বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

বরিশালে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করলেন অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক!

Print Friendly, PDF & Email

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালের হিজলা উপজেলাধীন বি.এল পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রেমজিলাল দাসের বেতের আঘাতে রক্তাক্ত হয়েছেন এসএসসি পরীক্ষার্থী রুমি। হিজলা উপজেলার খুন্নাগবিন্দপুর গ্রামের মৃতঃ আঃ রাজ্জাকের মেয়ে প্রতিবন্ধী রুমি। রুমি শারিরিক প্রতিবন্ধিতায় ভূগছে।

আহত রুমি অভিযোগ করে বলেন, ক্লাস চলাকালীণ সময় সকল শিক্ষার্থীদের একটি প্রশ্ন করেন শিক্ষক প্রেমজিলাল। প্রশ্নোত্তর না পাড়লে সকলকেই বেতের আঘাত করেন তিনি কিন্ত আমাকে বেতের আঘাত করতে আসলে আমি প্রতিবন্ধী তাই আমার এক হাত দিলে সে হাতে না মেরে আমার কাধ এবং বুক বরারব বেত্রাঘাত করেন। এতে আমার অপারেশনকৃত সেলাই কার ক্ষত স্থান ফেটে প্রচুর রক্ত ক্ষরন হয়ে অসুস্থ হয়ে পরে যাই পরে আমাকে বাসায় নিয়ে আসা হয়। বাসায় যাওয়ার পরে আমার শারিরিক অবস্থার অবনতি হয় এবং প্রচন্ড জ্বর উঠলে পরিবারের সদস্যরা দ্রুত স্থানীয় রেমিডি ক্লিনিকে নিয়ে ভর্তি করে চিকিৎসা করেন। ঘটনার তিন দিন পরে আমি শারিরিক অসুস্থ হয়েও বিদ্যালয়ে যাই সামনে আমার এসএসসি পরিক্ষার্থী বলে। কিন্তু এত কিছুর পরও অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রেমজিলাল স্যার আমার কোন খোঁজ খবরেই নিলেন না। পরে আমি শারিরক অবনতি নিয়ের ৯ ডিসেম্বর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলামকে মৌখিক অবগত করলে স্যার আমাকে লিখিত অভিযোগ করার পরামর্শ দিলে আমি সুবিচার পাবার জন্য লিখিত অভিযোগ দায়ের করি ।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, বি. এল পাইলট বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক প্রেমজিলাল দাস বিগত প্রায় ১ বছর আগে অবসরপ্রাপ্ত হয়েও সে ঐ প্রতিষ্ঠানে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সরকারি নির্ধারিত ফি বাদ রেখে অতিরিক্ত ফি আদায়ের অভিযোগ এই অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রেমজিলাল দাসের বিরুদ্ধে। রুমি প্রতিবন্ধী হয়েও এসএসসি পরিক্ষার ফি থেকে রেহাই পায়নি, দিতে হচ্ছে ৩ হাজার টাকা ।

অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক প্রেমজিলাল দাসের কাছে জানতে চাইলে প্রথমে বিষয়টি এড়িয়ে যান। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর রুমির অভিযোগের কথা বললে স্বীকার করে বলেন, ইউএনও স্যার বিষয়টি জানেন। শিক্ষা অফিসারকে তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

হিজলা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী শফিউল আলম বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি। ওনার ২টা কাজই অন্যায়। সরকারি প্রোগ্রামের জন্য ব্যস্ত থাকায় আগামীকাল বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *