বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

উজিরপুরে স্কুল রক্ষার দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

সরদার সোহেল উজিরপুর: বরিশালের উজিরপুরে সন্ধ্যা নদীর অব্যাহত ভাঙনে বিলীন হওয়ার পথে স্কুল। রক্ষার দাবীতে শিক্ষার্থী এলাকাবাসীর মানববন্ধন। বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) আশোয়ার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সন্ধ্যা নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষার দাবীতে স্কুলের শিক্ষার্থী, শিক্ষক , এলাকাবাসীর উদ্যোগে মানববন্ধন ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।

স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে উজিরপুর উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত সন্ধ্যা নদীর ভাঙ্গনে গত কয়েক বছরে গুঠিয়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম ইতিমধ্যে বিলীন হয়েছে গৃহহারা হয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে কয়েক হাজার মানুষ । এ নিয়ে এলাকাবাসী প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি সহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে বিভিন্ন সময়ে দাবী জানিয়ে আশানুরূপ কোন ফল পায়নি বলে অভিযোগ করেছেন।

স্কুলটি রক্ষার ব্যাপারে স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোসলেম হাওলাদার জানান কিছু দিন আগে পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক শামীম ওই এলাকা পরিদর্শন করেছেন এবং তিনি স্কুলের বেহাল দশা দেখে কিছু বালুর বস্তা (জিও ব্যাগ) ফেলার ব্যবস্থা করেন কিন্তু তা খুবিই অপ্রতুল, ঠিকাদার দায়সারা ভাবে কাজ করে গেছেন সেই বস্তার  অধিকাংশ পানিতে ধুয়ে গেছে , বর্তমানে নদীর পানি কমতে শুরু করেছে প্রবল শ্রোতে নিচের মাটি সরে গিয়ে স্কুলের বিরাট অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে।

এ অবস্থায় ক্লাস নেয়া ঝুঁকিপূর্ণ , আতঙ্কে শিক্ষার্থী হ্রাস পেয়েছে , বাধ্য হয়ে স্কুল বারান্দায় ক্লাস নিতে হয়।

এবিষয়ে মিজান চাপরাশি,সাইফূল , শিক্ষক রাসেদ সহ একাধিক এলাকাবাসী জানান, নদী ভাঙ্গনে আমরা সর্বর্স্ব হারিয়েছি কিন্তু আমাদের কোমলমতি শিশুদের একমাত্র শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি রক্ষায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে দ্রূত কার্যকারী ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে গুঠিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ডাঃ দেলোয়ার হোসেন জানান, স্কুলটি রক্ষার জন্য ইতি মধ্যে মন্ত্রীর নির্দেশে পানি উন্নয়ন বোর্ড কিছু জিও ব্যাগ ফেলেছেন তা অপ্রতুল ,ওই কাজ যে  ঠিকাদার করেছ সে ঠিকমতো করেনি। তাই এখন কার্যকরী ব্যবস্থা না নিলে স্কুলটি রক্ষা করা যাবেনা। তবে  আমরা বিভিন্ন ভাবে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা নেয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট দফতরের মাধ্যমে আবেদন করা হয়েছে , উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা তাছলিমা বেগম স্কুলটিতে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে পাঠদান চলছে স্বীকার করে জানান বিষয়টি সংসদ সদস্য সহ উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে তবে পার্শ্ববর্তী একটি স্থানে অস্থায়ী ভাবে ক্লাস নেয়ার জন্য ওই স্কুল কর্তৃপক্ষেকে বলা হয়েছে।

উজিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুমা আক্তার ওই স্কুলের অবস্থা সম্পর্কে তিনি জানেনা কেউ জানায়নি বলে জানান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আঃমজিদ শিকদার বাচ্চু জানান স্কুলের ও নদী ভাঙ্গনের বিষয়ে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করা হয়েছে। তবে সরকারি বরাদ্দ পেতে সময় লাগবে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রেজাউল করিম ওই এলাকা প্রবল স্রোতের কারণে ভাঙ্গন প্রবন বল স্বীকার করেন, বিশেষ বরাদ্দে  স্কুল এলাকায় ১৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৪৪১৩ টি বালুর বস্তা ফেলা হয়েছে তবে নদীর গভীরতা অনুযায়ী যে বস্তা ফেলা হয়েছে তা অপ্রতুল তবে বরাদ্দ পেলে শিঘ্রই কাজ শুরু হবে বলে জানান।

এবিষয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য শাহে আলম এমপি জানান, মন্ত্রনালয় সুপারিশ করা হয়েছে বরাদ্দ হলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এলাকাবাসীর দাবী দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে স্কুলটি রক্ষা করে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের পাঠদানের ব্যবস্থা করার।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *