বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – কান্না করুন, ওজন কমান!
প্রকাশিতঃ May 10, 2019 8:27 PM
A- A A+ Print

কান্না করুন, ওজন কমান!

আপনার শরীরের ওজন কমাতে চান? তাহলে অনেক কান্নাকাটি করুন, চিল্লায়ে বা নিরবে, কাঁদলেই হল। কান্নাকাটি করলেই কমে যাবে আপনার শরীরের বাড়তি ওজন। ঘটনাটা কিঞ্চিত নয়, পুরোপুরিই সত্য।

হ্যাঁ। সম্প্রতি এক গবেষণায় এমনই প্রমাণ মিলেছে বলে গবেষকদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ডেইলি ইনকোয়ারার।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান লস আল্ট্রোস অপটোমেট্রিকের প্রতিবেদনে অনুযায়ী, আবেগ থেকে কান্নার কারণে কমে যায় অতিরিক্ত ওজন। ওজন বাড়ানোর সঙ্গে সম্পৃক্ত হরমনের সঙ্গে জড়িত এই ব্যাপারটি।

প্রতিষ্ঠানের গবেষক ড.আরন নিউফেল্ড কান্নাতে মোট তিনভাগে ভাগ করেন। মৌলিক কান্না, প্রতিবিম্বধর্মী কান্না এবং আরেকটি হলো মানসিক কান্না।

গবেষণায় দেখা যায়, কান্নায় শরীরের বিষাক্ত পদার্থ বের হয়ে যায়; যা মানব দেহের জন্য উপকারী। এর ফলে কমে মানসিক চাপও।

কান্নায় শরীর থেকে এক ধরনের হরমোন নিঃস্বরণ হয়; এতে ওজন বাড়ানোর জন্য দায়ী চর্বিও বের হয়ে হয়ে যায় বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

তবে শুধু কাঁদলেই হবে না; তা হতে হবে প্রকৃত কান্না। গবেষকদের ভাষ্য, প্রকৃত আবেগ থেকে যে কান্না আসে এতেই ওজন কমানোর মতো উপকার হবে, অন্যথায় নয়।

একজন মানুষের কান্নার জন্য সবচেয়ে ভালো সময় হিসেবে রাত ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত নির্ধারণ করেছেন বিজ্ঞানীরা। এই সময়ের মধ্যে কোনও ব্যক্তি তার ভেঙে যাওয়ার সম্পর্ক কিংবা টেলিভিশনে বিষাদপূর্ণ ছবি দেখেন বলে ধারণা তাদের।

সাধারণত দুঃখে কান্না করলেও সুখেও কখনও কখনও মানুষ কাঁদে। সব কান্না সুখকর না হলেও কোনও কোনও কান্না যে মানুষের জীবনকে সুখকর করে দিতে পারে তাই-ই বলছে বিজ্ঞানীদের নতুন এই গবেষণা।

 বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

কান্না করুন, ওজন কমান!

Friday, May 10, 2019 8:27 pm

আপনার শরীরের ওজন কমাতে চান? তাহলে অনেক কান্নাকাটি করুন, চিল্লায়ে বা নিরবে, কাঁদলেই হল। কান্নাকাটি করলেই কমে যাবে আপনার শরীরের বাড়তি ওজন। ঘটনাটা কিঞ্চিত নয়, পুরোপুরিই সত্য।

হ্যাঁ। সম্প্রতি এক গবেষণায় এমনই প্রমাণ মিলেছে বলে গবেষকদের বরাত দিয়ে জানিয়েছে ডেইলি ইনকোয়ারার।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান লস আল্ট্রোস অপটোমেট্রিকের প্রতিবেদনে অনুযায়ী, আবেগ থেকে কান্নার কারণে কমে যায় অতিরিক্ত ওজন। ওজন বাড়ানোর সঙ্গে সম্পৃক্ত হরমনের সঙ্গে জড়িত এই ব্যাপারটি।

প্রতিষ্ঠানের গবেষক ড.আরন নিউফেল্ড কান্নাতে মোট তিনভাগে ভাগ করেন। মৌলিক কান্না, প্রতিবিম্বধর্মী কান্না এবং আরেকটি হলো মানসিক কান্না।

গবেষণায় দেখা যায়, কান্নায় শরীরের বিষাক্ত পদার্থ বের হয়ে যায়; যা মানব দেহের জন্য উপকারী। এর ফলে কমে মানসিক চাপও।

কান্নায় শরীর থেকে এক ধরনের হরমোন নিঃস্বরণ হয়; এতে ওজন বাড়ানোর জন্য দায়ী চর্বিও বের হয়ে হয়ে যায় বলে গবেষণায় উঠে এসেছে।

তবে শুধু কাঁদলেই হবে না; তা হতে হবে প্রকৃত কান্না। গবেষকদের ভাষ্য, প্রকৃত আবেগ থেকে যে কান্না আসে এতেই ওজন কমানোর মতো উপকার হবে, অন্যথায় নয়।

একজন মানুষের কান্নার জন্য সবচেয়ে ভালো সময় হিসেবে রাত ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত নির্ধারণ করেছেন বিজ্ঞানীরা। এই সময়ের মধ্যে কোনও ব্যক্তি তার ভেঙে যাওয়ার সম্পর্ক কিংবা টেলিভিশনে বিষাদপূর্ণ ছবি দেখেন বলে ধারণা তাদের।

সাধারণত দুঃখে কান্না করলেও সুখেও কখনও কখনও মানুষ কাঁদে। সব কান্না সুখকর না হলেও কোনও কোনও কান্না যে মানুষের জীবনকে সুখকর করে দিতে পারে তাই-ই বলছে বিজ্ঞানীদের নতুন এই গবেষণা।

সম্পাদক ও প্রকাশক : খন্দকার রাকিব ।
ফকির বাড়ি, ৫৫৪৫৪ বরিশাল।
মোবাইল: ০১৭২২৩৩৬০২১
ইমেইল : [email protected], [email protected]