বরিশালে শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে ধর্মঘট | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশালে শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে ধর্মঘট বরিশালে শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে ধর্মঘট – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম


বরিশালে শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে ধর্মঘট

প্রকাশ: ১১ জুলাই, ২০১৯ ৮:৪১ : অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সন্ত্রাসী পরিবার কর্তৃক হয়রানি এবং শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে বরিশাল নগরীর লঞ্চঘাট থেকে রূপাতলী রুটে দুই ঘন্টা ধর্মঘট পালন করেছে মাহেন্দ্রা শ্রমিকরা। এসময় তারা লঞ্চ ঘাট এলাকায় অবস্থান নিয়ে হামলাকারী মাদক ব্যবসায়ীর বিচার দাবী জানিয়ে বিক্ষোভ করে।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এই লঞ্চ ঘাট নৌ বন্দরের সামনে এই বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেন। পরে পুলিশ প্রশাসনের আশ্বাসে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

আন্দোলনকারী শ্রমিকরা জানান, তারা লঞ্চ যাত্রীদের গন্তব্যে পৌছে দিতে গভির রাতে এসে নৌ বন্দরের সামনে থ্রি-হুইলার মাহেন্দ্রার সিরিয়াল দেন। কিন্তু নগরীর ভাটারখাল বস্তির বাসিন্দা এলএসডি ঘাটের সরদার আলমগীর সিকদারের মেয়ে জামাই চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী ও হত্যা মামলার আসামী কবুতর সুমন কোন নিয়ম মানছে না। সে শেষে এসে সবার আগে যাত্রী নিয়ে যায়। এতে বাধা দিলে শ্রমিকদের মারধর করে।

শ্রমিকরা জানান, বুধবার কবুতর সুমন আদালতে একটি মামলায় হাজিরা দিতে গেলে বিচারক তাকে জেলে প্রেরন করেন। তার অনুপস্থিতিতে বুধবার রাতে সুমনের শাশুরী রানি বেগম, স্ত্রী রুবি আক্তার, শ্যালিকা লিমা আক্তার, ভাটারখালের রিনা ও স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী রানা লঞ্চঘাট মাহেন্দ্রা স্ট্যান্ডে গিয়ে বিশৃঙ্খলা করে। তারা সুমনের মাহেন্দ্র কোন সিরিয়াল ছাড়াই চলাচলের ব্যবস্থা করতে লাইনম্যানকে হুশিয়ার করে। এতে অপরাগতা প্রকাশ করলে লাইনম্যান জাকির হোসেন কাজীকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল ও হত্যার হুমকি দেয়।

শ্রমিকরা অভিযোগ করেন, বৃহস্পতিবার ভোরে সুমনের মাহেন্দ্র আগে না ছেড়ে নিয়ম অনুযায়ী মাহেন্দ্র চলাচল শুরু করে। এতে ক্ষুব্ধ হয় সুমনের সহযোগিরা। এর পরিপ্রেক্ষিতে ভোরে লঞ্চঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি মাহেন্দ্র যাত্রী নামিয়ে দিয়ে বরিশালে ফিরতে ছিলো। পথিমধ্যে দপদপিয়া জিরোপয়েন্ট এলাকায় সুমনের সহযোগি বারেক মেম্বারের ছেলে সাদ্দাম, আরিফ, রাজু, আউয়াল সহ অন্যান্যরা মাহেন্দ্র’র গতিরোধ করে চালক সজলকে মারধর ও তার সাথে থাকা মোবাইল সেট এবং টাকা ছিনতাই করে। সজলের অভিযোগ সন্ত্রাসীরা তার মাহেন্দ্রটিও ছিনতাই’র চেষ্টা করে। কিন্তু লোকজন এসে পড়ায় তাদের থেকে মাহেন্দ্র নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থল হতে চলে আসতে সক্ষম হন তিনি।

এদিকে শ্রমিককে মারধরের খবর ছড়িয়ে পড়লে ধর্মঘটের ডাক দেয় নগরীর মাহেন্দ্র শ্রমিকরা। সকাল ৯টার দিকে তারা লঞ্চ ঘাট থেকে দপদপিয়া রুটের মাহেন্দ্র চলাচল বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে। পাশাপাশি লঞ্চঘাট এলাকায় নদী বন্দর ভবনের সামনে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। প্রায় দুই ঘন্টা বিক্ষোভ প্রদর্শন শেষে শ্রমিক নেতারা নলছিটি থানায় গিয়ে একটি অভিযোগ দিয়ে আসেন।

শ্রমিকরা জানান, কবুতর সুমন ইতিপূর্বে আরো একবার এমন ঘটনা ঘটিয়েছিলো। তখন সে নিজে লাইনম্যানকে মারধর করে। যা নিয়ে তখনও শ্রমিকরা বিক্ষোভ করেন। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি।

শ্রমিকরা আরো অভিযোগ করেন, সুমন দপদপিয়া এলাকার বারেক মেম্বারের ছেলে সাদ্দাম, আরিফ, রাজু ও আউয়াল সহ কয়েকজনকে নিয়ে একটি সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছে। এরা দপদপিয়া জিরো পয়েন্ট এলাকায় চুরি, ছিনতাই সহ সকল ধরনের অপকর্ম করে থাকে। সম্প্রতি দপদপিয়া থেকে ইজিবাইক চুরির সময় সুমনের এক সহযোগিকে আটক করে সার্জেন্ট নিজাম উদ্দিন। সুমন জেলে থাকায় সিন্ডিকেটের নেতৃত্ব দিচ্ছি বারেক মেম্বারের ছেলে সাদ্দাম।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, ভাটারখাল এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী সুমন ওরফে কবুতর সুমন। তার বিরুদ্ধে একটি হত্যা সহ একাধিক মাদকের মামলা রয়েছে। ভাটারখাল ও দপদপিয়া এলাকায় সুমনের নেতৃত্বে মাদকের বেচা বিক্রি চলছে। তাই চিহ্নিত এই সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে আইনগত কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন মাহেন্দ্রা শ্রমিকরা।