বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে কোটি টাকার সম্পত্তি হাতিয়ে নিতে পায়তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালের রেজিস্ট্রি অফিসকে ভুল তথ্য দিয়ে সত্য গোপন করে একাধিক ভূঁয়া দলিল তৈরি করে নগরীর ১১নং ওয়ার্ডের চাঁদমারী এলাকায় কোটি টাকা মূল্যের ৪ তলা ভবন হাতিয়ে নেওয়ার পায়তারায় চালাচ্ছে একটি চক্র। এ ঘটনার প্রতিকার চেয়ে ভুক্তভোগী বিসিসি’র পানি শাখার পাম্প অপারেটর পদে কর্মরত মোঃ নিলয় পারভেজ রুবেল বরিশাল সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে জাহানারা বেগম, মাহবুবুর রহমান বাবলু, শিরিন সুলতানা, বরিশাল সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিস, বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন বরিশাল শাখার কর্মকতাকে বিবাধী করে একটি দেওয়ানী মামলা দায়ের করেন। মামলা নং- ১৩২/২০, উক্ত মামলায় আদালত বিবাদীগণদের আগামী ২৪ জানুয়ারী ২০২১ স্ব-শরীরে হাজির হওয়ার জন্য সমন প্রদান করেন।

দেওয়ানী মামলার এজাহার থেকে জানা যায়- বরিশাল নগরীর ১১নং ওয়ার্ডের আওতাধীন বগুড়া আলেকান্দা মৌজার জে.এল. ৫০, এস.এ- ৫০৩৬, তথা সৃজিত ৬৪৮৫ খতিয়ানের ৬২০৪ দাগের ০.৪ শতাংশ জমি এবং এর উপর দ্বিতল বিশিষ্ট একটি ভবনের ৩১৪৬নং রেজিস্ট্রিকৃত অরহিতযোগ্য আমমোক্তার মূলে ভোগ দখল করে আসছিলেন বাদি পরিবার পরিজন নিয়ে। উক্ত তফসিল ভূমিটি অরহিতযোগ্য আমমোক্তারনামার দাতা আঃ খালেক ১৯৮৬ সনে তোফাজ্জেল হোসেনের থেকে ৫৮১৮নং রেজিস্ট্রিকৃত সাব-কবালা দলিল মূলে মালিক বিদ্যমান হন। নানাবিধ কারনে তফসিল ভূমিটির দাতা আঃ খালেক বাংলাদেশ হাউজবিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন বরিশাল শাখায় বন্ধক রেখে ঋন গ্রহন করেন। যাহার ঋন হিসাব নম্বর মাল্টিবার-২৫৬, ঋনের টাকা পরিশোধে অসমর্থ হলে ৩১৪৬নং রেজিস্ট্রিকৃত অরহিতযোগ্য আমমোক্তার নামার গ্রহিতা মোঃ জাহাঙ্গীর আলমকে দিয়ে পরিশোধ করান। ঋনের সমুদয় টাকা পরিশোধের বিনিময়ে দাতা আঃ খালেক অরহিতযোগ্য আমমোক্তারনামা বহাল রেখে গ্রহীতা মোঃ জাহাঙ্গীর আলমকে দখল স্বত্ত বুঝিয়ে দিয়ে নিঃশত্ত্ববান হয়ে যান। গ্রহীতা জাহাঙ্গীর আলম দখল স্বত্ব বুঝিয়া পেয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করতে থাকেন এবং দ্বিতীয় তলা ভবনটিকে আরো দ্বিতল ভবনে বর্ধিত করে ৪ তলায় রূপান্তর করেন। গ্রহীতা মোঃ জাহাঙ্গীর আলম ঢাকায় চিকিৎসাধীন থাকাকালীন সময়ে তার ছেলে চলতি দেওয়ানী মামলার বাদি মোঃ নিলয় পারভেজ রুবেলকে একা পেয়ে ২০০৫ সালে বিবাদীরা একযোগী হয়ে ও স্থানীয় কিছু ব্যাক্তির সহযোগীতায় ভবনটি জোরজবর দখল করে নেয়।

বর্তমান দেওয়ানী মামলার এজাহারে দেখা যায়- বিবাদী জাহানারা বেগম এর সহিত দাতা আঃ খালেক নামীয় ২১-০৫-১৯৯২ইং তারিখ ২৬৩০নং রেজিস্ট্রিকৃত সাফ কবালা দলিল সৃষ্টি হয়। উক্ত দলিল সম্পাদিত সময়ে তফসিল ভূমিটি বাংলাদেশ হাউজ বিল্ডিং ফাইন্যান্স কর্পোরেশন, বরিশাল শাখায় দাতা আঃ খালেক এর দায়বদ্ধ রাখা ছিল। একই জমির উপর পুনরায় দাতা আঃ খালেক এর সহিত (১) জাহানরা বেগম, (২) মাহাবুবুর রহমান বাবলু (৩) শিরিন সুলতানাকে গ্রহীতা করে ২৭-০৭-১৯৯৬ইং তারিখ ৩৮৯৫নং রেজিস্ট্রিকৃত সাব কবালা দলিল সৃষ্টি করা হয়। যাহা নিয়মবহির্ভূত হাস্যকর বটে। উক্ত দেওয়ানী মামলায় বিবাধীগন আদালতে সমনপ্রাপ্ত হয়ে ২৯-১০-২০২০ইং তারিখ বরিশাল এসে বাদী নিলয় পারভেজ রুবেলকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি ও প্রাণ নাশের হুমকি দেয়। এমনকি বিবাদীগণ বাদীর বিরুদ্ধে বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগের তদন্ত অফিসার এ.এস.আই হুমায়ন সরেজমিনে তদন্তে এসে দেওয়ানী মামলা বিবাদীর সমন প্রাপ্তীর চিত্র দেখতে পায়। পরবর্তীতে উভয় পক্ষকে থানায় ডেকে নিয়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখার জন্য নির্দেশ দেয়। বিবাদীদের পুরোচিত্র তুলে ধরে বাদী নিলয় পারভেজ রুবেল ও বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বাদীর অভিযোগের তদন্ত অফিসার এ.এস.আই জুয়েল হাওলাদার। থানায় অভিযোগের বিষয়টা জানতে পেরে বাদীর উপর বিবাদীরা আরো ক্ষিপ্ত হয়। যার ধারাবাহিকতায় বাদী নিলয় পারভেজ রুবেল (১) কাওছার হোসেন শাকিল (দেওয়ান শাকিল), (২) লুৎফা বেগম, (৩) মাহাবুবুর রহমান বাবলু (৪) সেলিনা আক্তারকে বিবাদী করে বিজ্ঞা এক্সিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ১০৭/১১৭ ধারা মামলা দায়ের করেন (মামলা নং- ১৩৪/২০)। বিজ্ঞ আদালত বিবাদীদের ১৯/১১/২০২০ইং তারিখ স্বশরীরে হাজির হয়ে কারণ দর্শানোর জন্য সমন প্রদান করেন। অদ্য তারিখ ম্যাজিস্ট্রেট উপস্থিত না থাকায় পরবর্তী ধার্য্যরে ০৯/১২/২০২০ইং তারিখ বিবাদীদের লিখিত জবাবের ৩নং দফা আমলে নিয়ে ২ মাসের বন্ডে মামলা থেকে অব্যাহতি দেয়। তফসিল ভূমিটি নিয়ে আইনগত সকল প্রক্রিয়া স্থানীয় ১১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলরকে লিখিত ভাবে অবগত করা রয়েছে। উক্ত বিষয়টি নিয়ে কোতয়ালী মডেল থানার সহকারী কমিশনার মোঃ রাসেল আহমেদ ও স্থানীয় কাউন্সিলর মজিবর রহমান উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে পৃথক পৃথক বৈঠক করে দেওয়ানী মামলা চলমান জানতে পেরে উভয় পক্ষকে আদালতের নির্দেশনা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলেন। আদালতে মামলা চলমান এবং সকল নির্দেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বিবাদীরা একযোগী হয়ে দলভারী করে করে বাদী নিলয় পারভেজ রুবেল ও তার পরিবারের লোকজনকে লাঠিসোঠার মুখে জিম্মী করে ফ্লাটের সকল মালামাল নিয়ে যায়। উপায়ন্ত্রর না পেয়ে স্থানীয় কাউন্সিলরকে অবগত করলে তিনি জাহানারা বেগমের নাতি দেওয়ান শাকিলকে ফোন করলে শাকিল মুঠোফোনে জানায় ও এস.আই হুমায়ন বাদীর ফ্লাটে নতুন ভাড়াটিয়া উঠিয়ে দিয়ে গেছে। যা সম্পূর্ন মিথ্যা। এস আই হুমায়ন ঐ ভবনে কোন ভাড়াটিয়া উঠিয়ে দেয়নি। বিষয়টা জটিল মনে হলে কাউন্সিলকে জানানো হলে তিনি বলেন বাদী নিলয় পারভেজ রুবেলকে তাহার আইনগত ব্যবস্থায় যেতে বলেন। উক্ত ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে নিলয় পারভেজ রুবেল বাদী হয়ে মেট্রোপলিটন মেজিস্ট্রেট আমলী আদালতে (১) মাহাবুবুর রহমান বাবলু (জামায়েতের রোকন) ২০১৭ সনের ডিএমপি মিরপুর মডেল থানায় বিষ্ফোরক দ্রব্য আইনে দুটি মামলায় এজাহার ভূক্ত আসমী। যাহার মামলা নং- ৪২/৩৯১ এবং ২/৫৬৬, ১৮/০৬/২০১৭ইং তারিখ নিয়মিত গ্রেফতারও হয়। ২ নম্বর আসামী আলমগীর হোসেন’র বিরুদ্ধে (বরিশাল সদর ও বরগুনা সদর এন.এই এ্যাকট ১৩৮ ধারায় এক কোটি ত্রিশ লক্ষ টাকার চেক প্রতারণা মামলা চলমান রয়েছে। ৩ নম্বর আসামী দেওয়ান শাকিল এর বিরুদ্ধে বরিশাল মুলাদী থানায় ফৌজদারী মামলার এজাহার ভূক্ত আসামী। মামলা নং- ৭৫/১৯, ফৌজদারী মামলায় শাকিল ০৬/১২/২০২০ইং তারিখ কোতয়ালী পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয়ে ০৭/১২/২০২০ইং তারিখ জামিনে মুক্তি পায়। ৪ নম্বর আসমী আব্দুর রব মিলন (৫) সেলিনা আক্তার (৬) লুৎফা বেগমকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন (মামলা নং- ৩১৫/২৫০, যাহা চলমান রয়েছে)।

বিবাদীরা ত্রাস-সন্ত্রাস সৃষ্টিকারী ও বোমাবাজ প্রকৃতির লোক। তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা ধরনের মামলা। অন্যের জায়গা-জমি ভূয়া কাগজপত্র দেখিয়ে জোড়-জবরদখল করা, ভূঁয়া চেক দিয়ে মানুষের প্রতারণা করাই তাদের নেশা ও পেশা। এাছাড়াও তারা দেওয়ানী মামলা তুলে নেওয়ার জন্য বাদীকে প্রকাশ্যে হুমকি-ধামকি দিয়ে যাচ্ছে। বিবাদীদের এহেন সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মধ্যে দিয়ে দেওয়ানী মামলাটি সুষ্ঠভাবে পরিচালনা করতে পারবে কিনা? এই চিন্তায় বাদী নিলয় পারভেজ রুবেল চরম হতাশায় ভুগছেছে। তাই প্রশাসনের কাছে মামলার বাদী রুবেল অনুরোধ জানাচ্ছে সঠিক ভাবে তদন্ত করে বিচার করার জন্য। বর্তমানে তিনি নিরাপত্তাহীন অবস্থায় রয়েছে।

এনিয়ে বরিশালের বিভিন্ন স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় গতবছর বেশ কয়েকবার সংবাদ প্রকাশ করা হলেও থামেনি তাদের অপকর্ম।

এবিষয় ১১ নং ওয়ার্ড কাউন্সিল মজিবর রহমান বলেন, আমরা স্থানীয় গর্নমান্যব্যক্তিদের নিয়ে বেশ কয়েকবার শালিশ করেছি। কিন্তু বিবাদীরা তা মানেনি। পরে বাদী আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। এখন আদালত যে সিকদান্ত দেয়। এখন আর বিষয়টা আমাদের নয়। আদালতের বিষয়।’

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :