বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

পিরোজপুরে আ. লীগ কার্যালয়ে বিএনপির হামলা-ভাঙচুর: ককটেল উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪

পিরোজপুর প্রতিনিধি ::: পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে সুটিয়াকাঠি ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে হামলা ও ভাঙচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে।

বুধবার (৭ ডিসেম্বর) রাতে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় হামলাকারীরা ওই কার্যালয়ের সামনে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটায় বলেও অভিযোগ ওঠে। ভাঙচুর করা কার্যালয়ের সামনে থেকে চারটি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

হামলায় ওই ইউনিয়নের কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামিম হাসান, যুবলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য মো. রাজু ও ছাত্রলীগ নেতা মো. সোহাগ নামের তিনজন আহত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের পর পুলিশ মামলার এজাহার নামীয় চার আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- সুটিয়াকাঠি ইউনিয়ন বিএনপির সদস্য মো. মিলন (৪০), স্বরূপকাঠি সদর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহসভাপতি মো. মুরাদ (২৩), উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক সাকিল আহম্মেদ (৩৮) ও বলদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির নেতা মো. জাফর মিয়া (৩৬)। বৃহস্পতিবার দুপুরে গ্রেপ্তারকৃতদের পিরোজপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সুটিয়াকাঠি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রুহুল আমিন অসিম জানান, বুধবার রাতে বিএনপির শতাধিক নেতাকর্মীর একটি দল বিএনপি জিন্দাবাদ, খালেদা জিয়া জিন্দাবাদ, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই, চলো চলো ঢাকা চলো স্লোগানে মিছিল করে ওই কার্যালয়ে এসে কয়েকটি ককটেল ফাটিয়ে হামলা করে ভাঙচুর চালায়। এ সময় হামলাকারীরা ওই কার্যালয়ে থাকা ইউনিয়ন কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামিম হাসান, যুবলীগ নেতা ও ইউপি সদস্য মো. রাজু ও ছাত্রলীগ নেতা মো. সোহাগকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করেন। আহতদের চিৎকারে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এগিয়ে এলে হামলাকারীরা ওই স্থান ত্যাগ করেন। খবর পেয়ে নেছারাবাদ থানার ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ ওই স্থানে গিয়ে অবিস্ফোরিত অবস্থায় চারটি ককটেল, লোহার পাইপ ও বেশ কিছু কাঠের লাঠিসোঁটা উদ্ধার করে। এ ঘটনায় বুধবার রাতে সুটিয়াকাঠি ইউনিয়নের কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শামিম হাসান বাদী হয়ে নেছারাবাদ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে নেছারাবাদ থানার ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেন জানান, ঘটনার পরপরই সংবাদ পেয়ে ওই এলাকায় পুলিশ নিয়ে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি। এ ব্যাপারে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মামলার এজাহারনামীয় চারজন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশি অভিযান অব্যাহত আছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp