বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

‘কী অইবে মে দিবস বুইজ্জা? ক্ষেতে খামারেই কাম কইরা খাইতে অইবে

শাকিল মাহমুদ :: সাত সকালে সূর্যের তাপদাহ মাথায় নিয়ে বোরো ধান মাড়াইয়ের কাজ শুরু করেছেন বরিশালের খালেক মিয়া। গায়ের সব ঘাম ঝরিয়ে এক মনে কাজ করে চলেছেন। কোনো বিরতি নেই।

নিজের যাপিত জীবনেও নেই স্বপ্ন বলতে কিছু। শুধু জানেন অন্যের জমিতে ‘কামলা’র কাজ করেই আহার জোগাতে হবে।

উনুনে আগুন না জ্বললে অনটনের সংসারের একটু শান্তি নিমিষেই ম্লান হবে। শ্রমিকদের সম্মান আর অধিকার আদায়ের রক্তাক্ত গৌরবময় দিন মহান মে দিবসের মর্মবাণী জানারও সময় নেই তার! এমনকি নেই প্রায় ১৩৩ বছর আগের নিজেদের অধিকার আদায়ের দিনটি সম্পর্কে নূন্যতম ধারণাও!

আঞ্চলিক ভাষায় খালেক মিয়া বলছিলেন এমন- ‘কী অইবে মে দিবস বুইজ্জা? ক্ষেতে খামারেই কাম কইরা খাইতে অইবে । কোনো দিবস টিবস নাই। আল্লাহ’র দিন সব সমান। পেডে খাওন না থাকলে কেউ খবরও লইবো না। বউও বাপের বাড়িত আইড্ডা যাইবে।’

বরিশালের গৌরনদী উপজেলা ঘুরতে গিয়ে বুধবার (০১ মে) খুব সকালে কথা হচ্ছিলো খালেক মিয়ার সঙ্গে। পুরো কথাই তিনি আঞ্চলিক ভাষায় বলেন। প্রমিত বাংলায় তার কথাগুলো উপস্থাপন করলে দাঁড়ায়-চলতি বোরো মৌসুমে নিত্যদিন ৮’শ টাকা মজুরি।

এখানে অবস্থাসম্পন্ন গৃহস্থের জমিতে ধান কাটা ও মাড়াইয়ের কাজে নির্ধারিত কর্মঘণ্টাও নেই। ৮ ঘণ্টায় কাজ শেষ করারও জো নেই। নূন্যতম ১০ থেকে ১১ ঘণ্টা খাঁটুনিতে ঘোরাতে হয় সংসারের চাকা। আবার ‘ওভারটাইম’ নামক শব্দটির সঙ্গেও রীতিমতো অপরিচিত এই শ্রমিক।

এ অবস্থা কী কেবল গ্রামের মাঠ শ্রমিক খালেক মিয়ারই? মোটেও না। খানিক এগোতেই আরেক গৃহস্থের ক্ষেতে বোরো ধান কাটায় মনোনিবেশ করেছেন নজরুল ইসলাম। প্রায় সাড়ে ২০ শতাংশ জমিতে ধান কাটার চুক্তি নিয়েছেন তিনিসহ আরো কয়েক শ্রমিক।

নজরুল জানান- নগদ টাকাকড়ির পাশাপাশি দুপুরের খাবার দিচ্ছেন গৃহস্থ। এ উপার্জনের টাকা দিয়েই সংসারের চার সদস্যের ভরণ-পোষণ হবে। একদিন কাজ বন্ধ রাখলেই না খেয়ে থাকতে হবে। প্রতিদিনের টাকায় দিন শেষে রাতে চাল-ডাল-নুন নিয়ে বাড়ি ফিরবেন। এরপর সবাই মিলে খেয়ে নিশ্চিন্ত মনে ঘুম দিবেন।

নজরুলের সঙ্গে আলাপচারিতায় স্পষ্ট হলো মে দিবসের গুরুত্ব বা তাৎপর্য বোঝার কোনো ইচ্ছা নেই তার। ‘দিবসে কী পেট ভরবো?’ নজরুলের কণ্ঠে এমন উচ্চারণের সময়েই খিলখিল করে হেসে উঠলেন অন্য শ্রমিকরাও।

তাদের মোটকথা- শ্রম দিবসের শোষণ বঞ্চনার স্বপ্ন দেখার দিনটিই তাদের কাছে অন্য দশদিনের মতোই সাধারণ।

অন্য পেশার মতো ফসলের মাঠেও মজুরি বৈষম্যের শিকার হচ্ছে নারী শ্রমিকরা। নজরুলদের কয়েক ক্ষেত পেরিয়ে এক গৃহস্থের উঠোনে দেখা মিললো রহিমা খাতুনসহ কয়েক নারী শ্রমিকের। চল্লিশ বছর বয়সী রহিমা স্থানীয় গৌরনদীর বাসিন্দা।

ধান শুকানো ও চুছা ছাড়ানোর কাজ করছিলেন। তিনি জানান, মাঠে সারাদিন খেটে পুরুষরা যেখানে পাচ্ছেন সাড়ে ৭’শ থেকে ৮’শ টাকা। সেখানে ৫’শ থেকে সর্বোচ্চ ৬’শ টাকা জুটেছে নারী শ্রমিকদের ভাগ্যে। কাপড়ের খোঁটে বেঁধে সেই টাকা নিয়ে বাড়ি যাবেন।

শ্রমিক দিবসের কথা তুলতেই চোখ ছানাবড়া করে উল্টো রহিমার প্রশ্ন, ‘এইড্যা আবার কী?’ বলেই আঁচলে আড়াল করলেন নিজের মুখ।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।