বরিশালে 'অপেশাদার' কসাইরাই কোরবানির পশু বেশি কাটেন | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশালে ‘অপেশাদার’ কসাইরাই কোরবানির পশু বেশি কাটেন বরিশালে ‘অপেশাদার’ কসাইরাই কোরবানির পশু বেশি কাটেন – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম
বরিশালে ‘অপেশাদার’ কসাইরাই কোরবানির পশু বেশি কাটেন – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বরিশালে ‘অপেশাদার’ কসাইরাই কোরবানির পশু বেশি কাটেন

প্রকাশ: ১২ আগস্ট, ২০১৯ ২:২৬ : অপরাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার । । 

কোরবানির ঈদ এলে পেশাদার কসাইদের কদর অন্য সময়ের চেয়ে কয়েক গুণ বেড়ে যায়। কারণ, বরিশালে কোরবানির পশুর তুলনায় পেশাদার কসাইয়ের সংখ্যা খুবই কম; মাত্র ১০ শতাংশ। সেজন্য ঈদের অন্তত এক সপ্তাহ আগে, এমনকি কোরবানির পশু কেনার আগেই পেশাদার কসাইদের নিয়ে টানাটানি শুরু হয়। পেশাদারদের নিয়ে এই টানাটানির ভিড়ে ঈদের দিনটিতে দেখা মেলে ‘একদিনের কসাই’দের; যাদের আবার ‘অপেশাদার’ বা ‘মৌসুমি’ কসাইও বলা হয়।

কসাইতের মতে , বরিশালে ৯০ শতাংশ কোরবানির পশু কাটার কাজ করেন এই অপেশাদাররাই; যাদের বেশিরভাগই নগরীর  বিভিন্ন এলাকার রিকশাচালক, দিনমজুর বা সবজি-বিক্রেতা। বাড়তি কিছু আয়ের আশায় পশু কাটার একাজ বেছে নেন তারা।

বরিশাল নগরী ঘুরে কয়েকজন অপেশাদার কসাইয়ের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, পেশাদারদের তুলনায় কম পারিশ্রমিকে পশু কাটেন তারা। ঈদের দিনটিতে বাড়তি কিছু টাকা আয় করে তা নিয়ে গ্রামের বাড়িতে ফিরে যান। অনেকে ঈদের দিন পশু কাটার জন্য গ্রাম থেকে ছুটে আসেন বরিশাল নগরীতে। মাংস নিয়ে আবার গ্রামে ফিরে যান। বরিশাল নগরীতে পেশাদার কসাইদের সংখ্যা কম হওয়ায় এই অপেশাদার কসাইরাই নগরবাসীর ভরসা।

ঈদের দিন নগরীর সর্বত্র তাদের কর্মব্যস্ততা চোখে পড়ে।

বরিশাল নগরীর ভাটিখানা,গোরস্থান রোড,বিএ কলেজ,হাসপাতাল রোড,কাউনিয়া এলাকাসহ প্রায় প্রতিটি এলাকায় অপেশাদার কসাইয়ের দেখা মেলে। ঈদের দুদিন আগে থেকেই পাড়ামহল্লায় ঘুরে ঘুরে কাজ জুটিয়ে ফেলেন তারা। পেশাদার কসাইয়ের তুলনায় কিছুটা কম টাকায় কাজ নেন এই অপেশাদাররা।

গ্রাম থেকে আসা কয়েকজন অপেশাদার কসাইয়ের ভাষ্য—  উজিরপুর, বাবুগঞ্জ সহ জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে এসেছেন তারা। কিছু বাড়তি আয়ের আশায় ঈদের দিন স্বজনদের ছেড়ে নগরীতে পশু জবাই করতে এসেছেন। তারা মূলত চার, পাঁচ, ছয় কিংবা আট জনের দলে কাজ করেন; যেদলের নেতৃত্বে থাকেন একজন পেশাদার কসাই।

বাবুগঞ্জ  থেকে আসা আসলাম বলেন, ‘কসাইয়ের কাজে বরিশাল আসছি। ঈদে কিছু টাকা বেশি কামানো যায়।  এর আগে দুইবার কসাইয়ের কাজ করেছেন তিনি। বেশিরভাগ সময় চুক্তিতেই কাজ করেন। তার সঙ্গে মাংস কাটার কাজ করেন আরও ৪-৫ জন।

আসলাম আরও বলেন, ‘বেশি লোক থাকলে পেশাদার কসাইয়ের সমান টাকা পাওয়া যায়। পেশাদার কসাইয়ের কাজ ২-৩ জনে মিলে তাড়াতাড়ি কইরা ফালায়। আমাদের একটু সময় বেশি লাগে।’

নগরীর নতুন বাজারের মাংস বিক্রেতা একরামের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,  সাধারণত পরিচিত মানুষের মধ্যে কাজ করতে তারা বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। তাই বাইরের কাজের অর্ডার কম নেন। চেনার বাইরে কাজ করলে মজুরি হারানোর একটা শঙ্কা থেকে যায় বলে জানান তিনি। অপেশাদার কসাইদের বিষয়ে একরাম বলেন, ‘তাদের কাজে আমাদের কোনও সমস্যা হয় না। কারণ আমাদের কাস্টমার ফিক্সড। তাতেই আমরা কুলায় উঠতে পারি না।’


সকল নিউজ