বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

প্রেসক্লাব ভবনে এসে সাবেক এমপি বদির কাণ্ড

অনলাইন ডেস্ক :: সরকার দলীয় এমপি থাকাকালীন সরকারি কর্মকর্তা, রাজনীতিবিদ শিক্ষকসহ বিভিন্ন জনের গায়ে হাত তুলে এবং নানা অপকর্মে দেশব্যাপী পরিচিতি পেয়েছিলেন টেকনাফের আবদুর রহমান বদি। সবচেয়ে সমালোচিত হন ইয়াবা গডফাদার হিসেবে। এসব কারণে হারিয়েছেন দলের মনোনয়ন।

তবে হাতছাড়া করেননি এমপিত্বের স্বাদ। স্ত্রী শাহিনা চৌধুরীকে নৌকা প্রতীকে এমপি বানিয়ে আড়ালে থেকে ক্ষমতা তিনিই (বদি) ব্যবহার করছেন এমন অভিযোগ ১১তম সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই।

এবার তারই প্রমাণ পাওয়া গেলো রোববার (২২ নভেম্বর) দুপুরে। স্ত্রী এমপি শাহিনা চৌধুরীকে সঙ্গে নিয়ে টেকনাফ প্রেসক্লাবের ভবন নির্মাণ কাজে ফিল্মি স্টাইলে বাধা দিয়ে কাজ বন্ধ দেন বদি।

অভিযোগ উঠেছে, প্রেসক্লাব ভবন নির্মাণে তদারকিকারি এনজিও ফোরামের প্রকৌশলী মো. নাঈমকে পিটিয়ে ও শ্রমিকদের তাড়িয়ে নির্মাণ কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন বিতর্কিত সাবেক এ সাংসদ। টেকনাফ পৌরসভার কার্যালয় সংলগ্ন এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সাংবাদিকরা জানান, ১৯৯৬ সালে আবেদনের প্রেক্ষিতে টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন রেজুলেশনের মাধ্যমে থানার সামনে ইদগাহ মাঠ সংলগ্ন একটি পুরনো ভবন টেকনাফ প্রেসক্লাবের নামে হস্তান্তর করে। বছর পাঁচেক আগে ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় সম্প্রতি উপজেলা প্রশাসনের তত্ত্বাবধানে সেটি ভেঙে দাতা সংস্থা ইউএনএইচসিআরের সহযোগিতায় নতুন সেমি পাকা ভবনের নির্মাধ কাজ চলছে। যা এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে।

প্রশাসনিক তদারকিতে এক নম্বর খাস খতিয়ানের জমিতে চলমান নির্মাণ কাজটি কোনো কারণ ছাড়াই রোববার হঠাৎ বন্ধ করে দেন সাবেক এমপি বদি।

ওইদিন নির্মাণাধীন প্রেসক্লাব ভবন এলাকায় আসেন তিনি। গাড়িতে বসা অবস্থায় নির্মাণ কাজ তদারকিতে থাকা এনজিও ফোরামের ইঞ্জিনিয়ার নাঈমকে ডেকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং মারধর শুরু করেন। কাজ বন্ধ করে স্থাপনা সরিয়ে নিতে হুমকিও দেন তিনি (বদি)।

প্রকৌশলী মো. নাঈম বলেন, নির্মাণের কাজ চলাকালীন হঠাৎ নির্মাণাধীন প্রেসক্লাবের ভবনের সামনে একটা গাড়ি এসে থামে। গাড়ির ভেতর থেকে আমাকে ডাকা হয়। গাড়ির পাশে যেতেই গাড়ির ভেতরে বসে থাকা সাবেক এমপি বদি আমার শার্টের কলার চেপে ধরেন এবং প্রেসক্লাবের ভবন নির্মাণের অনুমতি কে দিয়েছে বলে পর পর দুই তিনটি ঘুষি মারেন। মারধরের পর ‘তুই এখানে থাক আমি আবার আসতেছি’ বলে ঘটনাস্থল ত্যাগ করেন বদি।

সাংবাদিকরা জানান, প্রকৌশলী নাঈমকে মারধরের পর পুনরায় প্রেসক্লাব ভবনে আসেন বদি। এবার গাড়ি থেকে নেমেই প্রেসক্লাবের নির্মাণাধীন ভবনের ব্যানারটি টেনে ছিঁড়ে ফেলে দেন। এ সময় পৌর কর্তৃপক্ষকে প্রেসক্লাবের নির্মাণাধীন ভবন ভেঙে ফেলতে উৎসাহিত করেন এবং কিভাবে ভবন নির্মাণ হয় তা দেখে নেয়ার হুমকিও দেন তিনি।

এদিকে এ ঘটনা প্রচার পাওয়ার পর সাংবাদিক সমাজ ফুঁসে উঠেছে। সাবেক এমপি বদির এ ধরনের কাণ্ড মেনে নেয়া হবে না উল্লেখ করে এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান টেকনাফ প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ্ব মো. ছৈয়দ হোছাইন, সাবেক সভাপতি জাবেদ ইকবাল চৌধুরী, সাবেক সহ-সভাপতি মো. আশেক উল্লাহ ফারুকী, সাবেক সভাপতি কায়ছার হামিদ, সাবেক সহ-সভাপতি মো. তাহের নাঈম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক নুরুল করিম রাসেল প্রমুখ।

ন্যাক্কারজনক এ ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে কক্সবাজার রিপোর্টার্স ইউনিটি। এক বিবৃতিতে সভাপতি রাসেল চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক সায়ীদ আলমগীর বলেন, জমির মালিকানা নিয়ে কোনো মতবিরোধ থাকলে উপজেলা প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলা যেত। কারণ উপজেলা প্রশাসনই জমিটি বরাদ্দ দিয়েছে এবং বর্তমানে ভবন নির্মাণ কাজও তাদের সুপারিশে হচ্ছে। তাই নিয়মতান্ত্রিক পন্থায় না হেঁটে সন্ত্রাসী স্টাইলে ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রকৌশলীকে প্রহার ও ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা কোনোমতেই সমীচীন হয়নি।

এ বিষয়ে জানতে সাবেক এমপি আবদুর রহমান বদির ব্যবহৃত মুঠোফোনে একাধিক বার কল করা হয়। রিং হলেও তিনি ফোন না ধরায় বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, প্রেসক্লাবের ভবন নির্মাণে বাধা ও ইঞ্জিনিয়ারকে প্রহার করার বিষয়টি আমিও শুনেছি। তবে এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কেউ থানায় অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলেই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে উল্লেখ করেন ওসি।

এর আগেও এমপি থাকাকালীন ২০১১ সালে কক্সবাজার সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবদুর রহমানকে টেকনাফ পৌর নির্বাচনে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের দায়িত্ব পালনের সময় শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করেন বদি।

একইভাবে ২০১৫ সালে উখিয়া উপজেলা প্রশাসনের মাসিক উন্নয়ন সভা চলাকালে উখিয়া উপজেলা পরিষদের সহকারী প্রকৌশলী মোস্তফা মিনহাজকে মারধর করেন। এছাড়াও স্কুল শিক্ষক, ব্যাংকারসহ অনেকেই সাবেক এমপি বদির হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ আছে।

সে সময় এসব বিষয় নিয়ে দেশব্যাপী নানাভাবে সমালোচিত হন তিনি। ইয়াবা গডফাদার হিসেবে সমালোচিত হওয়ার পর নমিনেশন হারিয়ে আড়ালে আবডালে চলে গেলেও প্রেসক্লাবের ভবন নির্মাণ কাজে বাধা দিয়ে আবার আলোচনায় উঠে এলেন বদি।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :