বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

টানা দ্বিতীয় ম্যাচে ফিফটি সৌম্যর

বিশ্বকাপের আগে টাইগার ভক্তদের জন্য স্বস্তির খবর, দারুণভাবে ফর্মে ফিরেছেন সৌম্য সরকার। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে টানা দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি আর ডাবল সেঞ্চুরি করে আয়ারল্যান্ডে গিয়েছিলেন।

এই ছন্দটা সৌম্য ধরে রেখেছেন ত্রিদেশীয় সিরিজেও। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে ফিফটি তুলে নিয়েছেন বাঁহাতি এই ড্যাশিং ব্যাটসম্যান। আগের ম্যাচে এই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেই খেলেছিলেন ৭৩ রানের ইনিংস। এবার পেলেন আরেকটি হাফসেঞ্চুরি।

লক্ষ্য ২৪৮ রানের। ৮.১ ওভারেই ৫০ রানের জুটি ছুঁয়েছেন দুই ওপেনার তামিম ইকবাল আর সৌম্য সরকার। অ্যাশলে নার্সের ওই ওভারেই উইকেট ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন তামিম। ২১ রানে তিনি হয়ে যান বোল্ড।

তবে সৌম্য আর সাকিব দ্বিতীয় উইকেটে এখন পর্যন্ত অবিচ্ছিন্ন আছেন ৩৫ রানে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১৭ ওভার শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১ উইকেটে ৮৯ রান। সাকিব ১৬ আর সৌম্য ৫০ রান নিয়ে ব্যাট করছেন।

এর আগে নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হাত খুলে খেলতে দেননি বাংলাদেশের বোলাররা। শাই হোপ আর জেসন হোল্ডার হাল না ধরলে বড় বিপদেই পড়তো ক্যারিবীয়রা। শেষ পর্যন্ত তারা তুলতে পেরেছে ৯ উইকেটে ২৪৭ রান।

টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড়ো সূচনা করেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ। বিশেষ করে ওপেনার সুনিল এমব্রিস ছিলেন বেশি ভয়ংকর। অবশেষে ভয়ংকর হয়ে উঠা এই ওপেনারকে সাজঘরের পথ দেখিয়ে উদ্বোধনী জুটিটি ভাঙেন মাশরাফি বিন মর্তুজা।

উদ্বোধনী জুটিতে এমব্রিস আর শাই হোপ তুলেন ৩৫ বলে ৩৭ রান। এমব্রিস ১৮ বলেই ৪ বাউন্ডারিতে করে ফেলেছিলেন ২৩ রান। ষষ্ঠ ওভারে এসে মাশরাফি তাকে সৌম্য সরকারের ক্যাচ বানিয়েছেন। ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে দারুণ এক ক্যাচ নেন স্লিপে দাঁড়ানো সৌম্য।

এরপর ড্যারেন ব্রাভোকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ১৩ বলে মাত্র ৬ রান করেন এই ব্যাটসম্যান। তৃতীয় উইকেটে রস্টন চেজকে নিয়ে আবারও প্রতিরোধের চেষ্টা হোপের।

৩৩ রানের এই জুটিটি ভাঙেন মোস্তাফিজুর রহমান। মিড উইকেটে ক্যাচটা প্রায় ছুটে যাচ্ছিল। দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় মাহমুদউল্লাহ সেটি তালুবন্দী করেন। ১৯ রান করেন চেজ।

ক্যারিবীয় ইনিংসে চতুর্থ আঘাতটিও হানেন মোস্তাফিজই। জোনাথান কার্টারকে ৩ রানে এলবিডব্লিউ করেন বাঁহাতি কাটার মাস্টার। ৯৯ রানে ৪ উইকেট হারায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

মাঝে বাংলাদেশি বোলারদের বিপক্ষে রান তুলতে রীতিমত ঘাম ঝরছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের। টানা ১০৩ বল বাউন্ডারির দেখা পায়নি ক্যারিবীয়রা।

সৌম্য সরকারের করা ইনিংসের ৩০তম ওভারে এসে সেই খরা কাটান জেসন হোল্ডার। ওভারের চতুর্থ বলে একটি চার মারেন ক্যারিবীয় অধিনায়ক, পরের বলে মেরে দেন আরেকটা।

হোল্ডার আর হোপ মিলেই ক্যারিবীয়দের বড় লজ্জা থেকে বাঁচান। পঞ্চম উইকেটে তারা গড়েন ১০০ রানের জুটি। আরেকটি সেঞ্চুরির পথেই যাচ্ছিলেন হোপ। অবশেষে তাকে উইকেটের পেছনে ক্যাচ বানান মাশরাফি। ১০৮ বলে ৬ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ৮৭ রান করেন এই ওপেনার।

সঙ্গী হারিয়ে হোল্ডারও বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। একইভাবে মাশরাফির বলে উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহীমের কাছে ক্যাচ হন ৭৬ বলে ৬২ রানে থাকার সময়।

এরপর ফ্যাবিয়েন অ্যালেনকে (৭) এলবিডব্লিউ করেন সাকিব। অ্যাশলে নার্স (১৪) আর রেমন রেইফারকে (৭) দুর্দান্ত দুই ডেলিভারিতে ফেরান মোস্তাফিজ।

সবমিলিয়ে ৯ ওভারে ৪৩ রান খরচায় কাটার মাস্টার নেন ৪টি উইকেট। ১০ ওভারে ৬০ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন মাশরাফি। একটি করে উইকেট সাকিব আল হাসান আর মেহেদী হাসান মিরাজের।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।