বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালের আলোচিত রিয়াজ হত্যা মামলা তদন্তে সিআইডি

শামীম আহমেদ :: মডেল কোতয়ালী থানাধীন বরিশাল সদর উপজেলা চরমোনাই ইউনিয়নের দুই ওয়ার্ড ইছাগুড়া-রাজগর এলাকার বাসিন্দা দলিল লেখক রেজাউল করীম রিয়াজ আলোচিত হত্যা মামলাটি পূর্ণ তদন্দের জন্য সিআইডিকে দায়ীত্ব দিয়েছেন বরিশাল চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মাসুম বিল্লাহ।

আজ মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) মামলার ধার্য তারিখে হত্যা মামলার প্রধান আসামী আমিনা আক্তার লিজাকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে কয়েকজন ছিচকে চোরকে অভিযুক্ত করে তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা আদালতে চার্জশিট প্রতিবেদন দাখিল করেন। এঘটনায় রিয়াজের বড় ভাই মামলার বাদী মনিরুল ইসলাম রিপন পুলিশের দায়ের করা তদন্তে হত্যা মামলায় ন্যায় বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন। তাই রিয়াজ হত্যা মামলা পূর্ণ তদন্তের জন্য আদালতে আবেদন প্রার্থনা জানালে আদালতের বিজ্ঞ বিচারক বার্দীর আর্জি ও আইনজীবীর শুনানী শেষে রিয়াজ হত্যা মামলাটি পূর্ণ তদন্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করার জন্য সিআইডি পুলিশের উপর দায়ীত্ব অর্পণ করার আদেশ দেন।

আলোচিত দলিল লেখক রিয়াজ হত্যা মামলাটি দুই দফা মডেল কোতয়ালী থানা পুলিশের তদন্ত থাকাকালীন সময়ে বাদীর আবেদন ছাড়াই রহস্য জনকভাবে উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা মামলাটি বরিশাল মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)কে তদন্তের দায়ীত্ব প্রদান করে। পরবর্তীতে ডিবির ইন্সেপ্রেক্টর মোঃ সগির হোসেনকে রিয়াজ হত্যা মামলা তদন্তের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়। মোঃ সগির হোসেন তার দায়ীত্ব ও মামলার তদন্তকালীন সময়ে বিভিন্ন স্থান থেকে চার ছিচকে চোরকে আটক করে আদালতে জবানবন্ধি গ্রহন করান।

সেই জবানবন্দির রেকর্ডিও কাগজ-পত্র সূত্রে দেখা যায়- যাদেরকে গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করে তদন্তকারী কর্মকর্তা সগির হোসেন (১৬৪) ধারা মোতাবেক জবানবন্দি গ্রহন করিয়েছে সেই চারজনের দেয়া জবানবন্দি কারো কথার সাথে কোন হত্যা সম্পর্কে মিল খুঁজে পাওয়া যায়না।

এব্যাপারে মামলার বাদী মনিরুল ইসলাম রিপন অভিযোগ করে বলেন, তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলাটি তদন্তের নামে দীর্ঘদিন করোনার অজুহাত কালক্ষেপন করে এবং হত্যা সংঘটিত সরেজমিন এলাকায় তদন্ত না করে মামলার প্রধান আসামী আমিনা অক্তার লিজাকে রক্ষা করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে। তিনি এ ঘটনা বুঝতে পেরে ২৩ই অক্টোবর চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে সিআইডি পুলিশ সদস্য দ্বারা সুষ্ঠু অধিকতর মামলাটি তদন্তের জন্য আবেদন প্রার্থনা করেন। সে সময়ে বাদীর আর্জির পরিপেক্ষিতে আদালতের বিচারক মোঃ মারুফ আহমেদ তদন্তকারী কর্মকর্তাকে পরবর্তী মামলার তারিখ ১১ই নভেম্বর মামলার সকল সিডি নিয়ে আদালতে হাজির হওয়ার আদেশ দেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা মোঃ সগির হোসেন করোনার অজুহাত দেখিয়ে নির্ধারিত মামলার ধার্য তারিখ ১১ই নভেম্বর আদালতে আসা থেকে বিরত থাকেন। পরবর্তীতে আদালতের বিচারক মোঃ মারুফ আহমেদের বদলির আদেশের কথা শুনে ৩০ই নভেম্বর মোঃ সগির হোসেন হত্যা মামলার প্রধান আসামীকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে অপর চার ছিচকে চোরকে হত্যাকারী বানিয়ে আদালতের বর্তমান বিচারক মোঃ মাসুম বিল্লাহ আদালতে চার্জশিট প্রতিবেদন দাখিল করেন।

তথ্য মতে, ২০১৯ সালের ১৮ই এপ্রিল নিজ বসতঘরে স্বামী দলিল লেখক রেজাউল করীম রিয়াজ ও স্ত্রী আমিনা আক্তার লিজা দু’জনে রাত্রীযাপনকালে বন্ধ ঘড়ে রিয়াজকে গলা কেটে ও কুপিয়ে হত্যা করে হত্যাকারীরা ঘড়ের সকল দড়জা-জানালা বন্ধ থাকা অবস্থায় রহস্যজনকভাবে বের হয়ে যায়। পটরবর্তীতে স্ত্রী লিজা ঘড়ের জানালা খুলে বাহিরে এসে ডাক-চিৎকার দিয়ে বাড়ির অন্য সকল ঘড়ের পরিবারের সদস্যদের জানান দেয় রিয়াজকে হত্যা করা হয়েছে।

১৯ই এপ্রিল সকালে মডেল কোতয়ালী থানা পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিমনার মোঃ রাসেল আহমেদ, অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নুরুল ইসলাম (পিপিএম) সহ একদল পুলিশ অফিসার ঘটনাস্থল তদন্ত করে লাশ উদ্ধার করা সহ স্ত্রী লিজাকে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য নিয়ে আসা হয়। পরবর্তী সময়ে থানা পুলিশ লিজাকে রিয়াজ হত্যায় জড়িত সন্দ্রেহে আটক করা হয়। এই মামলায় থানার দুই সাব ইন্সেপ্রেক্টর দ্বারা তদন্ত চলা এক প্রর্যায়ে হঠাৎ করে ২০২০ সালের ২২ই ফ্রেব্রয়ারী হত্যা মামলাটি তদন্তের জন্য ডিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়।”

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :