করেন। আদর্শিক শিক্ষক হিসেবে সর্বত্র খ্যাতি অর্জন করেন।

এই মহান ব্যক্তিত্ব ১৯৯৮ সালের ২৮ শে ডিসেম্বর পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। ইন্তেকালের পর তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি ছয় পুত্র ও ছয় কন্যার জনক।

২২ তম মৃত্যু বার্ষিকীতে তার রূহে মাকফেরাত কামনা করে দিনব্যাপী- ‘ভাষা সৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা স্যার এ. কে মোহাম্মদ হোসেন মিয়া স্মৃতি সংসদ’ আয়োজিত বিশেষ দোয়া, কবর জিয়ারত ও পবিত্র ৩০ পারা কোরআন শরীফ খতম করা সহ দরিদ্র ও শীতার্ত মানুষের জন্য শীত বস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন।

তাঁর নাতী প্রিন্স সাহেদ রিয়াদ দাদার মৃত্যু বার্ষিকীতে দেশবাসীর কাছে দোয়া কামনা করে বলেন, মহান আল্লাহ নিকট প্রার্থনা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানকে আল্লাহ জান্নাত দান করুন।’

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :