প্রধান শিক্ষক ফারুক খান এখন মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক! | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – প্রধান শিক্ষক ফারুক খান এখন মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক! প্রধান শিক্ষক ফারুক খান এখন মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক! – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

প্রধান শিক্ষক ফারুক খান এখন মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক!

প্রকাশ: ২৩ জুলাই, ২০১৯ ৯:১৬ : অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালের হিজলা উপজেলায় সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সরাসরি দলীয় রাজনীতিতে জড়িয়েছেন পশ্চিম চর বাউশিয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুবক্কর সিদ্দিক খান ওরফে (ফারুক খান)। তিনি নিজের শিক্ষকতা পেশার কথা গোপন রেখে বিএনপি’র অঙ্গ সংগঠন সৎস্যজীবী দল বরিশাল উত্তর জেলা কমিটির আহ্বায়ক পদে থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এমনকি সরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করে নিজ বাসায় চলে তার সরকার বিরোধী গোপন বৈঠক। যথা সময়ে স্কুলে পেশাগত দায়িত্ব পালন না করে বরং দলীয় রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত থাকছেন তিনি। ফলে ওই স্কুলটির শিক্ষা ব্যবস্থা মারাক্তকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে অভিযোগ শিক্ষক এবং অভিভাবকদের।

তবে তার বিরুদ্ধে এত বর অভিযোগের বিষয়টি জানা নেই হিজলা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার। যদিও এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট প্রমান পেলে তদন্তপূর্বক তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের কথা জানিয়েছেন ওই শিক্ষা কর্মকর্তা। তবে অভিযোগ উঠেছে, বরিশালের ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী এক ব্যক্তির নিকটাত্মীয় হওয়ায় প্রধান শিক্ষক আবুবক্কর সিদ্দিক খান ওরফে (ফারুক খান) এর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, শিক্ষক আবুবক্কর সিদ্দিক খান ওরফে ফারুক খান দীর্ঘ দিন ধরেই বিএনপি’র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। শিক্ষকগতার ক্ষেত্রে তিনি আবুবক্কর সিদ্দিক খান নাম ব্যবহার করলেও সুচতুর এই ব্যক্তি পূর্ণ নাম গোপন রেখে রাজনৈতিক অঙ্গনে ফারুক খান নামে পরিচিতি লাভ করেছেন। এই নাম ব্যবহার করেই বিগত সময় বরিশাল উত্তর জেলা বিএনপি’র সহ ছাত্র বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। সর্বশেষ গত মাসে আবুবক্কর সিদ্দিককে আহ্বায়ক করে গঠন করা হয়েছে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট বরিশাল উত্তর জেলা মৎস্যজীবী দলের কমিটি। এমনকি নিজের অনুসারীদের নিয়ে মৎস্যজীবী দলের কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছ থেকে ঢাকায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যাল বসে নিজের আহ্বায়ক কমিটির কাগজ গ্রহন করেন শিক্ষক আবুবক্কর সিদ্দিক ওরফে ফারুক খান।

এদিকে মৎস্যজীবী দলের নতুন কমিটি গঠনের বিষয়ে সোস্যাল মিডিয়ায় প্রকাশের সাথে সাথে বেরিয়ে আসে ফারুক খানের আসল চেহারা। অভিযোগ উঠেছে, সরকার বিরোধী কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তার নিজ বাসাকেই সাংগঠনিক কার্যালয় হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। যেখানে কেন্দ্র থেকে শুরু করে উপজেলা বিএনপির নেতা কর্মিরা সরকার বিরোধী গোপন বৈঠকে মিলিত হচ্ছে। শিক্ষকগতার আড়ালে মৎস্যজীবী দলের এই নেতার বাসায় হওয়া কেন্দ্রীয় নেতাদের গোপন বৈঠকের ছবিও রয়েছে এই প্রতিবেদকের কাছে। তবে এত কিছুর পরেও বহাল তবিয়তেই থেকে যাচ্ছেন সুচতুর এই শিক্ষক।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে আবুবক্কর সিদ্দিক খান ওরফে ফারুক খান বলেন, আমি কোন স্কুলে চাকরি করিনা। আপনি প্রয়োজনে এটিও’র সাথে কথা বলতে পারেন। একথা বলে লাইনি কেটে দিয়ে ফোন বন্ধ করে রাখেন। এর এক ঘন্টা পরে অপর একটি নম্বর দিয়ে পুনরায় কল দিলে তিনি বলেন, ভাই আমি শিক্ষক না, এরপর প্রতিবেদক এটিও’র কথা বললে তিনি কিছুক্ষন চুপ করে থাকেন। এরপর শুরু করেন প্রতিবেদককে ম্যানেজ প্রক্রিয়া। এমনকি নিজেকে একজন সংবাদ কর্মি দাবী করে বরিশাল থেকে প্রকাশিত একটি পত্রিকার সম্পাদকের দোহাই দিয়ে চেপে যাওয়ার জন্য বলেন।

এবিষয় হিজলা উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. রিয়াজ বলেন, ফারুখ খান নামে একজন প্রধান শিক্ষক আছে, যার বাসা উপজেলার টেকের বাজারে। তবে তিনিই পশ্চিম চর বাউশিয় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবুবক্কর সিদ্দিক খান কি না তা খোঁজ না নিয়ে বলা যাচ্ছে না। বিষয়টি সম্পর্কে খোঁজ খবর নিয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করবেন বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

হিজলা উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আব্দুল গফ্ফার বলেন, আমি হিজলা এসেছি অল্পসময় হয়েছে। তাই বিষয়টি আমার জানা নেই। প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কোন শিক্ষকের সরাসরি রাজনীতি করার কোন বিধান নাই। তাই অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখার কথা বলেন তিনি।

বরিশাল জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা লতিফ মজুমদার বলেন, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের রাজনীতি করার কোন সুযোগ নেই। তার পরেও যদি কোন শিক্ষক দলীয় পদ পদবি নিয়ে রাজনীতি করে তবে সেটা গুরুত্বর অপরাধ। তাই অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে দেখবেন বলে জানিয়েছেন এই কর্মকর্তা।