বখাটেদের উৎপাত : অধঃপতনের চূড়ান্ত পর্যায়ে | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বখাটেদের উৎপাত : অধঃপতনের চূড়ান্ত পর্যায়ে বখাটেদের উৎপাত : অধঃপতনের চূড়ান্ত পর্যায়ে – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বখাটেদের উৎপাত : অধঃপতনের চূড়ান্ত পর্যায়ে

প্রকাশ: ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ৪:৪৭ : অপরাহ্ণ

আহম্মেদ জালাল ::  সামাজিক-সাংস্কৃতিক অবক্ষয়ের ফল বিবিধ। সমাজে মান্যতা-গণ্যতার অভাব তো ঘটেই, অনিয়ম-দুর্নীতির মূলেও রয়েছে অবক্ষয়। বখাটেপনা, নারী-উত্ত্যক্তকরণ,নারী অপহরণ প্রভৃতি অপরাধের ঘটনাও ঘটতে পারে সামাজিক-সাংস্কৃতিক অবক্ষয়জনিত কারণে। দেশে এমন অবক্ষয়ের স্মারক ঘটনা প্রায়ই ঘটছে এবং দিন দিন এহেন বর্বর অসভ্যতা বেড়েই চলছে। নারীর ওপর হামলা, দাহ্য বা বিস্ফোরক দ্রব্য ছুড়ে মারা, নারীকে অপহরণের হুমকি দেওয়া বা অপহরণ করা, শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করা ও হত্যা করার খবর প্রতিদিনই পত্রপত্রিকায় দেখতে পাওয়া যায়। এসব ঘটনায় সমাজে প্রতিক্রিয়া হয়,প্রতিবাদ হয় কিন্তু প্রতিকার হয় খুব কম। নানা অবক্ষয় আমাদের অধঃপতনের চূড়ান্ত পর্যায়ে নিয়ে গেছে। দেশের অনেক স্থানে অনেক মেয়ের জীবন দুর্বিষহ হয়ে পড়েছে, স্বাধীন চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।
পত্রিকায় প্রকাশিত অনুসন্ধানী এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, বখাটের উৎপাতে স্কুলে সকলের প্রিয় পিরোজপুরের রুকাইয়া আক্তার রুপার (১৫) জীবন কেড়ে নিলো। অথচ ওই ইফটিজার দুই বছর পূর্বে রুপাকে উত্যক্ত করে। সেই সময় থানায় অভিযোগ করতে গেলে স্থানীয়দের মধ্যস্থতায় সে (ইফটিজার) অপরাধ স্বীকার করে ভবিষ্যতে এ ধরণের কাজ করবে না বলে মাফ চায়। রুপার বাবা রুহুল মুন্সি সাংবাদিকদের জানান- দুই বছর পর ফের সাম্প্রতিক সময়ে ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটায়। তিনি জানান-গত ৩০ আগস্ট শুক্রবার বাসায় ফিরে ঘটনাটি পরিবারকে জানায় রুপা । এক্ষেত্রে তৎকালীন সময়ে থানার দায়িত্বে থাকা কর্তাদেরও আইনের আওতায় আনা হোক । প্রশ্ন হচ্ছে- কেন একজন ইফিটজারকে চিহিৃত করার পরও তাকে মাফ করে দেয়া হলো ? তখন কী ইফটিজার গোপন বুনিবনায় থানা পুলিশকে ম্যানেজ করে পাড় পেয়ে যায় ? আর শেষ পর্যন্ত বখাটের উত্ত্যক্তকরণে স্কুল ছাত্রী রুপার জীবনই কেড়ে নিলো! সেক্ষেত্রে পুলিশের ভাবমূর্তি উদ্ধার কী তিমিরেই থেকে যাবে ?  ভদ্রবেশি মুখোশ পরিহিত ভদ্রলোক,মানবতার বিপরীতে পথ চলা বিবেকবর্জিত অসাধু, ধান্ধাবাজ,চাঁদাবাজ পুলিশের কারণেই পুরো পুলিশ বিভাগের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে কিনা ? এখনও ডিজিটাল যুগে কোনা কোনো পুলিশ কর্তা নানা কারিশমায় যৌনহয়রানীকারীদের প্রথম দফায় মাফ করে দিয়ে আরো যেনো উৎসাহিত করে ইফটিজিংসহ নানা অন্যায় অপকর্মে উৎসাহিত করছে।
অনুরূপ বরিশাল বিভাগের ঝালকাঠি জেলার নলছিটি থানাধীন কলেজ ছাত্রী দুই বোনকে অব্যাহত যৌনহয়রানী করে আসলেও থানা পুলিশের ভূমিকা চরম প্রশ্নবিদ্ধ। স্থানীয় থানা পুলিশ শুরু থেকেই ইফটিজার ও আশ্রয়প্রশ্রয়দাতাদের সঙ্গে গোপন বুনিবনায় গভীর সখ্যতা রেখে চলছে। উল্টো নানাবিধ কৌশলীপন্থায় ইফটিজার ও ইফটিজারদের শেল্টারদাতাদের উসকে দিচ্ছে। বরিশাল সরকারী মহিলা কলেজের মেধাবী ছাত্রী এবং অপর এক কলেজে পড়ুয়া দু’বোনকে হয়রানীর বিষয়টি বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি’র নখদর্পনে গেলে,তিনি তাৎক্ষনিক ঝালকাঠি জেলা পুলিশ সুপারকে ফোনে হয়রানীর বিষয়টি জানান। একইসঙ্গে ঝালকাঠি পুলিশ সুপারকে ইফটিজার সবুজ ও তার শেল্টারদাতা শাহীনকে পাকড়া করাসহ আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ প্রদান করেন। পুলিশ সুপার বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম মাহমুদ হাসান (সদর সার্কেল)কে দায়িত্ব প্রদান করেন। বিস্ময়কর! পরবর্তীতে ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম মাহমুদ হাসান (সদর সার্কেল) হয়রানীর শিকার কলেজ ছাত্রী দুই বোন এবং ইফটিজার ও তার পরিবারের সদস্যদের সদর সার্কেল অফিসে উপস্থিত থাকার দিনক্ষন নির্ধারণ করেন। ওই নির্ধারিত দিনক্ষন থেকে হয়রানীর শিকার কলেজ ছাত্রী দুই বোন দুই দিন ধরে দিনভর ঝালকাঠি সদর সার্কেল অফিসে উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু অভিযুক্ত ইফটিজারকে আসতে বললেও দু’দিনে আসেনি।
পরের দিন অর্থাৎ তিন দিনের মাথায় ইফটিজার ও তার পরিবারের সদস্যরা সদর সার্কেল অফিসে আসেন। সেদিনও ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এর কথায় দ্রুত কলেজ ছাত্রী দু’বোন বরিশাল থেকে সার্কেল অফিসে উপস্থিত হন। বিচিত্র ! ভাবা যায়? ইফটিজার আসবে,আর দিনভর সদর সার্কেল অফিসে বসে থাকেন হয়রানীর শিকার বিচার প্রার্থী কলেজ পড়ুয়া দুই বোন। অত:পর বিষয়টি প্রথমবারের মতো মাফ করে দেয়ার জন্য বেশ কয়েকবার হয়রানীর শিকার কলেজ ছাত্রী দু’বোনকে কৌশলীপন্থায় এক ধরণের মগজ ধোলাই করেন ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল)এম এম মাহমুদ হাসান। যিনি পুলিশ বিভাগে পেশাগত দায়িত্ব পালনে জনমনে বেশ প্রশংসিত। শত শত লোকের কান্না থামিয়ে মুখে হাসি ফুটিয়েছেন সৎ দক্ষ জনগণের সেবকের ভূমিকায় অবতীর্ন হয়ে জনমনে বেশ প্রশংসিত এক পুলিশ কর্মকর্তা। পেশাগত দায়িত্ব পালনে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে যিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্যান্য উচ্চতায়। অবহেলিত আর নিগৃহিত জনগোষ্ঠীর পাশে দাঁড়িয়ে সকলের ধারণা পাল্টে দিয়েছেন তিনি। কেন যে এই চৌকশ পুলিশ কর্মকর্তা ইফটিজার ও তার শেল্টারদাতাদের বিষয়ে নিরব ভূমিকা পালন করেছেন, এ নিয়ে অভিজ্ঞমহলে নানা প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে। এবং প্রাথমিকভাবে ইফটিজারকে মাফ করে দেয়ার জন্য হয়রানীর শিকার কলেজ ছাত্রী দু’বোনের সন্মতি আদায়ে একাধিকবার তাদেরকে বলেন। বলা হয়- পরবর্তীতে হয়রানীর শিকার হলে বিষয়টি তিনি দেখবেন বলে হয়রানীর শিকার ছাত্রীদের আশ্বস্ত করেন। এবং তোমাদের অর্থাৎ কলেজ ছাত্রীদের জীবনের নিরাপত্তার দায়িত্ব তাঁর (সদর সার্কেল) বলে মন্তব্য করেন।
#সদর সার্কেল অফিস থেকে বাড়ি আসার পর থেকে নানা কায়দায় কলেজ ছাত্রী দু’বোনকে হয়রানী করে আসছে ইফটিজার ও তার শেল্টারদাতারা। পূনরায় হয়রানির বিষয়টিও ঝালকাঠি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এম এম মাহমুদ হাসানকে হয়রানির শিকার বরিশাল মহিলা কলেজে পড়ুয়া ছাত্রী সেল ফোনে অবহিত করেন। আজব! তখন কলেজ ছাত্রীকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার এম এম মাহমুদ হাসান বলেন, সবুজের ফোনতো বন্ধ ।
তাই তোমার ফোনটি সবুজের (ইফটিজার) এর কাছে গিয়ে আমাকে ফােনে ধরিয়ে দেও । কতটা অমানবিক ! গভীর উদ্বগের বিষয় হলো-হয়রানির শিকার কলেজ ছাত্রীর সেল ফােন ব্যবহার করে পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলবে ইফটিজার!! কলেজ ছাত্রী নিজে না গিয়ে সেল ফোনটি অন্য কাউকে দিয়ে ইফটিজারের কাছে পাঠিয়ে দিয়ে বলা হয়-স্যার এই নাম্বারে ফোন দিতে বলছে। খুশিতে অনেকটা নাচতে নাচতে স্যারকে ফোন দিলো ইফটিজার। পুলিশ কর্তা আর ইফটিজার সবুজ স্বল্প সময় কথা বলার পর দম্ভোক্তি প্রকাশ করে যে, স্যার সবসময় আমাদের পক্ষে,কারণ স্যারকে তো আগেই অামি আর চেয়ারম্যান শাহীন ম্যানেজ করে রেখেছি। পূর্ব পরিকল্পিত ছঁক ওরাতো জানেনা। দম্ভোক্তি ইফটিজার প্রকাশ করে যে- এবার ওদের খবর আছে, থানা পুলিশ, জেলা পুলিশ সবই ম্যানেজ ।
#টনকতো নড়ছে না,নড়ছেই না। ওই বখাটে এবং তার শেল্টারদাতা কুখ্যাত মাদক সম্রাট মগড়ে চাউর ঘটাচ্ছে-ঝালকাঠির অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) এর সঙ্গে দেখা করে তাদের গোপন বুনিবনা হয়েছে। এমনকি এলাকায় এমনও চাউর ঘটাচ্ছে যে-বখাটের শেল্টারদাতা এনামুল হক শাহীন(কুখ্যাত মাদক সম্রাট)ঝালকাঠি সদর সার্কেল এর সঙ্গে এক বৈঠকেও মিলিত হয়ে কৌশলীপন্থায় সমাঝোতায় পৌছেছে। পাশাপাশি বখাটে সবুজও সদর সার্কেল এর সঙ্গে দেখা করেছে,আর সদর সার্কেল নাকি বখাটেকে আশ্বস্ত করে বলেছেন-ভয় নেই,সমাধান হয়ে গেছে।
এসব বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্ট গুরুত্বপূর্ন প্রতিষ্ঠান এবং গুরুত্বপূর্ন পর্যায়ে অধিষ্ঠিত ব্যক্তিবর্গের দৃষ্টি দেয়া অত্যাবশ্যাক। পাশাপাশি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়,শিক্ষা মন্ত্রণালয়,পুলিশ বিভাগের আইজিপিসহ শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের যৌনহয়রানী বা ইফটিজার,ইফটিজারদের শেল্টারদাতা,অসাধু পুলিশের বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে না দেখলে জনমনে ভুল বার্তা পৌছে যেতে পারে।
প্রসঙ্গত: কলেজ ছাত্রী দুই বোনকে ঝালকাঠির নলছিটির মগড় ইউনিয়নের ডুবিল গ্রামের মুনসুর আলী হাওলাদারের বখাটে পুত্র সবুজ কর্তৃক যৌণহয়রানী করায় নলছিটি থানায় একটি জিডি করা হয়। যার জিডি নং- ৭৯৪, তারিখ : ২১/০৭/২০১৯। বখাটের পক্ষাবলম্বন করে সেই জিডি তুলে নেয়ার জন্য বার বার কলেজ ছাত্রী ও তার পরিবারকে বিভিন্ন কায়দায় চাপ প্রয়োগ করে আসছে মগড়ের চেয়ারম্যান কুখ্যাত মাদক সম্রাট অসংখ্য অপকর্মের হোতা এনামুল হক শাহীন ও তার অপরাধী চক্র। পাশাপাশি এলাকার কয়েক গ্রাম্য মোড়লও জড়িত। এক্ষেত্রে স্থানীয় থানা প্রশাসনের ভূমিকা চরমভাবে প্রশ্নবিদ্ধ। চেয়ারম্যানের কথামতো জিডি না উঠানোর ফলে গত ২৮ জুলাই ২০১৯ ইং দুপুর ১২ টা ৮ মিনিটে ক্ষিপ্ত হয়ে কলেজ ছাত্রীর সেল ফোনে চরম অসভ্য,বর্বর ভাষায় গালাগাল করে দেখিয়ে দেয়ার হুমকী প্রদান করেন ।
বলাবাহুল্য : ঝালকাঠি জেলার নলছিটির মগড় এলাকার মাদক সম্রাট এনামুল হক শাহীনের বেপরোয়া মাদক বাণিজ্য আর অন্যায় অপকর্মে পুরো সমাজকে ভাবিয়ে তুলেছে। কিন্তু টনক নড়ছে না নলছিটি থানা পুলিশের। তাদের এই উদাসীনতায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি বিতর্কিত হওয়ার পাশাপাশি মানুষের কাছে ভুল বার্তা পৌছে দিচ্ছে। প্রশ্ন হচ্ছে-মাদক নির্মূলে ও যৌন হয়রানীর বিষয়ে কেন এই গাফিলতি। এই প্রশ্নের জবাবও মিলছে। স্থানীয়ভাবে চাউর হয়ে গেছে ‘নলছিটি থানার ওসি সাখাওয়াতের সাথে মাদক সম্রাট শাহীনের মামা-ভাগ্নে সম্পর্ক’। এই সম্পর্ক নিয়েও রয়েছে বিতর্ক। অনেকে বলছেন-এই সম্পর্ক অর্থের বিনিময়ে তৈরি। আবার কেউ বলছে-মাদক বাণিজ্যে আশ্রয়প্রশ্রয় দিয়ে টুপাইস ইনকামের ধান্ধায় মত্ত ওসি সাখাওয়াত। পুলিশের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা বিষয়টি অবগত রয়েছে। তবুও তাদের নির্লিপ্ততা খোদ অভিজ্ঞ মহলকে ভাবিয়ে তুলেছে। কিন্তু সুরাহা মিলছে না-তো মিলছেই না ! সমস্যটা এখানেই গোড়ায়গলধ !! আমরা এভাবে চাই না, চাইবোও না কোনদিন কোন কালেও।
আমরা চাই-পুলিশ জনগণের সেবক। পুলিশ জনগণের জানমালের রক্ষাকবজ হিসেবে কাজ করবে। এই পুলিশ বিভাগের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখাসহ যাতে কোন অসাধু পুুলিশ কর্তাদের কারণে যেনো গোটা পুলিশ বিভাগের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ না হয় ।
পত্রিকায় প্রকাশিত অপর এক প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, এক বখাটের কারণে পঞ্চগড় জেলার সদর উপজেলার চাকলাহাট বঙ্গবন্ধু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক স্কুলছাত্রীর শিক্ষাজীবন পর্যুদস্ত। তার স্কুলে যাওয়াই বন্ধ হয়ে গেছে। কারণ অচেনা এক বখাটে ফোন করে তাকে তুলে নেওয়ার হুমকি দিচ্ছে। ভয়ে প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে স্কুলে যেতে পারছে না সে। ছাত্রীর বড় বোনের মোবাইল ফোনে কল করে ও বার্তা পাঠিয়ে তুলে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। আতঙ্কে বাড়ির বাইরে যেতে সাহস পাচ্ছে না সে। তার পরিবারও আতঙ্কে রয়েছে। এ বিষয়ে ছাত্রীর বড় বোন সম্প্রতি পঞ্চগড় সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন। তাতে বলা হয়েছে, তাঁদের বাড়ি চাকলাহাট ইউনিয়নে। তাঁর বোন চাকলাহাট বঙ্গবন্ধু বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী। বাড়ি থেকে স্কুল দুই কিলোমিটার দূরে।
মাসখানেক আগে তাঁর মোবাইল ফোনে কল করে ও বার্তা পাঠিয়ে তাঁর বোনকে তুলে নেওয়ার হুমকি দেওয়া হয়। কিছুদিন ধরে দু-এক দিন পর পর হুমকি দিচ্ছে এক যুবক। তিনি পরিচয় জানতে চেয়েছিলেন, কিন্তু বখাটে যুবক তার পরিচয় দেয়নি। তার কণ্ঠও পরিচিত বলে মনে হয় না। কথা শুনে বোঝা গেছে, সে তাদের পরিবারের সবাইকে চেনে। আশপাশের কেউ হবে বলে তাঁর ধারণা।
#অপহরণ-হুমকির ঘটনা কম নয়, থানায় অভিযোগও কম দায়ের হচ্ছে না। পুলিশ প্রতিশ্রুতি দেয় বটে, তবে কাজ হয় কমই। কাজ হলে বখাটেপনা, অপহরণ, ধর্ষণ প্রভৃতি ঘটনা কমত; অথচ ঘটনা বাড়ছে। এসব ঘটনা নারীশিক্ষা, নারীর বিচরণ ও অগ্রগতির বিরোধী এবং দণ্ডনীয় অপরাধ। সরকারের গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলো বখাটেপনা,বখাটের উৎপাত নির্মূলে হার্ডলাইনে অবস্থান করছেন।
#আমরা আশা করতে চাই, সারা দেশেই বখাটের উৎপাত বেড়েই চলছে।আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণে উদ্যোগী হবেন। আমাদের প্রত্যাশা সরকারের গুরুত্বপূর্ণ পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানগুলো বখাটেপনা,বখাটেদের উৎপাত নির্মূলে আরো কঠোর অবস্থান নিয়ে যৌন হয়রানীকারীদের ডালপালাও নির্মূল করতে হবে।
______________________________
লেখক : নির্বাহী সম্পাদক ও বার্তা প্রধান,
৭১’র মুখপত্র
‘দৈনিক বিপ্লবী বাংলাদেশ’।