বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে পুলিশ কমিশনারের নামে চাঁদাবাজি, মেম্বার-ওসির নয় ছয়

এসএন পলাশ :: বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ (বিএমপি) কমিশনারের নাম ভাঙিয়ে গত এক মাস যাবত টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন এক প্রতারক। বাহার নামের ওই প্রতারককে ধরার পরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য ও বন্দর থানার অফিসার ইনচার্জের (ওসি) যোগসাজশে পার পেয়ে যায় সে।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বরিশাল সদর উপজেলার চরকাউয়া ইউনিয়নের পোলের হাটের গরুর চিকিৎসক সোহরাব তালুকদারকে পুলিশ কমিশনারের নাম বলে এক মাসে বিভিন্ন সময়ে সর্বমোট পঁয়ত্রিশ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে নেন পার্শবর্তী গ্রামের রুস্তম আলি সিকদারের ছেলে বাহার (৪৫)।

গতকাল রোববার সন্ধ্যায় প্রতারক বাহার আবার গরুর ডাক্তার সোহরাবকে কল করে বলে পুলিশ কমিশনার স্যার আপনাকে দেখা করতে বলেছে, অথবা আরো ২০ হাজার টাকা পাঠান। তখন বিষয়টি সন্দেহ হলে সোহরাব এলাকাবাসী কয়েকজনকে বিষয়টি জানান। তারা মোবাইল নাম্বারটা নিয়ে নিশ্চিত হয় যে এটা পুলিশ কমিশনারের নয়, নাম্বারটি ওই এলাকার মুদি দোকানি বাহারের। এরপরে স্থানীয় লোকজন বাহারকে ধরে আনলে অকপটে স্বীকার করেন তার প্রতারণার কথা।

এ বিষয়ে ঘটনার পরপরই রোববার রাতে কথা হয় ওই এলাকার ইউপি সদস্য মো: সাইফুল আলম লিটন তালুকদার। তখন তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বাহার প্রায় এক মাস যাবত বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের নাম বলে গরুর ডাক্তার সোহরাবের কাছ থেকে পঁয়ত্রিশ হাজার টাকা হাতিয়েছেন। তাকে এলাকাবাসী ধরেছে, আমি থানায় খবর দিয়েছি। পুলিশ আসলে প্রতারক বাহারকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হবে।

কিন্তু তার পরক্ষণেই বন্দর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন ও মেম্বার লিটনের যোগসাজশে মোটা অংকের টাকার বিনিময় ছেড়ে দেয় বলে এলাকাবাসী অভিযোগ করেন। তবে উৎকোচের অভিযোগ অস্বীকার করেন ইউপি সদস্য লিটন।

এ বিষয়ে বন্দর থানার ওসি আনোয়ার হোসেন বলেন, আমরা আটক করিনি, করেছিলো এলাকাবাসী। পরে তারা নিজেরা মিলমিশ হয়ে গেছে। পুলিশ কমিশনারের নাম ভাঙিয়ে টাকা হাতানোর ঘটনা আপনি শুনেছেন কিনা জানতে চাইলে বলেন শুনেছি। তারপরও কেন তাকে আটক করেননি? প্রশ্নে তার কোনো সঠিক উত্তর দিতে পারেননি এই পুলিশ কর্মকর্তা।

এরপরে আজ সোমবার পুনরায় ইউপি সদস্য মোঃ লিটনকে গতকাল রাতের ঘটনা জানতে চাইলে তালগোল পাকিয়ে ফেলেন। টাকার বিনিময়ে এ রকম একজন প্রতারককে ছেড়ে দেয়ার বিষয়ে বলেন, আমরা একই এলাকার লোকজন তো তাই সমাধান করে দিয়েছি।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের নামে টাকা হাতিয়ে নেয়া এই প্রতারককে পুলিশের হাতে তুলে না দিয়ে আপনি কিভাবে সমাধান করলেন? জানতে চাইলে তার কোনো সঠিক জবাব দিতে পারেননি ইউপি সদস্য মো: লিটন।

এ বিষয়ে বিএমপির উপ কমিশনার (দক্ষিণ) মোঃ মোক্তার হোসেন (পিপিএম-সেবা) বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ খবর নিয়ে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

প্রতারনার বিষয়ে মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ শাহাবুদ্দিন খান বলেন, আমি ওসিকে বলতেছি ঘটনার যথাযথ ব্যবস্থা নিতে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :