বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

গৌরনদীতে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে বিয়ে : মামলা নেয়নি পুলিশ

গৌরনদী প্রতিনিধি :: বরিশালের গৌরনদী উপজেলার নাঠৈ রিজিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্রীকে (১৪) অপহরণ করে আটকে রেখে জোরপূর্বক বিয়ে করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে গৌরনদী থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হলেও মামলাটি এখনও রুজু করেনি পুলিশ। ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য একটি প্রভাবশালী মহল মরিয়া হয়ে মাঠে নেমেছে।

উপজেলার পশ্চিম শাওড়া গ্রামের অপহৃতা স্কুলছাত্রীর বাবা অভিযোগ করে সাংবাদিকদের কাছে বলেন, আমাদের অজান্তে গত ৬ মাস পূর্বে উপজেলার বার্থী গ্রামের মৃত বিজয় রায়ের ছেলে লিটন রায়ের সঙ্গে আমার মেয়ের (১৪) প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। গত এক মাস পূর্বে আমার মেয়ে জানতে পারে লিটন রায়ের একটি পা নেই।

এরপর পঙ্গু লিটনের সাথে আমার মেয়ে মোবাইল ফোনে কথা বলা বন্ধ করে দেয়। দুর্গাপূজা দেখার জন্য আমার মেয়ে বাড়ি থেকে গত ২২ অক্টোবর সকাল ৮টার দিকে পশ্চিম শাওড়া সার্বজনিন দুর্গাপূজা মন্ডপের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। পথিমধ্যে বখাটে লিটন রায়ের নেতৃত্বে ৫/৬ যুবক আমার মেয়ের পথরোধ করে। এ সময় তারা জোরপূর্বক আমার মেয়েকে মোটর সাইকেলে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। আমার ধারনা মেয়েকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে যাচ্ছে লিটন রায়।

এদিকে শোনা যাচ্ছে বার্থী গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্যা শিপ্রা রানী দাস তার বাড়িতে বসে আমার মেয়েকে জোরপূর্বক বিয়ে দিয়েছে। এ ব্যাপারে আমি নিজে বাদি হয়ে শনিবার রাতে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার জন্য একটি প্রভাবশালী মহল আমাকেসহ পরিবারের সদস্যদেরকে চাপ সৃষ্টি করে আসছে।

গৌরনদী থানার ওসি মোঃ আফজাল হোসেন জানান, এ ব্যাপারে আমি কিছুই জানি না। লিখিত অভিযোগ পেলে পুলিশ স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার করতে যেতে পারে।
থানার এসআই মোঃ আরিফুল ইসলাম বলেন, ইন্সপেক্টর (তদন্ত) লিখিত অভিযোগ পেয়ে আমাকে হাওলা করলে আমি ওই স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের জন্য অভিযুক্ত’র বাড়িতে অভিযান চালাই।

এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘরের সবাই পালিয়ে যায়। অপহৃতা স্কুলছাত্রীর বাবা গরীব বিধায় মামলা চালাতে চাচ্ছে না। সে তার স্কুল পড়–য়া কন্যাকে উদ্ধার করে ফেরত চাচ্ছে বলে এসআই আরিফুল ইসলাম জানান।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :