বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

পা দিয়ে লিখে জিপিএ-৫ পেয়েছে বরিশালের মুক্তামনি

Print Friendly, PDF & Email


শামীম আহমেদ :: দুটি হাত না থাকার পরেও অদম্য ইচ্ছাশক্তি আর চেষ্টায় পা দিয়ে লিখেই প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে জিপিএ-৫ অর্জন করেছে ১২ বছরের মুক্তামনি। শুধু পরিবার নয়; বরিশালের হিজলা উপজেলার পূর্ব পত্তণীভাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও মুক্তামনিকে নিয়ে এ বিজয়ের স্বপ্ন দেখেছিলেন। মুক্তামনিকে নিয়ে পত্রিকার গত ২৪ নভেম্বর একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

মুক্তামনির বিদ্যালয়ের প্রধানশিক্ষক নাছিমা খানম বুধবার সকালে বলেন, অবশেষে আমাদের সকল শিক্ষকের স্বপ্ন বাস্তবে রূপ নিয়েছে। মুক্তামনি পিএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। আমরা আশাকরি সামনের দিনগুলো তার আরও ভালোভাবে কাটবে এবং ভবিষ্যত তার উজ্জল হবে।

তিনি বলেন, ফলাফল পাওয়ার পর মুক্তামনি ও তার পরিবারের সাথে কথা হয়েছে। রেজাল্ট ভালো করায় তারা যেমন খুশি হয়েছেন তেমনি এখন বৃত্তি পাওয়ার আশা করছেন। মুক্তামনির পরীক্ষা শেষ হওয়ার দুইদিন পর তার গ্রামের একমাত্র আশ্রয়স্থল দাদী মারা যাওয়ায় এখন সে (মুক্তা) তার মায়ের সাথে ঢাকার রয়েছে। সেখানে সাভারের একটি স্কুলেও ভর্তি হয়েছে মুক্তামনি।

প্রধান শিক্ষক জানান, তার বিদ্যালয় থেকে এবার ১৪ জন শিক্ষার্থী পিইসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছিলো। তাদের মধ্যে মুক্তামনির দুটি হাত না থাকায় সে পা দিয়েই লিখেছে। অন্যান্যদের চেয়ে মুক্তার লেখা অনেক সুন্দর। আর ১৪ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে মুক্তা একাই জিপিএ-৫ পেয়েছে।

তিনি (প্রধান শিক্ষক) আরও জানান, মুক্তামনি এতোটাই ভালো ছাত্রী যে, সে কখনো বিনাকারণে স্কুলে অনুপস্থিত থাকেনি। সে নিজের যেকোনো সমস্যা খাদিজা বেগম নামের এক শিক্ষিকার সাথে আলোচনা করে নিতো।

সূত্রমতে, শুরুতে মুক্তামনি গ্রামেই থাকতো। তার মা ঝুমুর বেগম জীবিকার তাগিদে সাভারে বসবাস করে গার্মেন্টসে চাকরি করেন। দুই বছর আগে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়াকালীন সময় মুক্তামনি ঢাকার সাভারে যায়। সেখানেই বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে মুক্তামনি তার দুই হাত হারিয়েছে। চিকিৎসার প্রয়োজনে প্রথমে কনুই থেকে দুটি হাত কেটে ফেলা হলেও ক্ষত ঠিক না হওয়ার একপর্যায়ে পুরোপুরি দুটো হাতই শরীর থেকে কেটে ফেলা হয়েছে।

পরবর্তীতে পত্তনীভাঙ্গা গ্রামে দাদী জাহানারা বেগমের কাছে থেকে ধীরে ধীরে সুস্থ্য হয়ে উঠলে পুনরায় পড়াশোনা করতে চায় মুক্তামনি। তার ইচ্ছেতেই ২০১৮ সালে বাবা সেন্টু মিয়া ও মা ঝুমুর বেগম পূর্ব পত্তণীভাঙ্গা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণিতে ভর্তি করে মুক্তামনিকে।

সূত্রে আরও জানা গেছে, দুই হাত হারিয়ে নতুন স্কুল জীবনের শুরু থেকেই ডান পায়ের আঙ্গুলের ফাঁকে কলম দিয়ে লেখার অভ্যাস করতে থাকে মুক্তামনি। আর এখন হাতে লেখা যে কারো মতো স্বাভাবিক গতিতেই পা দিয়ে অনায়াসে সে লিখে যেতে পারে। মুক্তার চিকিৎসাসহ আরও এক বোনের পড়াশোনার খরচ চালিয়ে যেতে হিমশিম খাচ্ছে তার হতদরিদ্র পরিবার। তবুও মেয়েদের উচ্চশিক্ষিত করতে চান তার মা। মুক্তামনির স্বপ্ন একদিন সে শিক্ষক হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *