বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

আমতলীতে গৃহবধূকে পিটিয়ে তালাবদ্ধ করে রাখলো স্বামী : ‘৯৯৯’এ ফোনে উদ্ধার

রেজাউল করিম, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি :: বরগুনার আমতলীর গুলিশাখালী গ্রামে ৩ লক্ষ টাকা যৌতুকের জন্য লিজা বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূকে দু’দফা নির্যাতনের করে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ‘৯৯৯’ থেকে ফোন পেয়ে আমতলী থানার পুলিশ গুরুতর আহত ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে মঙ্গলবার বিকেলে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করেছে।

নির্যাতিত ওই গৃহবধূ ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আঠারগাছিয়া গ্রামের মিলন তালুকদারের মেয়ে লিজা বেগমরে সাথে গুলিশাখালী ইউনিয়নের গুলিশাখালী গ্রামের মানিক গাজীর ছেলে নান্নু গাজীর সাথে ২০১৭ সারের ৫ জানুয়ারি বিয়ে হয়। বিয়ের সময় লিজার বাবা মিলন তালুকদার মেয়ের সুখের কথা চিন্তা করে ১ ভরি স্বর্নের কানের দুল, গলার চেইন ও জামাই নান্নু গাজীকে গলার চেইনসহ সংসার সাজানোর জন্য প্রায় ২ লক্ষ টাকার মালামাল কিনে দেন। যৌতুক লোভী স্বামী নান্নু গাজী লিজার বাবার বাড়ী থেকে ব্যবসার জন্য প্রায়ই টাকা এনে দিতে বলত। লিজাও সাধ্যমত বাবার নিকট থেকে টাকা এনে দিত। স্বামীর চাহিদা মত টাকা এনে না দিলেই স্ত্রী লিজার উপর চলত নির্যাতন। শনিবার সকালে স্বামী নান্নু গাজী স্ত্রী লিজা বেগমকে তার বাবার বাড়ী থেকে ৩ লক্ষ টাকা যৌতুক এনে দিতে বলেন। লিজা বাবার বাড়ি থেকে এত টাকা এনে দিতে অস্বীকার করলে স্বামী নান্নু গাজী মেহগিনি গাছের ডাল দিয়ে মারধর করে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন। মারধরে সহায়তা করেন নান্নুর বাবা মানিক গাজী, ভাসুর শাহীন গাজী ও মোখলেছ গাজী। যৌতুকের টাকা এনে না দেওয়া মঙ্গলবার সকালে স্বামী নান্নু গাজী শ্বশুর মানিক গাজী, ভাসুর শাহীন গাজী ও মোখলেছ গাজী মেহগিনি গাছের ডাল দিয়ে দ্বিতীয় দফা পিটিয়ে রক্তাত্ব জখম করে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন। লিজার বাবা মেয়েকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করে ঘরে তালবদ্ধ করে রাখার খবর পেয়ে মঙ্গলবার দুপুরে ‘৯৯৯’ ফোন করেন। সেখান থেকে আমতলী থানাকে জানালে আমতলী থানার এসআই ইমাম হোসেন গুলিশাখালী গ্রামের নান্নু গাজীর ঘর থেকে গৃহবধূ লিজাকে গুরুতর আহত অবস্থায় মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪ টার সময় উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে এনে ভর্তি করেন। আমতলী থানার এসআই ইমাম হোসেন জানান, গুরুতর আহত অবস্থায় গৃহবধূ লিজা বেগমকে উদ্ধার করে আমতলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অভিযুক্ত নান্নু গাজী বলেন, যৌতুকের জন্য নয় পারিবারিক কলহের জন্য মারধর করেছি। নান্নু গাজীর বাবা মানিক গাজী বলেন, ছেলের বউ কথা শোনে না তাই মারধর করেছি।

গৃহবধূ লিজার বাবা মিলন তালুকদার জানান, যৌতুকের জন্য নান্নু গাজী শ্বশুর মানিক গাজী, ভাসুর শাহীন গাজী ও মোখলেছ গাজী প্রায়ই আমার মেয়েকে মারধর করত। তারা দুধর্ষ প্রকৃতির লোক। তারা আমার মেয়ের নিকট ৩ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করে। টাকা না দেওয়ায় গত শনিবার এবং মঙ্গলবার মেহ গিনি গাছের ডাল দিয়ে দু’দফা পিটিয়ে রক্তাত্ব জখম করে ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখে। ভয়ে আমি ওই বাড়িতে মেয়েকে উদ্ধারের জন্য জাইনি। তাই ‘৯৯৯’ ফোন দিয়েছি। আমি এঘটনার বিচার চাই।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা একেএম মিজানুর রহমান জানান, ‘৯৯৯’ থেকে ফোন পেয়ে গুলিশাখালী গ্রামে পুলিশ পাঠিয়ে নির্যাতিত গৃহবধূ লিজা বেগমকে উদ্ধার করে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp