বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশালে পানি খেতে চাওয়ায় জটিল রোগে আক্রান্ত ছাত্রকে বেদম পেটালেন শিক্ষক

উজিরপুর প্রতিনিধি ::: সরকারের আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে বরিশাল জেলার উজিরপুরে চৌমোহনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক পানি খেতে চাওয়ায় জটিল রোগে আক্রান্ত ১০ম শ্রেনির এক ছাত্রকে বেদম পিটিয়ে গুরুত্বর আহত করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

উপজেলার বড়াকোঠা ইউনিয়নে চৌমোহনী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ইংরেজি শিক্ষক দুলাল চন্দ্র মন্ডলের কাছে ওই স্কুলে ১০ম শ্রেণীতে পড়ুয়া ছাত্র জটিল রোগে আক্রান্ত ইমরান হাওলাদার মঙ্গলবার দুপুরে পানি পান করার জন্য বাহিরে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করে। কিন্তু সহকারী শিক্ষক দুলাল চন্দ্র মন্ডল পানি পানের সুযোগ না দিয়ে উল্টো ক্ষিপ্ত হয়ে ইমরানকে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ২০/২২টি বেত্রাঘাত করেন। এদিকে শিক্ষার্থীর উপর হামলার ঘটনায় ধামাচাপা দেয়ার জন্য প্রধান শিক্ষক অলিউল ইসলাম, উভয় পক্ষকে অফিস কক্ষে ডেকে এনে শিক্ষক ছাত্রদের মারধর করলে কোন সমস্যা হয়না বলে উল্টো ওই ছাত্রকে দিয়ে শিক্ষকের কাছে পায়ে ধরে মাপ চাইতে বলে। এরপর ইমন প্রধান শিক্ষককের কথামত পায়ে ধরে মাপ চেয়ে নেয়। এভাবেই পাড় পেয়ে যান অভিযুক্ত শিক্ষক।

এ ব্যপারে বৃহস্পতিবার সকালে ওই স্কুলে সাংবাদিকরা ছুটে গেলে ভুক্তভোগী ছাত্র ইমরান বলেন- আমি জটিল রোগে আক্রান্ত। আমি বেশিক্ষন দাড়িয়ে থাকলে আমি অচেতনের মতো হয়ে যাই এবং আমাকে বারবার পানি খেতে হয়। এমনকি আমার হার্টের সমস্যার কারনে ইতিপূর্বে আমার ইসিজি করা হয়েছে। ঘটনার দিন আমার খুব পানি তৃষ্ণা পাওয়ায় আমি দুলাল স্যারকে পানি খাওয়ার জন্য সুযোগ চাইলে আমার বাম হাতসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে বেত দিয়ে ২০/২৫টি পিটান দেয়। এরপরে উল্টো আমাকে স্যারের কাছে মাপ চাওয়ায়ে ঘটনার মিমাংসা করেছে।

অভিযুক্ত শিক্ষক দুলাল চন্দ্র মন্ডল শিক্ষার্থীকে বেত্রাঘাতের বিষয়টি স্বীকার করে বলেন- বেয়াদবি করায় তাকে পিটিয়েছি।

প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলিউল ইসলাম জানান- বিষয়টি নিয়ে নোটিশের মাধ্যমে বুধবার উভয় পক্ষকে অফিসে এনে ছাত্রকে দিয়ে সহকারী শিক্ষকের কাছে মাপ চাওয়ানো হয়েছে এবং বিষয়টি মিমাংসা করে দিয়েছি।

ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ ইসমাইল হোসেন জানান- শুনেছি বিষয়টি মিমাংশা হয়েছে।

উজিরপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার এবিএম জাহিদুল ইসলাম জানান- বিষয়টি জানা নেই, তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp