বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে নাতিকে চোর সন্দেহে পিটিয়ে হত্যা, পলাতক দাদা গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশালের মুলাদীতে বাগানের নারিকেল ও লেবু চুরির সন্দেহে নিজের স্কুলপড়ুয়া নাতিকে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেন দাদা আবুল কাশেম হাওলাদার (৬৬)। গত ২৮ এপ্রিল উপজেলার জালালাবাদ গ্রামে দশম শ্রেণির ছাত্র জিসান (১৭) হত্যাকান্ডের পর একটি মামলা হলেও তার দাদা আত্মগোপনে চলে যাওয়ায় স্থানীয় থানা পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করতে পারছিল না। তবে পুলিশ না পারলেও তাকে গ্রেপ্তারে সফল হয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)। সোমবার (৯ মে) রাতে সিআইডির একটি টিম তাকে কিশোরগঞ্জের ভৈরব থেকে গ্রেপ্তার করে। মঙ্গলবার (১০ মে) অপরাহ্নে রাজধানীর মালিবাগে সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তাকে গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিশ্চিত করাসহ মিডিয়ার সামনে নিয়ে আসা হয়। এবং সেখানে মিডিয়াকর্মীদের সম্মুখে তিনি নাতিকে হত্যার কথা স্বীকারসহ ঘটনার সবিস্তার বর্ণনা করেছেন।

আবুল কাশের বরাত দিয়ে সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার (এসএসপি) মুক্তা ধর জানান, আবুল কাশেমের বাড়ির পেছনে নারিকেল ও লেবুর বাগান রয়েছে। গত ২৭ এপ্রিল রাতের আঁধারে কে বা কারা গাছ থেকে নারিকেল ও লেবু চুরি করে নিয়ে যায়। পরে সকালবেলা ছোট ছেলে আজিজুলের স্ত্রী আখিনুর বেগম গাছে ফল না দেখে প্রবাসী বড় ছেলের স্ত্রী ও তার ছেলে-মেয়েকে সন্দেহ করে গালিগালাজ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতি হয়। ছোট ছেলে আজিজুল ও তার স্ত্রী আখিনুর মিলে বড় ছেলের স্ত্রী জেসমিন ও তার মেয়ে নাজমুন নাহার শিখাকে মারধর করতে থাকেন। তাদের চিৎকারে তার নাতি জিসান ঘর থেকে বের হয়ে তার মা ও বোনকে ছাড়িয়ে নেয়।

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও জানান, এ সময় আজিজুলের সঙ্গে জিসানের কথা কাটাকাটি হতে থাকলে দাদা আবুল কাশেম হাওলাদার আজিজুলের পক্ষ নিয়ে উঠানে থাকা ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে জিসানের মাথায় আঘাত করে। এতে জিসান তাৎক্ষণিকভাবে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এরপর তারা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা গুরুতর আহত অবস্থায় জিসানকে উদ্ধার করে মুলাদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে ২৮ এপ্রিল রাতে জিসান মারা যায়।

এসএসপি মুক্তা ধর বলেন, নিহত জিসান মালয়েশিয়া প্রবাসী নজরুল ইসলাম হাওলাদারের একমাত্র ছেলে এবং মুলাদী উপজেলার লক্ষ্মীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। হত্যার ঘটনায় জিসানের মা মোসা. জেসমিন বেগম একটি হত্যা মামলা করলে দাদা পালিয়ে গিয়ে আত্মগোপনে চলে যান।’

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp