বরিশালে মাদক ব্যবসা ছেড়ে আলোর পথে আসতে চায় শিল্পি, মান্না ও আরমান

নিজস্ব প্রতিবেদক :: প্রশাসন থেকে শুরু করে প্রতিটি শ্রেণীর মানুষই তাদের মাদক ব্যবসায়ী হিসাবে চিনেন তাদের। ইয়াবা, গাঁজাসহ নানান মাদক বিক্রি করতেন তারা। দীর্ঘদিন পর মাদক বিক্রির পাঠ চুকিয়ে এবার অন্ধকার পথ ছেড়ে আলোর পথে যাওয়া জন্য প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সহযোগীতা চাচ্ছেন। তারা ফিরতে চায় একেবারেই স্বাভাবিক জীবন তথা আলোর পথে। এখন তারা পরিবার পরিজন নিয়ে সুস্থভাবে বাঁচতে চান। লেখাপড়া শিখিয়ে আলোকিত করতে চান ছেলে মেয়েদের জীবন। এমনি এক মানসিকতা নিয়ে আলোর পথে ফিরতে চায় বরিশাল নগরীর পলাশপুরের শিল্পি, মান্না ও আরমান।

এমনভাবে সাংবাদিকদের কাছে আকুতি জানিয়ে শিল্পি বলেন, আমার ৫টি সন্তান। ওরা বড় হয়েছে। ছেলে মেয়ে স্কুলে যেতে পারে না। সবাই ওদের দেখলে মাদক ব্যবসায়ী ছেলে মেয়ে বলে গালি দেয়। একসময় আমিও ভালো ছিলাম। সমাজের কিছু খারাপ মানুষের প্রচারনায় ও সংসারের অভাব অনাটন দেখায় এই মাদকের পথ বেঁচে নিয়ে ছিলাম। ছেলে মেয়েরা প্রতিনিয়ত মাদক ছেড়ে ভালোর পথে আসার জন্য বলে। এখন বুজতে পেরেছি মাদক আমার সংসার, সন্তান, সমাজকে কতটুকু ক্ষতির মুখে ফেলেছে।
আমি পরিবার নিয়ে বাঁচতে চাই। আমি একটা সুযোগ চাই প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে। আমি শুনেছি বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি স্যার ও মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার স্যার শত শত ব্যবসায়ীকে অন্ধকার মাদকের পথ থেকে আলোর পথে যাওয়ার সুযোগ দিয়েছেন। আমরা আল্লাহর বানীর উপর হাত রেখে ও প্রশাসনের কাছে অঙ্গীকার নামা দিয়ে এই পথ থেকে বিদায় নিতে চাই।

মান্না বলেন, এর আগেও আমরা অনেকবার ভালো হওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে ছিলাম। কিন্তু প্রশাসনের কিছু অসাধু কর্মকর্তারা আমাদের ভালো হওয়া কথা শুনে প্রতিনিয়ত হয়রানী করেছে। যা পরবর্তীতে আর কোন সুযোগ পাইনি। এখন যদি প্রশাসন সুযোগ দেয়। তাহলে এই অন্ধকার পথ ছেড়ে আলোর পথে এসে প্রয়োজন হলে রিক্সা চালিয়ে পরিবার নিয়ে জীবন যাপন করবো।

এ বিষয় বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান সাংবাদকর্মীদের বলেন, কেউ যদি মাদক ছেড়ে ভালো হতে চায় তাহলে তাদের জীবনমান উন্নয়নের জন্য প্রশাসন সর্বাধিক সহযোগীতা করবে। ইতিমধ্যে মেট্রোপলিটন এলাকার থানার কর্মকর্তাদের মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা করতে বলা হয়ে। অন্ধকার থেকে আলোর পথে আসতে প্রশাসন সব সময় পাশে আছে এবং থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close