বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

কাউনিয়ায় অবৈধ অটোরিকশা থেকে চাঁদাবাজি, নিশ্চুপ প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালে সড়কে চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে পুলিশের জোরালো ভুমিকা দেখা গেলেও নগরীর কাউনিয়া বাঁশের হাট এলাকায় হলুদ অটো থেকে প্রকাশ্যে চালাচ্ছে চাঁদাবাজি। অদৃশ্য কারণে নীরব ভুমিকায় প্রশাসন। কাউনিয়ায় ব্যাটারিচালিত হলুদ অটো ষ্ট্যাডের নামে টাকা হাতাচ্ছেন কালাম, আসলাম, হায়দারসহ কয়েকজনের একটি সংঘবদ্ধ চক্র। এদের অধিকাংশই অটোচালক।

সরেজমিন সূত্রে জানা যায়- বছর কয়েক আগে বরিশাল নগরীতে চালু হয় ব্যাটারিচালিত হলুদ অটো। বিগত দুই মেয়রের সময়ে সর্বমোট ২৬১০ টি অটোর লাইসেন্স প্রদান করেন সিটি কর্পোরেশন।

বিসিসি সূত্র বলছে- বিগত সময়ে কয়েক দফায় মিলে সর্বমোট ২,৬১০টি অটোর লাইসেন্স প্রদান করেন এবং তা বাৎসরিক নবায়নযোগ্য। বর্তমান মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ অটোর নবায়ন বন্ধ করেন তাও দুই বছরের বেশি। তবে তাদের অটো চালাতে কোনো সমস্যা নেই গুণতে হয়না কোনো টাকা পয়সা।

এদিকে হলুদ অটো ষ্ট্যান্ডের নামে অটো থেকে ১ হাজার থেকে ১২শ টাকা করে হাতাচ্ছেন তারা। অভিযোগ রয়েছে- সেই টাকার ভাগ পান কয়েকজন আওয়ামী লীগ নেতারাও।

বিসিসির দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা বলেন- নবায়ন বন্ধ মানেই হলো হলুদ অটো অবৈধ। আর অবৈধ যানের বিরুদ্ধে অভিযান করবে পুলিশ। তিনি আরও বলেন- ট্রাফিক পুলিশ কেন বা কোনো স্বার্থে এখনও নগরীতে হলুদ অটো চলাচল করতে দিচ্ছে তা আমার বোধগম্য নয়।

বরিশাল মেট্রোপলিটন ট্রাফিক বিভাগের ভাষ্যমতে, নগরীতে বর্তমানে চার থেকে পাচঁ হাজার অটো চলাচল করছে এবং প্রতিনিয়ত নতুন নতুন হলুদ অটো নামছে সড়কে।

এ বিষয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসি (ট্রাফিক) তানভীর আরাফাত বলেন- টাকা পয়সা কারা হাতাচ্ছেন আমার জানা নেই, তিনি আরও বলেন- হলুদ অটো অবৈধ, আর এই অবৈধ হলুদ অটোর বিরুদ্ধে আটক অভিযান চলমান আছে। পুলিশের চলমান আটক অভিযানেও থেমে নেই অবৈধ অটোর বিট বাণিজ্য।

অভিযোগ রয়েছে- কোনো অটো চালক যদি ষ্ট্যান্ডের টাকা না দেয় তাহলে তার গাড়ি ওই লাইনে চলতে দেয়া হয় না। অবৈধ অটো ষ্ট্যান্ডের চাঁদাবাজিতে সহযোগিতা করে ট্রাফিক পুলিশের কতিপয় সদস্যরা এবং সে বাবদ সংগঠন থেকে উৎকোচও পায় তারা এমনটাই অভিযোগ অটো চালকদের।

অবৈধ ভাবে সড়কে চাঁদাবাজির বিষয়ে জানতে চাইলে ষ্ট্যান্ড পরিচালনার দায়িত্বে থাকা কালাম বলেন- নিউজটি প্রকাশ কইরেন না, আপনি কোথায় আছেন? আপনার সাথে দেখা করবো এবং আর্থিক প্রলোভনও দেখান যাতে নিউজটি প্রকাশ না হয়।

পরক্ষণেই কথা হয় আসলামের সাথে চাঁদার টাকার ভাগ কে কে পায় এমন প্রশ্নের জবাবে আসলাম বলেন- টাকা কালেকশন করে বেশ কয়েকজনে আর কারে কত দেয় সেটা হায়দার যানেন। আর বাকিটা আমরা নেই।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক অটো চালক জানান- রাস্তায় ইনকাম থাকুক আর না থাকুক ষ্ট্যান্ডের লোকজন মাস পেরোলেই হাতাচ্ছেন অটো প্রতি ১ হাজার টাকা। এমন অভিযোগ সকল অটো চালকদের। এই টাকা না দিলে ওই রুটে অটো চালাতে দেয়না।

বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ও প্রশাসনের কাছে অটো শ্রমিকদের জোরালো দাবি যেনো দ্রুত এই প্রতারক চক্র ও ষ্ট্যান্ডের নামে যারা টাকা পয়সা হাতাচ্ছেন তাদের আইনের আয়তায় এনে কঠিন শাস্তির ব্যবস্থা করেন।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :