বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

দীর্ঘ ৯ বছর পর মা-বাবার কাছে ফিরলো ইমরান

অনলাইন ডেস্ক :: ফরিদপুরের মধুখালীতে নয় বছর কাটানোর পর অবশেষে আসল পরিবারে কাছে ফিরলো খাগড়াছড়ির মো. ইমরান হোসেন (১৬)। মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) নয় বছর আগে হারিয়ে যাওয়া ইমরান হোসেনকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে মধুখালী থানা পুলিশ।

ইমরান হোসেন খাগড়াছড়ি সদরের লক্ষীছড়ি এলাকার ময়ুরখালী মহিষকাটা গ্রামের মো. আলী আহম্মদ ও অজিফা বেগমের সন্তান। এখন তার বয়স ১৬ বছর।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১১ সালে নেত্রকােনা জেলার পূর্বধলা এলাকার মাওলানা মো. নুরুল ইসলামের বাড়িতে থেকে স্থানীয় একটি মাদরাসায় পড়ালেখা করতো ইমরান। ওই বাড়িতে প্রায় নয় মাস থাকার পর একদিন পার্শ্ববর্তী ঢেউডুকুম বাজারে বাজার করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় সে। নুরুল ইসলামসহ তার পরিবার বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও ইমরানের কোনো সন্ধান পায়নি। ২০১২ সালের ২১ এপ্রিল পূর্বধলা থানায় ইমরানের নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে মো. নুরুল ইসলাম একটি সাধারণ ডায়েরি করেন, যার নম্বর-৬৮২।

রোববার (১০ অক্টোবর) সকালে উপজলার কামালদিয়া ইউনিয়নের ঝাউহাটি গ্রামের মৃত আব্দুল জলিল শেখের স্ত্রী নুরজাহান বেগম (৫৫) মধুখালী থানায় গিয়ে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলামকে ইমরানকে কুড়িয়ে পাওয়ার বিষয়টি জানান।

এ বিষয়ে মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, নুরজাহান বেগম থানায় এসে বলেন, প্রায় নয় বছর আগে রায়পুর ইউনিয়নের ব্রাহ্মণকান্দা বাজারে একটি শিশু এদিক-সেদিক ঘোরাফেরা ও কান্নাকাটি করছিল। সে সময় তার স্বামী (আব্দুল জলিল) তাকে (ইমরান) বাড়িতে নিয়ে আসেন। নয় বছর ধরে তাদের কাছেই বড় হয়েছে ইমরান। তখন সে বাবা মায়ের নাম বলতে পারলেও বিস্তারিত কিছু বলতে পারেনি।

শহিদুল ইসলাম আরও বলেন, ইমরান হোসেন ও নুরজাহান বেগমকে জিজ্ঞাসাবাদে জানতে পারি, তার বাড়ি খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়ি এলাকায়। এরপর লক্ষীছড়িসহ বিভিন্ন থানায় যোগাযোগ করে ইমরানের আসল পরিবারের সন্ধান পাওয়া যায়। সে অনুযায়ী মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) মধুখালী থানার মাধ্যমে তাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

ইমরানের বাবা মো. আলী আহম্মদ দীর্ঘদিন পর ছেলেকে ফিরে পেয়ে আবেগআপ্লুত হয়ে পড়েন। তিনি নুরজাহান বেগম ও মধুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলামের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :