বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – আমাদের নগর কাণ্ডারী তোষামদকারীদের থেকে সাবধান!
প্রকাশিতঃ May 09, 2019 1:13 AM
A- A A+ Print

আমাদের নগর কাণ্ডারী তোষামদকারীদের থেকে সাবধান!

অনলাইন ডেস্ক :: আমাদের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। তিনি আমদের নগরের কাণ্ডারী। নগর উন্নয়নে তিনি চেষ্টা করছেন। সূর্য ওঠার আগেই নগর পরিচ্ছন্ন হচ্ছে এখন। পরিচ্ছন্ন হয়েছে নগরের সমস্ত ড্রেন। অবৈধ পথে যারা আয় করার চেষ্টা করছেন তাাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছেন তিনি। নগর ভবনে অতিরিক্ত ব্যয় বন্ধ হয়েছে। অবসরে যাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমস্ত পাওনা পরিশোধ করেছেন। তাঁর এই চেষ্টার সঙ্গে নগরবাসী আছে এবং থাকবে।

এতো এতো অর্জনের পরও আমরা তৃপ্ত হতে পারছি না। আমরা আমাদের মেয়রের কাছে সুখ-দুঃখের কথা বলতে চাই। কিন্তু সেই কথা বলতে অনেক সময়ই তার কাছে যেতে পারছি না। কেউ কেউ মেয়রের চারপাশে প্রাচীর তুলে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কোথায় যেন একটা দূরত্ব তৈরি হচ্ছে। কেউ যেন নগরবাসীর সঙ্গে মেয়রের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে ওঠার পথে বাধসাধছেন। এই বাধা মেয়রকেই অতিক্রম করতে হবে।

মাননীয় মেয়র, আপনি নগরের সমস্যা সমাধানে আন্তরিক এটা সবাই স্বীকার করবে। তারপরও কান পাতলে কেন নেতিবাচক কথা শুনতে হয়। কেন নাগরিকরা সন্তুষ্ট হতে পারছে না। আপনি আর একটু আন্তরিক হয়ে নাগরিকদের কাছে যান। তাদের সমস্যার কথা শুনুন এবং সমাধানে উদ্যোগ নিন।

মাননীয় মেয়র, আমাদের কাছে মনে হচ্ছে সাধারণ মানুষ স্বাভাবিকভাবে সব কথা আপনার কাছে বলতে পারছে না। সমস্যার কথা বলার জন্য আপনার বাড়ি থেকে দেখা না পেয়ে অনেককে ফিরে আসতে হয়েছে। এমন অভিযোগ কেন শুনতে হবে? কেন তারা দেখা করতে পারছে না সেটা আপনাকেই দেখতে হবে।

ইতিপূর্বের মেয়ররা নগরবাসীর ওপর করের বোঝা চাপাননি। আমরা বিশ্বাস করি আপনিও চাপাবেন না। কিন্তু বর্তমানে অভিযোগ শোনা যাচ্ছে, বাসা-বাড়ির কর শতগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। যার বাড়ির বার্ষিক কর ছিল ১৯০০ থেকে ২০০০ টাকা। সেই বাড়িতে নোটিশ করা হয়েছে ৬৩ হাজার কিংবা তর চেয়েও বেশি। তাহলে আগের মেয়রা কিভাবে এত কম নিয়েছেন? নিঃসন্দেহে তারা কোথাও থেকে সমন্বয় করেছেন। আমরা চাই আপনিও সেই উদ্যোগ নিন। আর যদি বাড়ির কর বাড়াতে হয় তাহলে নগরবাসীর সঙ্গে নিয়ে উুন্মুক্ত সংলাপ করুন। তাদের বিষয়টি বুঝিয়ে বলুন।
আমাদের মনে হচ্ছে যারা রাজস্ব খাতে কাজ করছেন তারা আপনাকে নগরবাসীর কাছে অজনপ্রিয় করার মিশনে নেমেছেন। তা না হলে এমন একটি বিষয় কেন তারা আপনার ওপর দোষ চাপিয়ে করলেন? রাজস্ব খাতে আগে যে কর্মকর্তারা কাজ করেছেন, বর্তমানেও তো তারাই কাজ করছেন। তাহলে এই কর্মকর্তারা কেন আগের মেয়রদের এমন বুদ্ধি দিলেন না। হঠাৎ আপনার পরিষদের ওপর এই দায় কেন তুলে দিলেন? আমরা বিশ্বাস করি আপনি বিচক্ষণ, বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখলে এর মূল রহস্য পেয়ে যাবেন।

মাননীয় মেয়র, আজ ছাত্রলীগ নেতা সমর দাসের কথা বলতেই হয়, অকালে আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। সমর কোনদিন আগের কোন মেয়রের তোষামদী করেননি। তাই জীবনে তেমন কোন প্রাপ্তির ঝুলি সমরের নেই। কিন্তু আপনার পাশে এখন অনেক মানুষ আছেন। এদেরও আমরা চিনি। এদের মধ্যে অনেককে আমরা অন্য অনেক স্থানে ও অনেক মেয়র এবং নেতাদের তোষামদী করতে দেখেছি। তারা সেসব স্থান থেকে অনেক ফায়দা লুটেছেন। বর্তমানে আপনার চারপাশে থেকে ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করছেন। একই সঙ্গে আপনার সঙ্গে নগরবাসীর দূরত্ব সৃষ্টি করে চলেছেন। এমন তোষামদকারীদের থেকে সাবধান থাকুন।

আমরা চাই, নগর ভবন পরিচালনায় অনেক সময় দৃঢ় হতে হয়। সেটা হতেও হবে। আপনি হয়েছেনও। আবার নগরবাসীকে নিয়েই সামনে চলতে হবে। নগবাসী কোনভাবে অসন্তুষ্ট হয় এমন বিষয় আপনিও কামনা করেন না। তাই, আবারো অনুরোধ, আমাদের মেয়র যেন আমাদের একজন হয়। তোষামদকারীদের থেকে আমাদের মেয়র সাবধান আছেন নিশ্চয়। আর একটু সাবধান হলে আমরা আপনার কাছে যেতে পারবো। বলতে পারবো আমাদের মনে কথা।

 বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

আমাদের নগর কাণ্ডারী তোষামদকারীদের থেকে সাবধান!

Thursday, May 9, 2019 1:13 am

অনলাইন ডেস্ক :: আমাদের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। তিনি আমদের নগরের কাণ্ডারী। নগর উন্নয়নে তিনি চেষ্টা করছেন। সূর্য ওঠার আগেই নগর পরিচ্ছন্ন হচ্ছে এখন। পরিচ্ছন্ন হয়েছে নগরের সমস্ত ড্রেন। অবৈধ পথে যারা আয় করার চেষ্টা করছেন তাাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছেন তিনি। নগর ভবনে অতিরিক্ত ব্যয় বন্ধ হয়েছে। অবসরে যাওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমস্ত পাওনা পরিশোধ করেছেন। তাঁর এই চেষ্টার সঙ্গে নগরবাসী আছে এবং থাকবে।

এতো এতো অর্জনের পরও আমরা তৃপ্ত হতে পারছি না। আমরা আমাদের মেয়রের কাছে সুখ-দুঃখের কথা বলতে চাই। কিন্তু সেই কথা বলতে অনেক সময়ই তার কাছে যেতে পারছি না। কেউ কেউ মেয়রের চারপাশে প্রাচীর তুলে দেওয়ার চেষ্টা করছে। কোথায় যেন একটা দূরত্ব তৈরি হচ্ছে। কেউ যেন নগরবাসীর সঙ্গে মেয়রের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে ওঠার পথে বাধসাধছেন। এই বাধা মেয়রকেই অতিক্রম করতে হবে।

মাননীয় মেয়র, আপনি নগরের সমস্যা সমাধানে আন্তরিক এটা সবাই স্বীকার করবে। তারপরও কান পাতলে কেন নেতিবাচক কথা শুনতে হয়। কেন নাগরিকরা সন্তুষ্ট হতে পারছে না। আপনি আর একটু আন্তরিক হয়ে নাগরিকদের কাছে যান। তাদের সমস্যার কথা শুনুন এবং সমাধানে উদ্যোগ নিন।

মাননীয় মেয়র, আমাদের কাছে মনে হচ্ছে সাধারণ মানুষ স্বাভাবিকভাবে সব কথা আপনার কাছে বলতে পারছে না। সমস্যার কথা বলার জন্য আপনার বাড়ি থেকে দেখা না পেয়ে অনেককে ফিরে আসতে হয়েছে। এমন অভিযোগ কেন শুনতে হবে? কেন তারা দেখা করতে পারছে না সেটা আপনাকেই দেখতে হবে।

ইতিপূর্বের মেয়ররা নগরবাসীর ওপর করের বোঝা চাপাননি। আমরা বিশ্বাস করি আপনিও চাপাবেন না। কিন্তু বর্তমানে অভিযোগ শোনা যাচ্ছে, বাসা-বাড়ির কর শতগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। যার বাড়ির বার্ষিক কর ছিল ১৯০০ থেকে ২০০০ টাকা। সেই বাড়িতে নোটিশ করা হয়েছে ৬৩ হাজার কিংবা তর চেয়েও বেশি। তাহলে আগের মেয়রা কিভাবে এত কম নিয়েছেন? নিঃসন্দেহে তারা কোথাও থেকে সমন্বয় করেছেন। আমরা চাই আপনিও সেই উদ্যোগ নিন। আর যদি বাড়ির কর বাড়াতে হয় তাহলে নগরবাসীর সঙ্গে নিয়ে উুন্মুক্ত সংলাপ করুন। তাদের বিষয়টি বুঝিয়ে বলুন।
আমাদের মনে হচ্ছে যারা রাজস্ব খাতে কাজ করছেন তারা আপনাকে নগরবাসীর কাছে অজনপ্রিয় করার মিশনে নেমেছেন। তা না হলে এমন একটি বিষয় কেন তারা আপনার ওপর দোষ চাপিয়ে করলেন? রাজস্ব খাতে আগে যে কর্মকর্তারা কাজ করেছেন, বর্তমানেও তো তারাই কাজ করছেন। তাহলে এই কর্মকর্তারা কেন আগের মেয়রদের এমন বুদ্ধি দিলেন না। হঠাৎ আপনার পরিষদের ওপর এই দায় কেন তুলে দিলেন? আমরা বিশ্বাস করি আপনি বিচক্ষণ, বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখলে এর মূল রহস্য পেয়ে যাবেন।

মাননীয় মেয়র, আজ ছাত্রলীগ নেতা সমর দাসের কথা বলতেই হয়, অকালে আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। সমর কোনদিন আগের কোন মেয়রের তোষামদী করেননি। তাই জীবনে তেমন কোন প্রাপ্তির ঝুলি সমরের নেই। কিন্তু আপনার পাশে এখন অনেক মানুষ আছেন। এদেরও আমরা চিনি। এদের মধ্যে অনেককে আমরা অন্য অনেক স্থানে ও অনেক মেয়র এবং নেতাদের তোষামদী করতে দেখেছি। তারা সেসব স্থান থেকে অনেক ফায়দা লুটেছেন। বর্তমানে আপনার চারপাশে থেকে ফায়দা নেওয়ার চেষ্টা করছেন। একই সঙ্গে আপনার সঙ্গে নগরবাসীর দূরত্ব সৃষ্টি করে চলেছেন। এমন তোষামদকারীদের থেকে সাবধান থাকুন।

আমরা চাই, নগর ভবন পরিচালনায় অনেক সময় দৃঢ় হতে হয়। সেটা হতেও হবে। আপনি হয়েছেনও। আবার নগরবাসীকে নিয়েই সামনে চলতে হবে। নগবাসী কোনভাবে অসন্তুষ্ট হয় এমন বিষয় আপনিও কামনা করেন না। তাই, আবারো অনুরোধ, আমাদের মেয়র যেন আমাদের একজন হয়। তোষামদকারীদের থেকে আমাদের মেয়র সাবধান আছেন নিশ্চয়। আর একটু সাবধান হলে আমরা আপনার কাছে যেতে পারবো। বলতে পারবো আমাদের মনে কথা।

সম্পাদক ও প্রকাশক : খন্দকার রাকিব ।
ফকির বাড়ি, ৫৫৪৫৪ বরিশাল।
মোবাইল: ০১৭২২৩৩৬০২১
ইমেইল : [email protected], [email protected]