বরিশালে প্রতিবেশীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশালে প্রতিবেশীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট বরিশালে প্রতিবেশীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম
বরিশালে প্রতিবেশীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বরিশালে প্রতিবেশীকে ধর্ষণ, ছাত্রলীগের চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট

প্রকাশ: ১০ অক্টোবর, ২০১৯ ১২:০৫ : পূর্বাহ্ণ

স্টাফ রিপোর্টার :: বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রতিবেশী প্রেমিকাকে একাধিকবার ধর্ষণের দায়ে বরিশাল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট জমা দিয়েছ পুলিশ। সম্প্রতি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই রোজিনা বেগম চার্জশীটটি জমা দেন।

এরআগে গত ৭ জুলাই কোতোয়ালি মডেল থানায় ধর্ষণের শিকার ওই অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকা মামলাটি দায়ের করেন। অভিযুক্ত চঞ্চল দাস পাপ্পা কালিবাড়ি রোড দক্ষিণের (শ্রী নাথ চ্যাটার্জি লেন) মৃত শিব শংকর দাসের ছেলে। সূত্র জানায়, একই এলাকায় পাশাপাশি বাড়ি হওয়ার সুবাদে বিগত ১৪ বছর ধরে চঞ্চল দাস পাপ্পার সাথে ওই প্রতিবেশী যুবতীর প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। বিভিন্ন সময় পাপ্পা তাকে বিয়ে করার প্রতিশ্রæতি দিয়ে আসছিল।

এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালের ১৫ নভেম্বর সকালে পাপ্পা তার প্রেমিকাকে বাসায় ডেকে নেয়। বাসায় কেউ না থাকায় সে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিছানায় নিয়ে ঝাপটে ধরে ধর্ষণের প্রস্তুতি নেয়। এসময় প্রেমিকা ডাক চিৎকার করলে পাপ্পা তার মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। প্রেমিকা ওই সময় পাপ্পাকে বিশ্বাস করে ধর্ষণের কথা কেউকে না বলায় সে বিভিন্ন সময় ওই যুবতীকে দিনের পর দিন ধর্ষণ করে। সর্বশেষ ঘটনার দিন গত ১৯ ফেব্রুয়ারী সকাল ১০টায় পাপ্পা তার প্রেমিকাকে জরুরী কথা আছে বলে নিজ বাসায় নিয়ে ধর্ষণ করে।

এঘটনায় ২০১৮ সালের ১৫ নভেম্বর থেকে চলতি বছর ১৯ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত দিনের পর দিন বিভিন্ন সময় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করে। ধর্ষণের কারণে প্রেমিকা অন্তঃসত্ত¡া হয়ে পড়লে সে পাপ্পাকে বিয়ে করার জন্য বলে। পাপ্পা বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে প্রেমিকাকে বিয়ে করতে টালবাহানা শুরু করলে গত ৭ জুলাই বিচার পেতে মামলাটি দায়ের করেন।

দায়ের করা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই রোজিনা বেগম ঘটনাটি প্রকাশ্যে ও গোপনে তদন্ত করে ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পান। এছাড়া ৮ জুলাই তিনি ধর্ষিতার মেডিকেল রিপোর্ট পর্যালোচনা করে জানতে পারেন সে ২২ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। গত ১৫ সেপ্টেম্বর সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে মামলার এজাহারনামীয় আসামী চঞ্চল দাস পাপ্পাকে অভিযুক্ত করে চার্জশীট জমা দেন এসআই রোজিনা বেগম।


সকল নিউজ