বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে নারী নির্যাতনের প্রতিবাদ করায় ছাত্রলীগ কর্মীকে ফাঁসানোর অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :: বরিশাল নগরীর ২৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আজম খানের বিরুদ্ধে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবির মিথ্যা অভিযোগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। আজমের বিরুদ্ধে সাংবাদিক তানজিমুল ইসলাম রিশাদের স্ত্রী রাবেয়া আক্তার নাইমাকে জোরপূর্বক আটকে রেখে ৫ লাখ টাকা চাঁদাদাবির মিথ্যা অভিযোগে থানা ও কয়েকটি অনলাইন প্রত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।
নগরীর ২৫ নং ওয়ার্ডের বাস স্ট্যান্ড এলাকার বাসিন্দা মোঃ আজম খান।
এবিষয়ে তানজিমুল ইসলাম রিশাদের স্ত্রী রাবেয়া আক্তার নাইমা অভিযোগ করে জানান, ২০১৭ সালের ২৬ মে ঝালকাঠি সদর থানাধীন কাঁচাবালিয়া গ্রামের বাসিন্দা মাষ্টার মোঃ ইউসুফ আলীর ছেলে তানজিমুন ইসলাম রিশাদের সাথে বরিশাল নগরীর ২৫ নং ওয়ার্ড নিবাসী রফিকুল ইসলাম টুকুর কন্যা রাবেয়া আক্তার নাইমার বিবাহ হয়। বিবাহের কিছুদিন অতিবাহিত হলেই সাংসারিক ঝামেলায় দুজনের মধ্যে ঝগড়া বিবাদের সৃষ্টি হতে থাকে এ সময়ে প্রায়ই স্ত্রী নাইমার গায়ে হাত তুলতো রিশাদ। বাবার অমতে বিয়ে করায় ছেলে রিশাদকে বাসা থেকে বের করে দেন তার বাবা । পরবর্তীতে তানজিমুল ইসলাম রিশাদের পত্রিকায় কাজ করার সুবাদে সে কালিজিরা ব্রীজ সংলগ্ন একটি ভাড়াবাসায় স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস শুরু করেন। সেখানেও স্ত্রী নাইমার গায়ে প্রায় হাত তুলতো রিশাদ। স্ত্রী সন্তান সম্ভবা জেনেও বার বার শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত রিশাদ। চলতি বছরের ৪ সেপ্টেম্বর সন্তান প্রসব করেন নাইমা। এরপরেই নাতী ও মেয়েকে আনতে তার ভাড়া বাসায় যায় নাইমার মা মোসাঃ সালেহা বেগম। এ সময়ে নিজ শাশুড়ীর সাথেও অসৌজন্যমূলক আচরণ করেন রিশাদ। সে সময়ে নাইমা নিজ শারীরিক অবস্থার কথা চিন্তা করে বাবার বাড়িতে চলে আসেন। এরপরের দিন রিশাদ স্রী ও সন্তানকে আনতে শশুর বাড়িতে গেলে নাইমা তার সাথে যেতে অনিচ্ছা প্রকাশ করলে তানজিমুল ইসলাম রিশাদ কতিপয় সংবাদকর্মীদের নিয়ে শশুর বাড়িতে গিয়ে স্রী নাইমাকে নেয়ার জন্য জোর করলে নাইমার ছোট ভাই রিশাদ ও নাইমার স্থানীয় অভিভাবক আজম খান জানালে আজম রিশাদকে জানায় সে যেন তার বাবা ও মাকে নিয়ে এসে তার স্ত্রী ও সন্তানকে নিয়ে যায়।
এ সময়ে তার সাথে আসা সংবাদকর্মীরাই তার বরিশাল সংবাদ২৪.কম এর আইডি কার্ড তার শাশুড়ীর হাতে তুলে দেয় এবং বিষয়টিকে পারিবারিক ভাবে মিটিয়ে নিতে আজম খান ও রিশাদের পিতা ইউসুফ মাস্টার কে দায়িত্ব দেয়। গত সোমবার এ বিষয়ে কালিজিরা ব্রীজ সংলগ্ন বাজারে একটি শালিস বৈঠক বসলে সেখানে রিশাদের বাবা ইউসুফ মাস্টার সরাসরি জানিয়ে দেয় পুত্রকেই আমি চিনিনা, বউ নেয়া আমার পক্ষে সম্ভব না। এসময়ে ওই এলাকার গন্যমান্য ব্যাক্তিদের উপস্থিতিতেই তিনি এ বিষয়ে সরাসরি রিশাদের সাথে কথা বলতে বলে সেখান থেকে চলে যান।
পরবর্তীতে স্ত্রী ও সন্তানকে নিতে না পারায় ২৫ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আজমকে এ বিচার শালিস থেকে সড়াতেই থানায় একটি মিথ্যা চাঁদাবাজির অভিযোগ দায়ের করে সংবাদকর্মীদের ভুল তথ্য প্রদান করা শুরু করে যার কোন সত্যতা নেই।
এ বিষয়ে তানজিমুন ইসলাম রিশাদ স্ত্রী নাইমা জানান, আমার স্বামী আমাকে প্রায় নির্যাতন করে। আমার মায়ের গায়েও সে হাত তুলেছে। আমার বাবার বাড়িতে লোকজন নিয়ে এসে আমাকে তুলে নিয়ে যেতে চাইলে আজম মামা আমাকে রক্ষা করেন। তাই আজম মামাকে সে ফাঁসানোর জন্য মিথ্যা অভিযোগ করেছে।
রিশাদের পরিচয়দানকারী প্রতিষ্ঠানের কতৃপক্ষ বলছে, রিশাদের অপকর্মে আমরা লজ্জিত হয়ে তার আইডি কার্ড কেড়ে নেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে আজম খান জানান, আমি সর্বদাই ন্যায়ের পক্ষে কাজ করতে চাই। আমি আজকে প্রতিবাদ করায় আমাকে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে হয়রানি করা হচ্ছে ।
এ ব্যাপারে রিশাদের বাবা জানান, আমার ছেলের সাথে তার শাশুড়ীর ঝগরা হয়েছে শুনেছি তবে আজম এর সাথে কোন ঝামেলার কথা আমি জানিনা।
এ ব্যাপারে রিশাদ বলেন, আজম ও আমার শ্যালকরা আমাকে মারধর করে আমার মোবাইল, আইডি কার্ড ও টাকা রেখে দিয়েছে।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।