বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

ধাওয়া খেয়ে ক্যাম্পাস ছাড়ল ইবি ছাত্রলীগ সম্পাদক

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিবকে ধাওয়া দিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দিয়েছে বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় সাধারণ শিক্ষার্থী ও ক্যাম্পাসে আসা দর্শনার্থীদের মধ্য আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে এতে কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা, ঠিকাদার এবং বহিরাগতদের নিয়ে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করেন ইবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব। এ সময় জিয়া হল মোড়ে তার সমর্থকরা জড়ো হয়। রাকিবের ক্যাম্পাসে ঢোকার বিষয়টি ছাত্রলীগের বিদ্র্রোহী গ্রুপের কর্মীরা জানতে পেরে চাপাতি, হকিস্টিক, লাঠিসোটা নিয়ে প্রতিটি আবাসিক হলে সংগঠিত হতে থাকে। একপর্যায়ে ছাত্রলীগের সাবেক এক নেতা রাকিবের পক্ষ থেকে বিদ্রোহী গ্রুপের এক নেতার সঙ্গে সমঝোতার চেষ্টা চালান। কিন্তু সমঝোতা না হওয়ায় রাকিব তার কর্মীদের নিয়ে জিয়া হল মোড় ছেড়ে ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে অবস্থান নেন।

এরই মধ্যে লালন শাহ হল থেকে রাকিবের পক্ষে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবুল খায়ের মোল্লার নেতৃত্বে একটি গ্রুপ জিয়া হল মোড়ের দিকে আসতে থাকে। এ সময় বিদ্রোহীরা সবকটি হল থেকে একযোগে মিছিল বের করে তাদের ধাওয়া দেয়। তবে তারা ছত্রভঙ্গ হয়ে পালিয়ে যাওয়ায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। পরে বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা রাকিবের অবস্থান জানতে পেরে অস্ত্র নিয়ে প্রধান ফটকে যায়। তবে বিদ্রোহী গ্রুপের কর্মীরা প্রধান ফটকে পৌঁছানোর আগেই রাকিব পালিয়ে যান। পরে বিদ্রোহীরা প্রধান ফটকে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে ক্যাম্পাসে অস্ত্রের মহড়া দেয়। এছাড়ও তারা সাদ্দাম হোসেন হল, লালন শাহ হল ও শেখ রাসেল হলে প্রবেশ করে রাকিবের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

ছাত্রলীগের বিদ্রোহী গ্রুপের নেতৃত্বে দেখা গেছে সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক শিশির ইসলাম বাবু, তৌকির মাহফুজ মাসুদ, সাবেক আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক রিজভী আহমেদ পাপন, সাবেক ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান লালন এবং সাবেক সহ-সম্পাদক ফয়সাল সিদ্দীকি আরাফাতকে। এরা সবাই গত কমিটিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ছিলেন।

Student-Lig

এর আগে ৪০ লাখ টাকার বিনিময়ে সাধারণ সম্পাদক হয়ে আসার অডিও ফাঁস হলে ক্যাম্পাসে রাকিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এই ঘোষণার পর শুক্রবারই প্রথম ক্যম্পাসে প্রবেশ করেন রাকিব।

এদিকে শনিবার ক্যাম্পাসে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে বর্তমান কমিটির নেতৃবৃন্দ এবং বিদ্রোহীরা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার হুমকিদাতা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুকে গ্রেফতার এবং তার শাস্তির দাবিতে বেলা ১১ টায় বিক্ষোভ মিছিলের ঘোষণা দিয়েছে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ।

এ বিষয়ে বিদ্রোহী গ্রুপের নেতৃত্ব দেয়া ফয়সাল সিদ্দিকি আরাফাত বলেন, রাকিব ক্যাম্পাসে বহিরাগত ক্যাডারদের নিয়ে প্রবেশ করে। তার টাকা দিয়ে আসা কমিটি কর্মীরা মানে না। তাকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করা হয়েছে। অবাঞ্ছিত কাউকে ক্যাম্পাসে ঢুকতে দেয়া হবে না।

ইবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল ইসলাম রাকিব বলেন, আগামীকাল শনিবার প্রধানমন্ত্রীকে হত্যার হুমকিদাতা দুদুর শাস্তির দাবিতে একটি কর্মসূচি রয়েছে। তাই নেতাকর্মীদের জানাতে ক্যাম্পাসে যাই। তবে এ ঘটনার আগেই আমি ক্যাম্পাস ত্যাগ করি। পরে শুনেছি আমার ক্যাম্পাস ত্যাগের পরে কিছু বিক্ষুব্ধ কর্মী ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছে।

এ বিষয়ে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আরিফ বলেন, আমরা ফোর্সসহ ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকে ছিলাম। এ ঘটনা তো ক্যাম্পাসের ইন্টারনাল। তাই আমরা ঘটনা অবজারভ করছি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর আরিফুল ইসলাম বলেন,ঘটনা শুনেই আমি ঘটনাস্থলে যাই। পরিবশে এখন স্বাভাবিক এবং শান্ত রয়েছে।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।