বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

ধনাঢ্যরা পেলেন প্রকল্পের ১৭০ টিউবওয়েল

অনলাইন ডেস্ক :: ডাকসুর সাবেক ভিপি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, ঐক্যফ্রন্ট থেকে মৌলভীবাজার-২ কুলাউড়া আসনে নির্বাচিত এমপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের বরাদ্দকৃত ২০২০-২১ অর্থ বছরে ‘সমগ্র দেশে নিরাপদ পানি সরবরাহ’ প্রকল্পের আওতায় সরকার থেকে পাওয়া প্রথম পর্যায়ের ১৭০টি টিউবওয়েল বরাদ্দ পেয়েছেন এলাকার ধনাঢ্য ব্যক্তিরা। সেই তালিকায় কোটিপতি ব্যবসায়ী, রাজনৈতিক ব্যক্তি, প্রবাসী, আইনজীবী, শিক্ষক ও ব্যবসায়ীর নাম রয়েছে।

এই তালিকা প্রকাশ হওয়ায় বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন এলাকাবাসী। তবে এমপির দাবি যার প্রয়োজন তাকেই টিউবওয়েল দিয়েছেন তিনি।

এমপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ মুঠোফোনে বলেন, আমি যারে প্রয়োজন মনে করেছি তাকে টিউবওয়েল দিয়েছি। কে ধনী কে গরিব এটা আমার বিবেচনার বিষয় নয়, পানির যার প্রয়োজন তাকে টিউবওয়েল বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। খুব স্বচ্ছভাবে তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

ধনাঢ্যদের সরকারি টিবওয়েল দেয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক সমালোচনার স্বিকার হচ্ছেন এমপি সুলতান মনসুর।

তালিকা সূত্রে জানা যায়, বরাদ্দের তালিকায় যে সকল ধনাঢ্য ও রাজনৈতিক ব্যক্তির নাম রয়েছে তারা হলেন- বরমচাল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাহান উদ্দিন, যার তিন ভাই লন্ডনে রয়েছেন এবং স্থানীয় ফুলেরতল বাজারে একটি বিশাল মার্কেট রয়েছে, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগের চাচাতো ভাই সবুজ উদ্দিন, ধনাঢ্য ব্যক্তি মো. দলা মিয়া যার ছেলে আশরাফ আল পারভেজ মিশরের একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী।

ভূকশিমইল ইউনিয়নে ধনাঢ্য ব্যক্তির তালিকায় রয়েছেন ডা. মামুন, ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক ও বর্তমান উপজেলা যুবলীগ নেতা এনামুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রশিবিরের সাবেক সভাপতি সাইফুল ইসলাম খান, ইউনিয়ন তথ্য সেবা কেন্দ্রের উদ্যোক্তা ধীরেন্দ্র মোহন দাস ও ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি বিরেন্দ্র কান্ত দাস।

ভাটেরা ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি আব্দুল লতিফ, ইউনিয়ন জামায়াতের আমীর আব্দুল হামিদ খান, ইউনিয়ন বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রনি হাসান ছালাম যার পরিবারে একাধিক ব্যক্তি লন্ডন প্রবাসী, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মুজিবুর রহমান তালুকদার, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মিয়া, স্বপন মিয়া যার পরিবার গত অর্থ বছরেও সরকারি টিউবওয়েল বরাদ্দ পেয়েছে।

জয়চন্ডী ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এনামুল হক মিফতা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-দফতর সম্পাদক ও শহরের মা ফার্মেসীর স্বত্তাধিকারী খালেদ পারভেজ বখ্শ, অ্যাডভোকেট মো. কামরুল ইসলাম যার কুলাউড়া পৌর শহরে ৫তলা একটি ভবন রয়েছে।

ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য ও এমপির ঘনিষ্টজন বিমলেন্দু সেন কৃষ্ণ, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতির ছেলে নাসের আহমদ ও জাহাঙ্গীর আলম কনা।

কাদিপুর ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বিআরডিবির চেয়ারম্যান ফজলুল হক ফজলু, উপজেলা বিএনপি নেতা দেলোয়ার হোসেন যার ব্রাহ্মণবাজারে একটি মার্কেট রয়েছে, ঠিকাদার ও ব্যবসায়ী শাহিন বক্স, খায়রুল আলম কয়ছর যিনি গত কয়েকদিন আগে এমপির কুলাউড়া অফিসের সমন্বয়কারী হিসেবে দায়িত্ব লাভ করেছেন, ধনাঢ্য ব্যক্তি নিয়ামুল ইসলাম, আব্দুল নাঈম চৌধুরী যিনি এমপির সৌরবিদ্যুৎ বিষয়ক প্রতিনিধি নাহিদ চৌধুরীর ভাই।

কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন ধনাঢ্য ব্যক্তি আতাউর রহমান চৌধুরী বাবলা, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, সাবেক ইউপি সদস্য আবু তালিব লিটন।

রাউৎগাঁও ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা যুবলীগ নেতা রুহুল আমীন যার কোটি টাকার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, প্রোপার্টি ও গাড়ি রয়েছে এমনকি তার পরিবারের কয়েকজন প্রবাসী, উপজেলা জাতীয় শ্রমিক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সফি আহমদ চৌধুরী পলিট, ধনাঢ্য ব্যক্তি সৈয়দ মহসিন আল হাসান, মো. সিপন খান, বিএনপি নেতা লেবু মিয়া।

টিলাগাঁও ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন ছাত্রদল নেতা আনখার উদ্দিন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক বাবুল মিয়া, ধনাঢ্য ব্যক্তি আব্দুস ছালাম চৌধুরী, ডা. কেরামত আলী।

হাজীপুর ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন হাজিপুর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আব্দুল মুহিত, সাংগঠনিক সম্পাদক তোয়াহিদ আলী, সাবেক সভাপতি জমসেদ আলী, সাবেক সেক্রেটারি রকিব আলী, ছাত্রলীগের সাবেক সেক্রেটারি মছব্বির আলী, ছাত্রদলের সাবেক আহ্বায়ক মোশাররফ হোসেন মিজু, পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবু বিধান চন্দ্র দে।

শরীফপুর ইউনিয়নে তায়েফ আহমদ যিনি এমপির টিউবওয়েল বণ্টনের সমন্বয়কারী উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সভাপতি ছয়ফুর রহমানের ভাগিনা।

পৃথিমপাশা ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন সুলতানপুরের ধনাঢ্য ব্যক্তি জাহাঙ্গীর কবির হেপী যার বাড়িতে দ্বিতল একটি অত্যাধুনিক ভবন রয়েছে, ধনাঢ্য ব্যক্তি আবু মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন যার স্থানীয় রবিরবাজারে বড় হোটেল রয়েছে এবং তার এক ভাই যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন, ধনাঢ্য ব্যক্তি বখতিয়ার হোসেন খছরু, ক্যাবল নেটওয়ার্ক ব্যবসায়ী আব্দুল আহাদ, আলী আমজদ স্কুল এন্ড কলেজের অফিস সহকারী সামছুদ্দোহা সুয়েব, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ও ব্যবসায়ী হিরা মিয়া, খালেদ আহমদ যার রবিরবাজারে আশিক ম্যানশন নামে একটি বড় মার্কেট রয়েছে, রইছ আলী সরদার যারা ছেলেরা প্রবাসে রয়েছেন।

কর্মধা ইউনিয়নের তালিকায় রয়েছেন কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান নজিব আলীর ছেলে জুয়েল যার পরিবারের কয়েকজন প্রবাসে রয়েছেন, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ও ব্যবসায়ী রুহুল আমীন, কর্মধা ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মশাহিদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক ছায়দুল ইসলাম সাহেদ, ধনাঢ্য ব্যক্তি রেজান আলী, আশরাফুল হক মুন্না, কর্মধা ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক সেক্রেটারি আজিজুল হক জুয়েল, এমপির অফিস সহকারী শেখ রুহেলের বাড়ির ব্যক্তিগত প্রতিষ্ঠান ডা. উজির আহমদ শিশু একাডেমীর নামেও টিউবওয়েল বরাদ্দ হয়েছে। বিশেষ করে কর্মধা ইউনিয়নের কর্মধা গ্রামেই ৮টি টিউবওয়েল বরাদ্দ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :