বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

ঝালকাঠিতে কৃষকলীগ নেতার ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা, মামলা দায়ের

Print Friendly, PDF & Email

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঝালকাঠিতে কৃষক লীগ নেতার দুটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা চলিয়ে ভাঙচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসময় ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান থেকে বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায় হামলাকারীরা। সদর উপজেলার পিপলিতা বাজারে গত শনিবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা কৃষকলীগ নেতার স্ত্রীর কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে।

টানা না দিলে বাজারে তাদের ব্যবসা করতে দেওয়া হবে না বলেও হুমকি দেয়। এ ঘটনায় ১৬ জনকে আসামী করে ঝালকাঠি থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। পুলিশ তিনজনকে আটকও করে।

অভিযোগে জানা যায়, সদর উপজেলার পিপলিতা বাজারে ১৫ শতাংশ জমি নিয়ে খালেক ডাকুয়ার সঙ্গে স্থানীয় জাহাঙ্গীর আলম খানের সঙ্গে বিরোধ চলছিল। জমির মধ্যে খালেক ডাকুয়ার দুটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এ জমি কয়েক দফায় দখলের চেষ্টা করে জাহাঙ্গীর। বিরোধীয় জমি নিয়ে হাইকোকর্টে একটি রিটপিটিশন দায়ের করেন খালেক ডাকুয়া। হাইকোর্ট জমির ওপর স্থিতিতাবস্থা বজায় রাখার আদেশ দেন। খালেক ডাকুয়া ঢাকার টুঙ্গিতে বিশ্ব ইজতেমায় গেলে সুযোগ পেয়ে জাহাঙ্গীর আলম খান লোকজন নিয়ে দুটি ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়।

তারা লাঠিসোটা দিয়ে ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করে মালামাল লুটে নেয়। এতে বাধা দিতে গেলে খালেকের স্ত্রী রেহানা বেগম হামলাকারীদের হাতে লাঞ্ছিত হয়। এমনকি তার সাথে থাকা স্বর্ণালংকারও ছিনিয়ে নেওয়া হয়। হামলাকারীরা এসময় রেহানা বেগমের কাছে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দিলে পিপলিতা বাজারে ব্যবসা করতে দিবে না বলে হুমকি দেয়। খবর পেয়ে ঝালকাঠি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এ ঘটনায় রেহানা বেগম বাদী হয়ে পরের দিন ঝালকাঠি থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলেন পিপলিতা গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম খান, দুলাল খান, জাহিদ হাওলাদার, মো. রানা, মামুন হক, রূপনগর গ্রামের মো. সুমন, শহরের পূর্বচাঁদকাঠি এলাকার পিকলু, বিআইপি সড়কের রাজিব, কাঠপট্টি এলাকার সাইফুল ইসলাম, চাঁদকাঠির সুমন, ইমরান, রূপনগর গ্রামের বুলেট, গগণ গ্রামের নয়ন, পিপলিতা গ্রামের রাফি খান, কায়েস জমাদ্দার ও পপি বেগম।

মামলার বাদী রেহানা বেগম বলেন, ঝালকাঠির যুবলীগ নেতা সৈয়দ মিলন এই হামলাকারী বাহিনীকে সেল্টার দিচ্ছে। মামলা করার পরে আসামীরা বরিশাল গিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে মিথ্যা নাটক সাজিয়ে ভুল তথ্য উপস্থাপন করেছে বলে শুনেছি। সংবাদ সম্মেলনে ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহমুদ হাসানের নামেও মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে। আমরা প্রকৃত ঘটনা তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।

ঝালকাঠি থানার অফিসার ইনচার্জ খলিলুর রহমান বলেন, ঘটনা সঙ্গে জড়িত তিনজনকে আটক করা হয়েছিল। মামলার সব আসামীরাই এখন জামিনে রয়েছে। প্রকৃত দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, জাহাঙ্গীর আলম খান কেওড়া ‌ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ছিলেন । বর্তমানে তিনি ঝালকাঠি জেলা বিএনপির উপদেষ্টা ও সদর উপজেলা বিএনপির সহ সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *