বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

পটুয়াখালীতে ‘ভোটের বিরোধে’ মাদরাসা ‘সরিয়ে নিলেন’ ইউপি চেয়ারম্যান

পটুয়াখালী প্রতিনিধি :: পটুয়াখালীর কুয়াকাটা পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ভাইয়ের পরাজয়ের জেরে একটি মাদরাসা ভেঙে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে লতাচাপলী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. আনছার উদ্দিন মোল্লার বিরুদ্ধে।

শনিবার (৯ জানুয়ারি) সকাল ৭টার দিকে লতাচাপলীর বাহামকান্দা গ্রামে টিনের ঘরের ওই মাদরাসাটি ভেঙে একই গ্রামের অন্যত্র স্থাপনের উদ্যোগ নেয়ায় স্থানীয়দের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে ঘটনাস্থলে হাজির হয় পুলিশ।

পুলিশ যাওয়ার আগেই ৪২ হাত দৈর্ঘ্য এবং ১২ হাত প্রস্থের মাদরাসা ঘরটি অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়। যদিও ইউপি চেয়ারম্যান মো. আনছার উদ্দিন মোল্লা তার বিরুদ্ধে ওঠা বিরোধ সংক্রান্ত অভিযোগ অস্বীকার করেন।

স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, ওই এলাকার হামেদ গাজী নামে এক ব্যক্তি খাজুরা বাহামকান্দা খাইরুন্নেছা মডেল মাদরাসার নামে ৩০ শতক জমি দান করেন। ১৫ দিন আগে ওই জমিতে স্থানীয় এক মৎস্য ব্যবসায়ীর আর্থিক সহায়তায় একটি টিনের ঘর তোলা হয়। ফলে মাদরাসাটি হামেদ গাজীর নিয়ন্ত্রণেই ছিল। কিন্তু হামেদ গাজী সদ্য সমাপ্ত পৌর নির্বাচনে আনছার উদ্দিন মোল্লার ভাইয়ের বিরোধী প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এ কারণে নির্বাচনের পর ইউপি চেয়ারম্যান মাদরাসাটি ভেঙে অন্যত্র নিয়ে গেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে হামেদ গাজী সাংবাদিকদের বলেন, কুয়াকাটা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে হেরে যান আনছার উদ্দিন মোল্লার ভাই আ. বারেক মোল্লা। এ কারণে তারা আমার ওপর ক্ষিপ্ত ছিল। লতাচাপলী ইউপি চেয়ারম্যান মো. আনছার উদ্দিন মোল্লা উড়ে এসে জুড়ে বসে মাদরাসার সভাপতি হয়ে স্বেচ্ছাচারী আচরণ শুরু করেন। এ নিয়ে দ্বন্দ্ব দেখা দিলে কোনো আলাপ-আলোচনা না করেই শনিবার সকালে আনছার মোল্লার নির্দেশে তার লোক সালাম গাজী ও মজিদ মাঝির নেতৃত্বে মাদরাসাটি ভেঙে নিয়ে যায়।

তবে অভিযুক্ত মজিদ মাঝি সাংবাদিকদের বলেন, মাদরাসার জন্য জমি দিয়ে হামেদ গাজী ওই মাদরাসায় তার নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখার চেষ্টা করেছেন।

লতাচাপলী ইউপি চেয়ারম্যান আনছার উদ্দিন মোল্লা বিরোধ সংক্রান্ত অভিযোগ অস্বীকার বলেন, হামেদ গাজী মাদরাসার জন্য জমি দেয়ার কথা বললেও এখন দিতে চাচ্ছেন না। তাই মাদরাসাটি অন্য জায়গায় স্থানান্তর করা হয়েছে।

এ বিষয়ে মহিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুজ্জামান সাংবাদিকদের বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়েছি। তবে কোনো পক্ষ লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :