বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

আবিদ ইসলামিয়া ল্যাবে নামিদামি ডাক্তারদের সাইনবোর্ড লাগিয়ে চলছে প্রতারণা

শিকদার মাহাবুব :: বরিশাল নগরীর বান্দ রোডে আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে নামিদামি ডাক্তারদের সাইনবোর্ড লাগিয়ে প্রতারণা করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এখানে আসা রোগী ও তাদের স্বজনরা চিকিৎসা সেবা নিতে এসে সর্বস্ব হারিয়েছেন। রোগী ও তাদের স্বজনদের প্রতারণার ফাতে ফেলছেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান ডা: হুমায়ুন কবির নিজে।

অভিযোগ রয়েছে- আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারের মালিক ডাক্তার মোঃ হুমায়ুন কবির সরকারি নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে নিজের নামের সাইনবোর্ডসহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবামেক) হাসপাতালের বিভিন্ন নামিদামি ডাক্তারদের সাইনবোর্ড লাগিয়ে রোগী ও তাদের স্বজনদের সাথে প্রতারণা করছে। এসব প্রতারণায় নেওয়া হচ্ছে ভিন্ন কৌশল। শেবামেক হাসপাতালের কার্ডিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা: সালেহ্ উদ্দীনের সাইনবোর্ড লাগিয়ে ও নাম ব্যবহার করছে আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টার।ডাঃ সালেহ উদ্দিনকে দেখানোর কথা বলে সরকারী হাসপাতাল থেকে রোগী ভাগিয়ে নেওয়া হয় ওই ল্যাবে। ওই ল্যাবে রোগী ভাগিয়ে নেওয়ার পর বলা হয় ডা: সালেহ্ উদ্দীন ঢাকায় অবস্থান করছেন। পরে ভাগিয়ে নেওয়া রোগীদের ডা: হুমায়ুন কবির কর্তৃক চিকিৎসা নিতে বাধ্য করা হয়। সম্প্রতি সাদিয়া আফরিন নামে এক কিশোরী এখানে চিকিৎসা সেবা নিতে এসে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এমনটাই জানিয়েছেন ভূক্তভোগী সাদিয়া।

সাদিয়া আফরিন বলেন,‘সাইনবোর্ডে নাম লেখা দেখে আমি নিজেই ডা: সালেহ্ উদ্দীনের কাছে চিকিৎসা সেবা নেওয়ার জন্য এসেছিলাম।কিন্তু আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে গিয়ে শুনি ডা: সালেহ্ উদ্দীন ঢাকায় রয়েছেন। পরে ডা: হুমায়ুন কবিরের চিকিৎসা গ্রহন করি। কিন্তু তার চিকিৎসায় আমার রোগ ভাল হয়নি। উল্টো আমার অসুস্থতা আগের তুলনায় আরও বেড়েছে।

অন্যদিকে ডাঃ সালেহ্ উদ্দীন জানান, ‘আমার নামে আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে সাইনবোর্ড লাগানো হয়েছে, এটা আমার জানা নেই’। এছাড়াও ডাঃ গোলাম সারোয়ার, ডাঃ মানবেন্দ্র দাস ও নুরে আলমসহ একাধিক ডাক্তারের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে রোগীদের সাথে প্রতারণা করা হচ্ছে। ফলে রোগীরা পড়ছে বিপাকে। এসব নামিদামী ডাক্তারের কথা বলে রোগীদের কাছ থেকে ৮শ থেকে ১ হাজার টাকা ফি হাতিয়ে নিচ্ছেন ডা: হুমায়ুন কবির।

অভিযোগ রয়েছে- শেবামেক হাসপাতালে ডিউটি চলাকালীন সময়ে ডা: হুমায়ুন কবির আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে রোগী দেখেন। ডা: হুমায়ুন কবির সকালে শেবামেক হাসপাতাল সংলগ্ন আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে ও রাতে রুপাতলীর আব্দুল্লাহ হাসপাতালে গলা কাটা ফি নিয়ে রোগী দেখছেন।

মুঠোফোনে কথা হলে আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে চেয়ারম্যান ডা: হুমায়ুন কবির বলেন,‘ সাইনবোর্ডে লেখা সকল ডাক্তারই আবিদ ইসলামিয়া মেডিকেল সার্ভিসেস সেন্টারে চিকিৎসা দেন। আর আমি কর্মস্থল ছেড়ে ল্যাবে রোগী দেখি এটা বানোয়াট কথা’।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :