পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে খাজনা আদায়কারী সংস্থারূপে: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে পরিণত হয় যে করণে! | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে খাজনা আদায়কারী সংস্থারূপে: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে পরিণত হয় যে করণে! পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে খাজনা আদায়কারী সংস্থারূপে: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে পরিণত হয় যে করণে! – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম
পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে খাজনা আদায়কারী সংস্থারূপে: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে পরিণত হয় যে করণে! – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে খাজনা আদায়কারী সংস্থারূপে: আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে পরিণত হয় যে করণে!

প্রকাশ: ৪ অক্টোবর, ২০১৯ ৬:১৮ : অপরাহ্ণ

সোহেল সানি : রাজার কতিপয় রাজকর্মচারী ও রাজ্যরক্ষাকারী সেনাবাহিনীর কর্মচারীদের একাংশের সমন্বয়ে পৃথিবীতে পুলিশের জন্ম ১৭১৪ সালে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হয়ে ওঠার ঘটনা আরও পরের ইতিহাস।

স্কটল্যান্ড পুলিশের উদ্ভাবক এবং আত্মপ্রকাশকারী পৃথিবীর প্রথম কোন রাজ্য। ভারত উপমহাদেশের সর্ববৃহৎ প্রাদেশিক  বাংলা হলো পুলিশ পদ্ধতির প্রবর্তনকারী প্রথম রাজ্য। ১৮৭২ সালে ব্রিটিশ সম্রাজ্ঞী রানী ভিক্টোরিয়ার ভারত রাজত্বের ১৫ বছরের মাথায় তাঁরই পরামর্শে লর্ড কর্ণওয়ালিশ বাংলা, বিহার ও উড়িষ্যায়  পুলিশ পদ্ধতি প্রবর্তন করেন। প্রজাদের কাছ থেকে খাজনা সংগ্রহ করাই ছিল একমাত্র কাজ। অর্থাৎ রাজস্ব বা খাজনা আদায়কারী সংস্থা হিসাবেই এর আত্মপ্রকাশ। পরবর্তীতে ভারতের তৎকালীন আটটি প্রদেশেই পুলিশ সংস্থা গড়ে তোলা হয়।

শব্দার্থে পুলিশ 

পুলিশ কথাটার প্রথম পরিচয় পাওয়া যায় ১৭১৪ সালে। ‘স্কটল্যান্ড কমিশনার অব পুলিশ’ পদের প্রবর্তনের মাধ্যমে।
গ্রীক শব্দ Polis থেকে Police শব্দটি উদ্ভূত বা গৃহীত।
যে শব্দের বর্ণার্থে একটি বেসরকারী সংস্থা। বর্তমানে এর প্রতি শব্দ ধরে পুলিশ কথাটার বিশিষ্ট সত্তা আবিস্কৃত হলেও ব্রিটিশ কর্তৃক প্রণীত দন্ডবিধি আইন অনুযায়ী চলছে।
‘খৃষ্টপূর্ব ৬৩ সালে রোম সম্রাট অগাষ্টাস ও ফ্রান্সের পঞ্চম চার্লস তাদের রাজত্বকালে পুলিশ বাহিনীর প্রবর্তন করেন।
লর্ড কর্ণওয়ালিশ ১৮৭২ সালের ৭ ডিসেম্বর “Regulations for the Police of the Collectorships in Bangla, Behar and Orissa” আইন পাশ করা হয় বৃটেনের পার্লামেন্টে।
পুলিশ সংস্থা প্রবর্তনের পর তাকে জেলা কালেক্টরের অধীনে নিয়োজিত করা হয়। প্রজাদের কাছ থেকে খাজনা আদায় করে বৃটেনের সমৃদ্ধির উদ্দেশ্যে।
ব্রিটিশ রাজের দালাল হিসাবে ইংরেজ কালেক্টররা পুলিশ দিয়ে অতিরিক্ত খাজনা আদায়, প্রজা বিদ্রোহ দমন ,জনপীড়ন দেশবাসীকে শোষণ চালায়।পরবর্তীতে কালেক্টররা বিচারিক ক্ষমতাও লাভ করেন। অর্থাৎ কালেক্টররা ম্যাজিস্ট্রেট পদের অধিকারী হন।
অথচ, ভারত বর্ষের পুলিশ এবং বৃটেনের পুলিশ ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত চরিত্রের। অসঙ্গতিপূর্ণ ব্যবস্থা ফল আজ ও বাঙালি সমাজে বিরাজমান। ১৯৪৭ সালে ব্রিটিশরা স্বাধীনতার দাবি মেনে নিয়ে ভারতবর্ষকে দু’টুকরো করে দিয়ে চলেগেলেও তাদের আইন ছাড়া চলতে পারেনি ভারত বা পাকিস্তান। এমনকি ১৯৭১ সালে পুলিশের মুক্তিযুদ্ধ বিশিষ্ট অবদান রাখলেও স্বাধীনতাত্তোর বাংলাদেশ পুলিশ জনগণের আস্থা সৃষ্টি করতে পারেনি।  বরং নানাভাবে বিতর্কিত তারা। প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন ঘটলেও মন মানসিকতায় বিরাজ করছে রাজতান্ত্রিকতার প্রভাব। ফলে স্বাধীনতার পরেও পুলিশ জনগণের বন্ধু হয়ে উঠতে পারেনি।
আদি সাম্যবাদী সমাজের পুলিশ এবং বর্তমান পুলিশ এক নয় । না কর্মে, না রূপে, না স্বভাবে, না আচার আচরণে।
রাজার রাজস্ব সংগ্রহকারী রাজকর্মচারী এবং রাজ্য রক্ষায় নিয়োজিত সৈন্য বাহিনীর কর্মচারীদের একাংশ থেকে পুলিশের সৃষ্টি হয়। যখন মানুষ অরণ্য চারী ছিল, কেবল আহারের তাড়নায় যথেচ্ছা ভবঘুরে, যখন সমাজ বা রাষ্ট্র গড়ে ওঠেনি , তখন পুলিশ বা অন্য কোন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর  অস্তিত্ব ছিল না।
ক্রমে মানুষ খাদ্য ও অন্যান্য দ্রব্যাদি প্রয়োজনের অধিক উৎপাদন করে ভবিষ্যতের জন্য মজুতের সুযোগ পেয়ে বসলো, তখনই শোষক শ্রেনীর উদ্ভব ঘটে। সবলের দ্বারা দুর্বল আঘাত প্রাপ্ত হলো। অর্জিত ভূমিদখল ফসল ও সম্পত্তি হরণ করে শোষণের যাঁতাকলে পিষ্ট হতে থাকলো শোষিতরা।
ওই বিরাজমান বৈষম্যমূলক অস্থিরতার ব্যক্তিগত সম্পত্তি রক্ষার তাগিদে সমাজের মধ্যে কতগুলো বিধিনিষেধ আরোপের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয় ।
আইন প্রণয়ন ও প্রয়োগের অর্থ কোন খামখেয়ালীপনা নয়, বরং জনগণের ইচ্ছার প্রতিফলন। আইনসভার মাধ্যমে কতিপয়  আইন পাশ করলেও আইন প্রয়োগ-বাস্তবায়ন পুলিশের দায়িত্ব। কিন্তু পুলিশ সম্পর্কে জনমনে বিরাজমান ভ্রান্ত ধারণার প্রতিকার ছাড়া জনগণ ও পুলিশের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক অবশ্যই একটা কল্পনা প্রসূত ব্যপার হয়ে থাকছে। পুলিশের সাবেক আইজিপি এসএম হায়দারের মতে, অপরাধ উদ্ঘাটনে কতিপয় সমস্যা বিরাজমান। পুলিশের বিরূপ ভাবমূর্তি, প্রভাবশালী রাজনৈতিক মহলের অপরাধীদের অনুকূলে অবস্থান এবং সাক্ষীদের দুর্ভোগ ।
পুলিশ সরকারের প্রতিনিধি মাত্র। সরকার রাষ্ট্রের অংশ। রাষ্ট্র হচ্ছে জনগণের কাছ থেকে ক্ষমতাপ্রাপ্ত এক সমাজ ব্যবস্থা । ফলত: সবকিছুর মূলে সমাজ ব্যবস্থা যার সদস্যরা তাকে সার্বভৌম ক্ষমতার অধিকারী করেছে ।
পুলিশ আইন ১৮৬১ সালের ২৩ ধারা অনুযায়ী পুলিশের কর্তব্যঃ  সর্বসাধারণের শান্তি রক্ষা সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহকরণ এবং সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ অবহিতকরণ। কোন অপরাধ সংঘটন বা এরূপ আশঙ্কা দেখা দিলে অপরাধ প্রতিরোধ বা নিবারণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ। অপরাধের প্রকৃত রহস্য উদ্ঘাটন করা। আইনসঙ্গতভাবে গ্রেফতারযোগ্য ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা। অপরাধীকে গ্রেফতারের চব্বিশ ঘন্টার মধ্যে আদালতে সোপর্দ করা। সর্বসাধারণের বিরক্তি উদ্রেককর কার্য অর্থাৎ পাবলিক ন্যুইসেন্স নিবারণ করা। ১৪১ নং বিধি মোতাবেক পুলিশ গ্রেফতারের ক্ষেত্রে যা করবেনঃ
ফৌজদারী আইনের ৫৭ (১) ধারা অনুযায়ী গ্রেফতার বৈধ হতে হবে। ১৮৬১ সালের ৩২ ধারা অনুযায়ী তা আমলযোগ্য  অপরাধ হতে হবে। কোন ম্যাজিস্টেট উপস্থিতিতে ফৌজদারি কার্যবিধি ৬৪ ধারার অধীনে আটকাদেশ জারি করতে হবে। ২০৮ নং বিধি মোতাবেক থানার কনস্টেবলদেরকে গ্রেফতারী পরোয়ানা কার্যকরীকরণ, এসকর্ট ও পাহারাদার, বিপজ্জনক পথসমুহ  ও অন্যান্য এলাকার পাহারাদানের দায়িত্বে নিয়োগ করা যেতে পারে। উদ্বর্তন কর্মকর্তার  আদেশক্রমে দাঙ্গা ও গোলযোগ দমনের জন্য ও তাদের নিয়োগ করা যায় ।

বিবিধ বিষয়ে
এজাহার গ্রহণ ও লিপিবদ্ধকরণ, তল্লাশি পরিচালনা, সন্দেহভাজন ব্যক্তি সনাক্তকরণ, পুলিশ ও জনগণের মধ্যে সম্পর্ক যা হবার কথা পুলিশের ব্যবহৃত প্রযুক্তি কৌশল  ফটোগ্রাফি, লাই ডিরেক্টর, অস্ত্র পরীক্ষা, বর্ণালী বিশ্লেষণ পদ্ধতি,  মাইক্রোস্কোপের ব্যবহার, রাসায়নিক বিশ্লেষণ ও রক্ত পরীক্ষা ও ক্যাস্টি পদ্ধতি,আঙ্গুল ছাপ, বার্টিলন সনাক্তকরণ ইত্যাদি নিয়ে বিস্তারিত পর্যালোচনা করা হবে পরবর্তী কিস্তিতে।

প্যারোলে মুক্তি   ঐতিহাসিক বিবর্তন 

বিভিন্ন সংশোধন পদ্ধতির মতো প্যারোলে মুক্তি ব্যবস্থার উৎস  অতি প্রাচীন। শাস্তির মেয়াদ শেষ হবার আগেই একজন আসামী বা কয়েদীকে শর্তাধীনে মুক্তি দেয়ার প্রক্রিয়াকে প্যারোল বলা হয়। প্রাচীন কালে অপরাধীদের ক্ষমা প্রদর্শন, শর্তাধীনে নির্বাসন পদ্ধতিগুলো প্যারোলের বিবর্তনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট।
সপ্তদশ শতাব্দীতে আমেরিকার উপনিবেশগুলোতে ইংল্যান্ডের রাজা আদালতের সুপারিশে অভিযুক্ত অপরাধীদের শাস্তি সাময়িক স্থগিত করে বিভিন্ন উপনিবেশে ঠিকাদারদের  অধীনে নিয়োগের আদেশ জারি করেন। নির্বাসিত শাস্তিপ্রাপ্ত  অপরাধীদের মধ্যে অবশ্য উল্লেখযোগ্য সংখ্যক পলায়ন করে। আত্মগোপন অবস্থা থেকে তারা ইংল্যান্ডে প্রত্যাবর্তনের চেষ্টা করে। এই অবস্থার প্রেক্ষিতে শর্তভঙ্গকারী অপরাধীদের পুনরায়  কারাগারে অন্তরিত করা হয।
১৭৭০ সালে ক্যাপ্টেন কুকের অস্ট্রেলীয়া আবিস্কারের ১৮ বছর পর  ইংল্যান্ডের অপরাধীদের উপনিবেশগুলোতে স্থানান্তরিত করা হয়। অভিযুক্ত সেসব অপরাধীদের সরকারি এবং ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের অধীনে কাজ করে জীবনজীবিকা নির্বাহ করতো।
১৭৯০ সালে অস্ট্রেলীয়ার গভর্নর কর্তৃক সকল অপরাধীকে মুক্তি দিয়ে বসবাসের জন্য তাদের জমিদান করেন। ১৮২১ সালে ‘টিকেট  অব লিভ’ নামক এক দলিলের শর্তাধীনে সরকারি কাজে অব্যাহতি নিয়ে যেকোন অঞ্চলে বা জেলায় কর্মে নিযুক্ত হতে পারতো।
ক্যাপ্টেন আলেকজান্ডার মেকোনোচি প্যারোল পদ্ধতির বিবর্তনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। তিনি অস্ট্রেলীয়া পূর্বাঞ্চল নরফোক দ্বীপের গভর্নর ছিলেন ১৮৪০ থেকে চার বছর পর্যন্ত।
নির্বাসিত অপরাধীদের কল্যাণের জন্য গ্রেডিঙ্গ ব্যবস্থার প্রবর্তন করেন। ভাল আচরণ ও কর্ম ইচ্ছুক অপরাধীদের চারটি স্তর  অতিক্রম করে নিজের অবস্থান নির্ধারণ করার সুযোগ পায় । (১) সরকারি চাকরি লাভ (২) পূর্ণ স্বাধীনতা (৩) আংশিক স্বাধীনতা (৪) সরাসরি জেলে থাকা।
ওয়াল্টার ক্রফটন আয়ারল্যান্ডেও এই পদ্ধতি গ্রহণ করেন। ইংল্যান্ড ও আয়ারল্যাল্ড অপরাধীদের ক্ষেত্রে অস্ট্রেলীয় পদ্ধতি প্রয়োগ করে ১৮৫৩ সালে The English Penal Servitude Act পাশ করে। এই আইন পাশ হবার পরের বছর ক্রফটনকেই আযারল্যান্ডের কারা প্রধান নিয়োগ করা হয়।
আমেরিকাও এই পদ্ধতি প্রয়োগ করে।
১৮৬৪ সাল স্থাপিত প্রিজনারস এইড সোসাইটির এজেন্টরা মুক্ত  অপরাধীদের তত্ত্বাবধান করেন কর্ম সংস্থান ব্যবস্থা করাটাও মূলত ক্রফটনের পদ্ধতির আলোকে করা হয়। উনিশ শতকে স্টেট গভর্নর অপরাধীদের সাধারণ ক্ষমা করার অধিকার প্রয়োগ করেন। ইংল্যান্ড রাজার বিশেষ অধিকারের সঙ্গেই যা তুলনীয়।
এই জন্য একটি উপদেষ্টা মন্ডলীর সুপারিশ কারী বোর্ডের প্রবর্তন করলেও কোন বাধ্য বাধকতা ছিল না। ১৮১৭ সালে সর্বপ্রথম নিউইয়র্ক এলমিরা রিফরমেটরীতে শাস্তির  এক চতুর্থ অংশ মওকুফ করার এখতিয়ার দেয়া হয় জেল ইন্সপেক্টরদের। প্যরোল আইন পাশ করে তা কার্যকর করা হয় টেনেসি, ওহাইও সহ ১৯২১ সাল নাগাদ আমেরিকার ৪৪ টি রাজ্যে। এলমিরা রিফরমেটরীর প্রতিষ্ঠাতা জে আর ব্রকওয়ে।

 লেখক– সোহেল সানি, সিনিয়র সাংবাদিক কলামিস্ট,


সকল নিউজ