বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ঝালকাঠির সাবেক মেয়রের স্ত্রীকে সাক্ষাৎ করিয়ে দিতে ‘৭ লাখ টাকায় চুক্তি’!

Print Friendly, PDF & Email

মোঃ নজরুল ইসলাম, ঝালকাঠি প্রতিনিধি :: প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে প্রবেশ করানোর কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়া চক্রের মূল হোতা মোঃ ফয়সাল হোসেন (৩৪) কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ।

পুলিশ জানায়, গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর গণভবনে প্রবেশ করার জন্য ঝালকাঠি থেকে আসেন শামসুন্নাহার। তিনি ঝালকাঠি জেলার সাবেক মেয়র আফজাল হোসেনের দিত্বীয় স্ত্রী। পরে এই প্রতারক চক্রটি গণভবনের সামনে থেকে শামসুন্নাহারকে ডেকে নিয়ে যান তারা। পরে তাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করানোর কথা বলে ৭ লাখ টাকা চুক্তি করে চক্রটি।

পরে গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর ও চলতি বছরের ২ জানুয়ারি পর্যন্ত চক্রটি শামসুন্নাহারের কাছ থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। পরে ২ জানুয়ারি তাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের ব্যবস্থা করে দেয়ার আগে তার সব গহনা নিয়ে নেয়। এরপরই শামসুন্নাহার শেরে-বাংলা থানায় অভিযোগ করেন। এই অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার গভীর রাতে পল্লবী থেকে চক্রের মূলহোতা ফয়সাল হোসেনকে গ্রেফতার করেন শেরে বাংলা নগর থানা পুলিশ।

ভুক্তভোগী শামসুন্নাহার জানান, আমি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য ঝালকাঠি থেকে ঢাকায় আসি। পরে ২৩ ডিসেম্বর গনভবনের সামনে আসলে তারা আমাকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার কথা বলে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করে। আমি তাদের ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা দেই। তারপরও আমাকে টাকা দেয়ার জন্য চাপ দিতে থাকে। আমি টাকা দিতে না চাইলে আমাকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিতে থাকে। পরে আমি বিষয়টি শেরেবাংলা নগর থানায় জানাই।

শুক্রবার রাতে অভিযুক্ত ফয়সাল হোসেনকে থানা পুলিশ গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃত ফয়সাল হোসন গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া থানার বন্নি গ্রামের মৃত ওমর আলী শেখের ছেলে।

শেরেবাংলা নগর থানার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক সুজানুর ইসলাম জানান, শামসুন্নাহারের অভিযোগের ভিত্তিতে শুক্রবার গভীররাতে পল্লবী থেকে প্রতারক ফয়সালকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এ ঘটনায় শেরেবাংলা নগর থানায় একটি মামলা (মামলা-০৩) করা হয়েছে।

শেরেবাংলা নগর থানার ওসি (তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ জানান, মামলার বাদীর তথ্যের ভিত্তিতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পল্লবী থানা এলাকা হতে ফয়সালকে গ্রেফতারর করা হয়।

এই ব্যাপার ফয়সালসহ কয়েজনকে আসামী করা হয়েছে। তা নিয়ে গ্রেফতারকৃত ফয়সালকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তার সঙ্গে কে কে জড়িত তা জানতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

উল্লেখ্য সাবেক পৌর মেয়র প্রথমে সামসুন্নাহারকে পৌরসভায় চাকুরী দেন পরে তাকে বিবাহ করে এ নিয়ে ঝালকাঠিতে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচানার ঝড় ওঠে। এর আগেও দুই সন্তানের জননী শামসুন্নাহার এর সাথে তার সাবেক স্বামীর বিবাহ বিচ্ছেদ হলে পৌর মেয়র আফজাল হোসেন তাকে বিবাহ করে। তবে বিবাহ নিয়েও নানা বিতর্ক সৃষ্টি হয়।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *