বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে অবৈধভাবে জমি দখলের মিশন নস্যাৎ করে দিল পুলিশ কমিশনার

শামীম আহমেদ :: বরিশাল নগরীর ২৯ নং ওয়ার্ডে ৫ লক্ষ টাকা বায়না চুক্তির মাধ্যমে ক্রয় করে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাকি টাকা পরিশোধ না করেই স্থানীয় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও কমিউনিটি পুলিশ সদস্য রোজি বেগম, ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, ভূমিদস্যু কালু, আতিক, জসিমসহ স্থানীয় কতিপয় ভূমিদস্যু প্রত্যরণার মাধ্যমে প্রায় দুই কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তির জমির স্থাপনার ভাড়াটিয়াদের হটিয়ে অবৈধভাবে দখল নেয়ার পায়তার করার মিশন নস্যাৎ করে দিয়েছে নগর সততাবান পুলিশ কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান।

আজ বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় পুলিশ কমিশনারের নির্দেশ্যে মেট্রোপলিটন এয়ারপোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহিদ বীন আলম একদল পুলিশ সদস্যদের নিয়ে প্রকৃত রেকর্ডিয় জমির মালিক আবুল কালামের ভূমিতে ফ্রেন্ডর্স বিজনিস সেন্টারের সাটানো সাইনবোর্ড সরিয়ে নেয়ার আদেশ দেওয়া হলে স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ফরিদ আহমেদ বিকালের মধ্যে সকল মালামাল সরিয়ে নেয়া জন্য পুলিশের কাছ থেকে সময় গ্রহন করেন।

একই সময় জমি বিক্রয়ের দালাল ও স্থানীয় শাষক দলের সভানেত্রী রোজি বেগমসহ তার ভূমিদস্যু সদস্যারা পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতিতে আবুল কালামকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি প্রদর্শন করে। তবে ঘটনাস্থলে ওসিসহ পুলিশ সদস্য উপস্থিত থাকার কারনে তারা আর বেশিদুর এগুতে পারেনি।

জানা গেছে- বরিশাল নগরীর ২৯ নং ওয়ার্ডের কাশিপুরের ২ কোটি টাকা মূল্যের রেকর্ডিয় ২৯ শতাংশ জমি স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শাহ পড়ান সড়কের বাসিন্দা মোসাঃ রোজি বেগমের ব্রোকারীর মাধ্যমে জনৈক ঝালকাঠী জেলার রাজাপুর উপজেলার, উত্তর আড়ুয়া গ্রামের মোঃ সাইদুর রহমানের ব্যবসায়ী ছেলে মোঃ জসিম উদ্দিনের সাথে ৫লক্ষ টাকা বায়না চুক্তি মূল্যে ১ কোটি ৮৫ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা মূল্যে নির্ধারন করে ১৫ই সেপ্টেম্বর ২০২০ইং, চুক্তিপত্রে আবদ্ধ হয়। এবং ১৫ই নভেম্বরের মধ্যে বাকি অবশিষ্ট ১ কোটি ৮০ লক্ষ,৬০ হাজার টাকা পরিশোধ করে দলিল মারফত জমি দখল বুঝে নেবে। এমনকি টাকা পরিশোধের আগে উক্ত জমির কোন স্থপনায় হস্তক্ষেপ করিতে পারিবে না। চুক্তি ভঙ্গ করিলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও চুক্তি নামায় উল্লেখ করা হয়। এসময় ব্রোকার আওয়ামী লীগ নেত্রী রোজি বেগম নগদ ৩৪ হাজার টাকা নেন আবুল কালামের কাছ থেকে পাশাপাশি পঞ্চাশ টাকার দুটি স্টাম্পে স্বাক্ষর করিয়ে রাখে জমির টাকা হাতে আসলে রোজিকে আরো ৩লক্ষ টাকা দিতে হবে।

অপরদিকে বায়না চুক্তির মালিক জসিম নয় ৮দিন পর ২৩ই সেপ্টেম্বর নেপথ্যে মুখোস লুকিয়ে রাখা চক্রান্তকারী ভূমিদস্যু স্থানীয় মোঃ জসিম ফকির, সুরুজ সিকদার কালু, ও বহিস্কৃর্ত জেলা ছাত্রদল সভাপতি মাহফুজ আলম মিঠির ভগ্নিপতি আতিকসহ একদল বাহিনী নিয়ে উক্ত জমিতে থাকা ভাড়াটিয়াদের বলে আমরা জমি ক্রয় করেছি তোমরা ৩০ই অক্টোবরের মধ্যে দোকান ছেড়ে চলে যাবার হুমকি দিয়ে যায়।

পরবর্তিতে এবিষয়ে জানতে চাইলে তারা বলেন, আপনি আমাদের কাছে জমি বিক্রি করেন নাই বলে আমরা জসিমকে সামনে রেখে জমির বায়না চুক্তি করেছি।
আপনি ভাড়াটিয়াদের নেমে যেতে বলেন এবং ঘড় ভেঙ্গে নেন। এসময় আবুল কালাম বলেন আপনাদের কাছে আমি জমি বিক্রি করি নাই জসিমকে আসতে বলেন প্রতি উত্তরে বলেন জসিম সময় মত আসবে।

এতে উক্ত ভূমিদস্যুরা ক্ষিপ্ত বলেন, ভাল চান তাহলে ভাড়াটিয়াদের নেমে যেতে বলেন এতে ভাল হবে। এঘটনার পর বায়নার সত্বাধীকারী রোজির কাছে বায়নাকারী জসিমের মোবাইল নম্বর চাইলে তার কাছে নম্বর নাই বলে জসিমকে আড়াল করে রাখে।

অপরদিকে জমির মালিক আবুল কালামকে রোজি ভয় দেখিয়ে বলে ওরা এলাকার পোলাপান ওদের সাথে ঝামেলায় যাইয়েন না। গেলে সমস্যা হবে আপনি ঘড় ভেঙ্গে নিয়ে যান। ২মাসের মধ্যে টাকা পাইলেই তো চলে। এদিকে বায়না চুক্তিতে স্পষ্ট লেখা রয়েছে জমির সম্পূর্ণ টাকা পরিশোধের আগে জমিতে কেহ হস্তক্ষেপ করিতে কিংবা দখল করিতে পারিবে না।

এঘটনার পর আবুল কালাম কোন উপায় না পেয়ে ২৫ই সেপ্টেম্বর স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা ফরিদ উদ্দিন আহমেদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়ে ন্যায় প্রত্যাশা কামনা করা হলেও তিনি ভূমিদস্যুদের পক্ষ নিয়ে আমাকে ঘড় ভেঙ্গে নিয়ে যেতে বলে। এবং তিনি দায়ীত্ব নিয়ে বলে আমি সব টাকা ১০ই নভেম্বরের মধ্যে বুঝিয়ে দেব।

ফরিদ উদ্দিনের কথা বিশ্বাস করে আবুল কালাম তার প্রতি মাসে ৪০ হাজার টাকা ভাড়া পাওয়া ১৬টি ঘড় ভেঙ্গে নিয়ে যায় এবং সেখানে ৬০ হাজার ইট থাকলেও তারা সেই ইট নিতে পর্যন্ত নিতে দেয়নি আবুল কালামকে। পরবর্তীতে জমির মালিক জমির দলিল কবে নিবে জানতে চাইলে তারা বিভিন্নভাবে প্রত্যরনা শুরু করে এক প্রর্যায়ে জমির কাগজে ত্রæটি আছে বলে ১ বছরের সময় চেয়ে ১টি উকিল নোটিশ প্রেরন করে জমির মালিক আবুল কালামের কাছে। আবুল কালাম ওদের উকিল নোটিস পেয়ে তার আইনজীবী আজাদ রহমানের মাধ্যমে ২৩ নভেম্বর তার জবাব দিয়ে জানিয়ে দেয়া হয় উক্ত জমি রেকর্ডিয় সম্পত্তি এতে কোন সমস্য থাকলে রেজিস্টার রেজিস্টারী বায়না করতেন না। সেই সাথে বায়না চুক্তি মালিক জসিমকে জমি ক্রয় ও বিক্রয় সময় সিমা চুক্তি ভঙ্গ করায় বায়নার টাকা ফেরত নিয়ে এবং আমার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙ্গার কারনে ১৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধিত হওয়ার টাকা দাবী করা হয় নতুবা আদালতে আইনের আশ্রয় নেয়ার কথা জানানো হয়।

নেটিশ প্রেরনের ৭ কার্য দিবসে কোন উত্তর না পেয়ে ৬ই ডিসেম্বর বরিশাল বিজ্ঞ ১ম যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা দায়ের করার পর সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখায় বায়না চুক্তি কালে নেয়া ৫লক্ষ টাকা জমা দেয়া হয়। একই সময় জমির ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি পুরনের ১৫ লক্ষ টাকা দাবী করে জসিমের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এতে ভূমি দস্যুরা ক্ষিপ্ত হয়ে ওই জমি বিক্রয় করার হবে বলে ফ্রেন্ডর্স হাউজিং নামের একটি জোর্ড়পূর্বক সাইন বোর্ড সাটিয়ে আমার জমির একঅংশে বালু ভরাটের চেষ্টা করে। এঘটনা ৪ ডিসেম্বর এয়ারপোর্ট থানাকে অবহিত করা হলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বালু ভরাট না করার নির্দেশ দেয়ার পরও তারা আইনকে বৃদ্ধঙ্গুুল দেখিয়ে অবৈধভাবে সাইনবোর্ড স্থাপন করে। পরবর্তীতে আবুল কালাম ৮ই ডিসেম্বর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মোঃ জসিম উদ্দিন, মোসাঃ রোজি বেগম, আতিক, সুরুজ সিকদার কালু, জসিম ফকির সহ আরো ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা নিয়ে একটি মামলা দায়ের করায় আদালত বিবাদীর ১১ই জানুয়ারী স্বশরীরে আদালতে হাজির হওয়ার আদেশ দেন।

একই সাথে এয়ারপোর্ট থানা পুলিশকে তফসিল ভূক্ত জমিতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় রাখার আদেশ দেন। সেই সাথে সাইনবোর্ড উঠিয়ে নেয়া এবং জমিতে প্রবেশ না করারও আদেশ দেন। এতে চতুর জাল-জালিয়াতী ভূমি দস্যুরা প্রত্যরানা করে আবুল কালামের জমি দখল করে খেতে পারবে না মনে প্রতি মূহুর্তে আবুল কালাম ও তার পরিবারকে মিথ্যা ডাকাতি সহ বিভিন্ন মামলায় জড়িয়ে জমি দখল নেয়া সহ এলাকা ছাড়ার হুমকি প্রদর্শন করায় আবুল কালাম ওদের ভয়ে ভয়ে আতংকিত হয়ে পড়ে।

এঘটনায় আবুল কালাম গত ২০ই ডিসেম্বর বরিশাল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করার পাশাপাশি ২২ই ডিসেম্বর আবুল কালাম আদালতের আদিশ ও জমির কাগজ-পত্র নিয়ে তার জমি উদ্ধারের জন্য পুলিশ কমিশনারের সহযোগীতা কামনা করে আবেদন জানান।

এব্যাপারে এয়ারপোর্ট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জাহিদ বীন আলমের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে নিতি বলেন, আমরা অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনাস্থলে বিষয়টি জানতে যাই।

এসময় স্থানীয় কাউন্সিলরসহ ওদের লোকজন বিকালের ভিতর তাদের মালামাল সরিয়ে নেয়ার অঙ্গিকার করায় তাদের সময় দিয়ে আসা হয়েছে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :