বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

“ফিরিয়ে দাও আমার ১৯টি বছর”


শামীম আহমেদ ॥ ২০০১ সালের ৫ সেপ্টেম্বর তৎকালীন বিএনপি ও জামায়াতের চারদলীয় জোটের চিহ্নিত ক্যাডারদের প্রথম হামলায় চিরদিনের জন্য পঙ্গুত্ববরণ করেছেন বরিশালের হিন্দুঅধ্যুষিত এলাকা আগৈলঝাড়া উপজেলার সাংবাদিক অপূর্ব লাল সরকার। চলাফেরায় যার খেসারত আজো তাকে দিতে হচ্ছে।

দীর্ঘ ১৯ বছরেও তিনি ভাল কোন কর্মক্ষেত্র খুঁজে পাননি। কোন একমতে যেমন নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থায় চলে তার অভাবের সংসার। তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের একজন সক্রিয় কর্মী। এ কারণেই স্থানীয় বিএনপির চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা কুপিয়ে ও পিটিয়ে তার (অপূর্ব লাল সরকার) ডান পা ভেঙ্গে দিয়েছে। চিকিৎসার জন্য নিজ দল থেকেও তিনি পাননি কোন সুযোগ সুবিধা। ফলে উন্নত চিকিৎসার অভাবে চিরদিনের জন্য পঙ্গুত্ববরণ করেছেন বাংলাদেশের প্রাচীণতম জাতীয় দৈনিক ‘সংবাদ’ পত্রিকার বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা প্রতিনিধি ও স্থানীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি অপূর্ব লাল সরকার।

বিগত ১৯ বছর ধরে ঘুরে ফিরে সেপ্টেম্বর মাস আসলেই তার দুঃসহদিনের বিশাদের কালো অধ্যায় তাকে তাড়া করে। তাইতো তিনি এদিনটাকে “ভয়াল ৫ সেপ্টেম্বর” বলে অভিহিত করেছেন।

এবছর এদিনটিতে নিজের ফেসবুক আইডিতে সাংবাদিক অপূর্ব লাল সরকার হৃদয়বিদারক একটি পোস্ট করেছেন। অসংখ্য ব্যক্তিরা শান্তনামূলক নানা কমেন্টও করেছেন। তার পোস্টের উল্লেখযোগ্য কিছু অংশ তুলে ধরা হলো-“আমার দল পরপর তিনবার ক্ষমতায় এলেও আজ পর্যন্ত কোন মূল্যায়ন পাইনি। পাইনি ন্যুণতম বেঁচে থাকার মতো কোন উপার্জনের পথে যেতে। অথচ অনেকে বিপুল বিত্ত-বৈভবের মালিক হলেও আমার মতো হতভাগার কপালে দু’টাকার সহায়তাও জোটেনি। এখনতো আর অমুক বাবু, তমুক বাবু, তেলওয়ালা বাবুর অভাব নেই। তাই আমার মতো একটা পঙ্গু মানুষকে উপহাস করে যারা উপরে ওঠার ধান্ধায় আছে সেটা কি তাদের চিরদিন থাকবে? আজ তেলওয়ালা সুবিধাভোগিরা বলে বেড়াচ্ছে-আমি নাকি আওয়ামী লীগের কেউ না; তাই যেন থাকি। প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন-তাহলে ওইসময় (২০০১ সালে) চারদলীয় জোটের ক্যাডার ও সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্য দিবালোকে উপর্যুপরি কুপিয়ে ও পিটিয়ে আমার পা ভেঙে দিয়েছিলো কেন?

ওইসময় সারাদেশে সংখ্যালঘুদের উপর হামলা-নির্যাতনের চারদলীয় জোটের নীলনকশা অনুসারে আগৈলঝাড়ার সংখ্যালঘুদের উপর এসব হামলা-নির্যাতন সংঘটিত হয়েছিল। যার প্রথম শিকার ছিলাম আমি। তাও এক দলবদলকারী স্বার্থান্বেষী এক নেতার ইঙ্গিতে। সবশেষে তিনি (অপূর্ব লাল সরকার) উল্লেখ করেন-ফিরিয়ে দে তোরা আমার কর্মময় জীবন। ফিরিয়ে দে তোরা আমার জীবন-যৌবনের ১৯টি বছর। আমি তোদের কাছে আর কিছু চাইনা, চাইবোও না।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *