বরিশালে কুয়াশা মাখা ভোরে এখন আর নেই খেজুর রসের ঘ্রাণ | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশালে কুয়াশা মাখা ভোরে এখন আর নেই খেজুর রসের ঘ্রাণ বরিশালে কুয়াশা মাখা ভোরে এখন আর নেই খেজুর রসের ঘ্রাণ – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম
বরিশালে কুয়াশা মাখা ভোরে এখন আর নেই খেজুর রসের ঘ্রাণ – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বরিশালে কুয়াশা মাখা ভোরে এখন আর নেই খেজুর রসের ঘ্রাণ

প্রকাশ: ২১ নভেম্বর, ২০১৯ ১১:৪২ : পূর্বাহ্ণ

অমিত হালদার :: দেশে ঋতু চক্রের পরিক্রমায় এখন চলছে হেমন্তকাল। কার্তিক আর অগ্রহায়ণ নিয়ে এ ঋতু। ঋতু পরিক্রমায় উঁকি দিচ্ছে শীত। কুয়াশা মাখা প্রকৃতি আর মাঠে মাঠে ফসলের সম্ভাবনার ঘ্রাণ, কৃষকের চোখে মুখে আনন্দের রেখা। উৎসব আর আনন্দের মাঝে নিমগ্ন খেটে খাওয়া মানুষ।

প্রকৃতির অপরুপ ছবিতে সাজানো মাকরসার জালে আটকা পড়ে সাহিত্য প্রেমিরা। ভোরবেলা মাঠে ময়দানে ঘুরে দেখা যায়, ভোরের সূর্য হালকা লালচে রংয়ে দিচ্ছে ঝিলিক। সূর্যের কিরণে মুক্তা মালা চোখে পড়ে। কুয়াশার প্রতিটি কনা মুক্তার মতো জ্বলছে। গ্রীষ্ম আর শীতের মধ্যে হেমন্ত যেন অপরূপ এক সেতুবন্ধন। মাঠে প্রান্তরে ভোর বেলা শিশির মাখা ধানের ডলা জানান দিচ্ছে সম্ভাবনার বার্তা। প্রকৃতি জানিয়ে দিচ্ছে শীতের আগমনীর বার্তা।

এদিকে শহর আর গ্রামের বাতাসে বইছে হালকা হালকা শীত। সকালে ফোঁটা ফুলের পাতায় লেগে থাকে বিন্দু বিন্দ কুয়াশা। মনে হয় প্রকৃতি সেজেছে তার অপরুপ সৌন্দর্যে। সেই সকালে তাঁত বোনা চাঁদর গায়ে জড়িয়ে থাকে এক ঝাক শিশু কিশোর। এলো চুলের চেহারা দেখলেই বোঝা যায়, চোখ থেকে এখনও ঘুম কাটেনি। তারপরও এই শীতের সকালে লেপের ওমটুকু ছেড়ে তারাও বের হয় কুয়াশা মোড়া রাস্তায়। জানতে চাইলে আলতো হাসি দিয়ে বলে, খেজুরের রস খুঁজছি খাবার জন্য। শীত আসলেই খেজুরের রসের ঘ্রাণে ভরে ওঠে বাংলার প্রকৃতি। গ্রামে-গঞ্জে শুরু হয় খেজুর রস আর খেজুর গুড়সহ নানা উপাদানে তৈরি পিঠা খাওয়ার ধুম।

অপরদিকে, খেজুর গাছে রসের হাড়ি নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করে গাছিরা। সন্ধ্যা হলেই গাছে গাছে বেঁধে দেয় হাঁড়ি। বাড়ির উঠোন বা ধান কেটে নেওয়া শূন্য মাঠে গোল হয়ে বসে সেই রস আস্বাদন বা মাটির ছোট হাড়িতে ঠোঁট ছুইয়ে খেজুর রসের স্বাদ নেওয়া অতুলনীয়। তবে এই দৃশ্যগুলো অনেকেরই চেনা হলেও বর্তমানে সে দৃশ্যের দেখা মেলা বড়ই কঠিন। সাথে রয়েছে মধুর এ রস থেকে বঞ্চিত হওয়ার তিক্ততাও। খেজুরের রস কোথায় পাওয়া যায়- জেঁকে বসা শীতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সকলের যেন ¯েøাগান হয়ে গেছে এই প্রশ্ন। বিএম কলেজের উদ্ভিদ বিদ্যা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, আমাদের ছেলে-মেয়েরা আজ বিভিন্ন ধরনের কোমল পানীয়ের স্বাদ জানে কিন্তু তারা খেজুর রসের স্বাদ জানে না। খেজুর রস আমাদের আর পাঁচটা সংস্কৃতির মতোই। আমাদের উচিত এটার প্রতি আরো যত্নবান হওয়া। আমরা অতীতমুখী নই, তবে সেখান থেকে আমাদের শিখতে হবে। আমরা কখনই ঐহিত্য বিমুখ হতে চাই না। এক দশক আগেও শীতের সকালে চোখে পড়তো রসের হাড়ি ও খেজুর গাছ কাটার সরঞ্জামসহ গাছির ব্যস্ততার দৃশ্য। সাত সকালে খেজুরের রস নিয়ে গাছিরা বাড়ি বাড়ি হাঁক ডাক দিতেন। শীতের মৌসুম শুরু হতেই বাড়ি বাড়ি চলতো খেজুরের রস কিংবা রসের পাটালি গুড় দিয়ে মজাদার পিঠাপুলির আয়োজন।

এবিষয়ে হাতেম আলি কলেজের অধ্যাপক আনোয়ার হোসেন বলেন, এখন আমরা শেকড় ভুলে যাচ্ছি। কিন্তু নিজেদের শেকড়ের কথা আমাদের মনে রাখতে হবে। মা, মাতৃৃভূমি ও সংস্কৃতি একই সঙ্গে জড়ানো। এগুলোর ভেতর দিয়েই আমরা মানুষ হয়েছি। তবে গ্রামের মাঠে আর মেঠোপথের ধারে কিছু গাছ দাঁড়িয়ে আছে কালের সাক্ষী হয়ে। গ্রামবাংলার ঐতিহ্য এই খেজুরগাছ আজ অস্তিত্ব সঙ্কটে। যে হারে খেজুরগাছ নিধন হচ্ছে সে তুলনায় রোপণ করা হয় না বলে মনে করেন তিনি। ইনফ্রা পলিটেকনিক কলেজের শান্তা নামের এক ছাত্রী জানায়, আমরা শহরে চার দেয়ালের মধ্যে বড় হচ্ছি। যার ফলে খেজুর রসের স্বাদ আস্বাদন করতে পেরেছি খুবই কম। মাঝে মাঝে বাবা বাজার থেকে রস কিনে বাসায় নিয়ে আসে তবে তাতে সঠিক রসের স্বাদ পাওয়া বড়ই মুশকিল। রাস্তায় পথচলা একজন সচেতন নাগরিক রিয়াজুল ইসলাম নামের এক যুবক জানান, নগরী এখন ভরে গেছে দালান কোঠায়। আগে এই শহরেই নানা গাছের পশাপাশি অনেক খেজুর গাছ ছিল।

এখন তা বিলুপ্তীর পথে। যার ফলশ্রুুতিতে পাওয়া যাচ্ছে না খেজুরের রস। আমাদের ছেলে-মেয়েরাও পাচ্ছে না সুস্বাদু রস। আমরা হারাচ্ছি ঐতিহ্য। খেজুরের রস বর্তমানে বরিশালে খুব একটা পাওয়া না গেলেও বরিশালের পার্শ্ববর্তী এলাকাগুলোতে পাওয়া যায় কমবেশি। তবে বিভিন্ন স্থানে ফেরি করে রস বিক্রি করতে দেখা যায় মাঝে মাঝে। পেলেও আগের চেয়ে ১০/১৫ গুণ বেশি দাম দিয়ে কিনতে হয়।

এ ব্যাপারে নগরীর কাশিপুর এলাকার গাছি অতুল মিয়া জানান, খেজুরের গাছ কমে যাওয়ায় তাদের চাহিদাও কমে গেছে। আগে এই কাজ করে ভালোভাবেই সংসার চলত। এমনকি আগে যে আয় রোজগার হতো তাতে সঞ্চয়ও থাকতো। যে কয়েকটা খেজুর গাছ আছে তা বুড়ো হয়ে যাওয়ায় এখন আর তেমন রস পাওয়া যায় না। রস বাজারে বিক্রির মতো আগের সেই অবস্থাও নেই। দিন দিন খেজুর গাছ কমে যাচ্ছে। প্রকৃতিগত সুস্বাদু সে রসও এখন আর তেমন আগের মতো নেই। তবুও কয়েকটা গাছের পরিচর্যা করে হারিয়ে যাওয়া ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে চেষ্টা করে যাচ্ছি।


সকল নিউজ