বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

নগর পরিকল্পনায় পার্ক ও বাস-ট্রাক স্ট্যান্ড

পুরাতন ঢাকার ইংলিশ রোডে অবস্থিত পার্কটি অত্রাঞ্চলের নাগরিকদের জন্য ছিল স্বস্তি ও প্রশান্তিদায়ক। কিন্তু গত ডিসেম্বরে পার্কটি সংস্কারের নামে ভাঙিয়া ফেলা হইলেও আজ পর্যন্ত তাহার সংস্কারকাজ শুরু হয় নাই। সবচাইতে উদ্বেগজনক বিষয় হইল, পার্কটি ভাঙিয়া ফেলিবার সুযোগে এবং কর্তৃপক্ষের অবহেলায় ট্রাক-পিকআপের চালকেরা জায়গাটি দখল করিয়া লইয়াছেন। এখন অনেক চেষ্টা করিয়াও তাহাদের আর সরানো যাইতেছে না। দালানকোঠায় ঠাঁসা এই ব্যস্ত শহরে তাঁতিবাজার মোড় হইতে প্রায় রায়সাহেব বাজার পর্যন্ত লম্বা পার্কটি ছিল এক টুকরা সবুজের সমারোহ ও প্রাকৃতিক নিসর্গের নিদর্শন। তাই এই পার্কটি দখলমুক্ত করিয়া অবিলম্বে তাহা সংস্কার ও ব্যবহার উপযোগী করা প্রয়োজন।

যে কোনো নগরে চিত্তবিনোদন ও পরিবেশের সুরক্ষার জন্য পার্ক, খেলাধুলার মাঠ বা উন্মুক্ত স্থানের প্রয়োজনীয়তা যেমন রহিয়াছে, তেমনি সেখানে যানবাহনের শৃঙ্খলার জন্য বাস-ট্রাক স্ট্যান্ডের প্রয়োজনীয়তাও অনস্বীকার্য। বর্তমানে প্রায় পৌনে দুই কোটি মানুষের বসবাস ঢাকা মহানগরীর দক্ষিণ ও উত্তর উভয় সিটি করপোরেশন জুড়িয়া পার্ক রহিয়াছে ৫৪টি। ইহার বাহিরেও রহিয়াছে আরো কিছু পার্ক। কিন্তু পরিতাপের বিষয় হইল অধিকাংশ পার্কই যথাযথভাবে সংরক্ষণ করা হয় না। নগর পরিকল্পনাবিদদের মতে, একটি ছিমছাম ও সুন্দর নগরীর জন্য নগরীর মোট আয়তনের ১০ শতাংশ খোলা মাঠ ও পার্ক থাকা প্রয়োজন। সেখানে আমাদের রহিয়াছে মাত্র ৪ শতাংশ। অন্যদিকে গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালীতে তিনটি বড় পরিসরে বাসস্ট্যান্ড রহিয়াছে। আর তেজগাঁওয়ে রহিয়াছে একটি ট্রাকস্ট্যান্ড। কিন্তু যেইভাবে ঢাকা শহর সমপ্রসারিত হইতেছে এবং জনসংখ্যা বাড়িবার কারণে যানবাহনের সংখ্যা বাড়িতেছে, সেইভাবে বাস-ট্রাক স্ট্যান্ড গড়িয়া তুলিবার প্রতিও আমাদের কোনো ভ্রূক্ষেপ নাই।

বিভিন্ন পরিবহন মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের তথ্যমতে, ঢাকা শহরে সড়ক ও খাসজমি দখল করিয়া গড়িয়া উঠা বড় ও মাঝারি আকারের বাস-ট্রাক টার্মিনালের সংখ্যা কমপক্ষে ৫০টি। তন্মধ্যে উল্লেখযোগ্য হইল—ঢাকা শহর রক্ষা বাঁধে অবস্থিত শহীদনগরের ট্রাক টার্মিনাল, মোহাম্মদপুর বাসস্ট্যান্ড হইতে গাবতলী পশুরহাট পর্যন্ত ঢাকা শহর রক্ষা বাঁধের সড়কে টার্মিনাল, সায়েদাবাদ জনপথের মোড়ে ফ্লাইওভারের নিচে ট্রাকস্ট্যান্ড, পোস্তগোলা ব্রিজসংলগ্ন সড়কে ট্রাকস্ট্যান্ড, চানখাঁরপুল সিগন্যাল হইতে গুলিস্তান পর্যন্ত ফ্লাইওভারের নিচের সড়কে বাস-ট্রাক-টেম্পো স্ট্যান্ড, মহাখালী টার্মিনাল সংলগ্ন এয়ারপোর্ট রোডে সমপ্রসারিত বাসস্ট্যান্ড, কুড়িল ফ্লাইওভারের নিচে অবৈধ টার্মিনাল ও ভিক্টোরিয়া পার্ক টার্মিনাল। ইহাছাড়া রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়-পয়েন্টে গড়িয়া উঠিয়াছে ২০টিরও বেশি মিনি টার্মিনাল। এইসব অবৈধ টার্মিনাল যানজটসহ নানা প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করিলেও মূলত এইগুলি গড়িয়া উঠিয়াছে এক নির্মম বাস্তবতা ও বিকল্প ব্যবস্থা না থাকিবার কারণে।

সুতরাং ইহা হইতে পরিত্রাণ পাইতে হইলে নগরে পরিকল্পিত ও পর্যাপ্ত বাস-ট্রাক স্ট্যান্ড এবং পার্ক-উদ্যান গড়িয়া তোলা প্রয়োজন। এইগুলি সুন্দর ও সুশৃঙ্খলভাবে ব্যবহারের জন্য গড়িয়া তোলা প্রয়োজন সমন্বিত ও সুদূরপ্রসারী ব্যবস্থাপনা। বলাবাহুল্য, পর্যাপ্ত বাস-ট্রাকস্ট্যান্ড এবং পার্ক-উদ্যান তৈরির মাধ্যমে সরকার আয়ের পথও প্রশস্ত করিতে পারে।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।