বরিশালে স্ত্রীর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত লেদুর ঠিকানা এখন কোর্টবারান্দা | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশালে স্ত্রীর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত লেদুর ঠিকানা এখন কোর্টবারান্দা বরিশালে স্ত্রীর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত লেদুর ঠিকানা এখন কোর্টবারান্দা – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম


বরিশালে স্ত্রীর প্রতারণায় সর্বস্বান্ত লেদুর ঠিকানা এখন কোর্টবারান্দা

প্রকাশ: ১২ জুন, ২০১৯ ৪:৫১ : অপরাহ্ণ

✪ বাবুগঞ্জ (বরিশাল) প্রতিনিধি ॥ একটি দোকানঘর কেনার জন্য নিজের শেষ সম্বল বিক্রি করে স্ত্রীর হাতে দুই লাখ টাকা তুলে দিয়েছিলেন বাবুগঞ্জের উত্তর রহমতপুর গ্রামের গাছকাটা শ্রমিক আনোয়ার হোসেন লেদু। স্বপ্ন ছিল একটি লাকড়ি বিক্রির দোকান দিয়ে সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনবেন। সরল বিশ্বাসী স্বামী লেদু ভিটামাটি বিক্রির দুই লাখ টাকা স্ত্রীর হাতে জমা রেখে সকালে প্রতিদিনের মতো গাছ কাটতে যান। কথা ছিল- সন্ধ্যায় কাজ থেকে ফিরে এসে দোকান মালিকের সাথে স্ট্যাম্পে চুক্তিবদ্ধ হওয়ার সময় হস্তান্তর করবেন ওই টাকা।

তবে গোপন পরকীয়া প্রেমে আসক্ত স্ত্রী শিল্পী বেগমের মনে ছিল ভিন্ন সংকল্প। সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরে আনোয়ার হোসেন লেদু দেখতে পান দরজায় তালা ঝুলছে। বাড়িতে নেই তার প্রিয়তমা স্ত্রী শিল্পী বেগম। সেই সাথে স্ত্রীর যাবতীয় ব্যবহার্য জিনিসপত্রসহ বাড়িতে নেই বহনযোগ্য কোনো মালামাল। মাথায় আকাশ ভেঙে পড়া লেদু পাগলের মতো ছুটে যান শ্বশুরবাড়ি গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার চরপ্রসন্নদী গ্রামে।

সেখানে তার শ্বশুর মিন্টু শেখ প্রথমে সবকিছু অস্বীকার করলেও পরে তার ৩ ছেলেকে নিয়ে অস্থানীয় অসহায় জামাই লেদুকে মারপিট করে তাড়িয়ে দেন। নিরুপায় দিনমজুর লেদু আহতাবস্থায়ই ফিরে আসেন নিজ গ্রাম বরিশালের বাবুগঞ্জে। পরে আদালতে দায়ের করেন একটি মামলা। এভাবেই স্ত্রীর নিদারুণ প্রতারণায় সর্বস্বান্ত হয়ে এখন আদালতের বারান্দায় প্রতিনিয়ত চক্কর কাটছেন উপজেলার উত্তর রহমতপুর গ্রামের দিনমজুর আনোয়ার হোসেন লেদু।

আদালতের বারান্দার কাঁদতে দেখে মঙ্গলবার এ প্রতিবেদকের সাথে কথা হয় অসহায় আনোয়ার হোসেন লেদুর।

ভীষণ হতাশা আর দুঃখে কাতর দিনমজুর লেদু জানান, প্রতারক স্ত্রী শিল্পী বেগম সুকৌশলে তার শেষ সম্বল জমি বিক্রির নগদ ২ লাখ টাকা ছাড়াও ঘর থেকে স্বর্ণালংকারসহ বহনযোগ্য আরও প্রায় ৫০ হাজার টাকার মালামাল ব্যাগভরে নিয়ে পালিয়ে যায়। স্ত্রীর খোঁজে শ্বশুরবাড়ি গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর গেলে বেধড়ক মারপিটের শিকার হন তিনি।

পরে আহতাবস্থায় বরিশাল ফিরে এসে হাসপাতালে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিয়ে কিছুটা সুস্থ হলে বরিশালের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি নালিশী মামলা (এমপি মামলা নং-১৬/২০১৭) দায়ের করেন লেদু। ওই মামলার নথিপত্র পর্যালোচনায় দেখা যায়, বরিশালের সিনিয়র জুডিশিয়াল আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বিমানবন্দর থানার ওসিকে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেয়ে বিমানবন্দর থানার এসআই ইউসুফ আলী প্রতারক স্ত্রী শিল্পী বেগমসহ সকল আসামীকে দন্ডবিধি ৪০৬/৪২০/১০৯ ধারায় অভিযুক্ত করে গতবছরের ১ এপ্রিল তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। ওই তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পরে আদালত সব আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এদিকে বরিশালে মামলার খবর পেয়ে পলাতক স্ত্রী শিল্পী বেগম গোপালগঞ্জ আদালতে দিনমজুর স্বামী আনোয়ার হোসেন লেদুর বিরুদ্ধে পাল্টা নারী নির্যাতন ও যৌতুক দাবির অভিযোগে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করেন। সেই মিথ্যা মামলায় গোপালগঞ্জ আদালতে আত্মসমর্পন করতে গিয়ে প্রায় একমাস কারাভোগ করেন লেদু।

পরে জামিনে বের হলেও গড়ে প্রতিমাসে তাকে দুইবার গোপালগঞ্জ আদালতে গিয়ে ওই মিথ্যা মামলায় প্রায় দেড় বছর হাজিরা দিতে হয়। শেষ পর্যন্ত ওই কথিত নারী নির্যাতন মামলা মিথ্যা প্রমাণ হলে কয়েকদিন আগে মামলাটি খারিজ করে দেন আদালত। তবে প্রতারক স্ত্রী শিল্পী বেগমের বিরুদ্ধে বরিশাল আদালতে দায়ের করা মামলাটি এখনো চলমান রয়েছে। আসামীরা পলাতক থাকায় মামলা তারিখের পর তারিখ পিছিয়ে যাচ্ছে। ন্যায়বিচারের আশায় আদালতের বারান্দায় ঘুরছেন লেদু।

বরিশাল ও গোপালগঞ্জের আইনজীবীদের চেম্বার আর কোর্টবারান্দায় চক্কর কাটতে কাটতে তিনি আজ নিঃস্ব-সর্বস্বান্ত। স্ত্রীর নিষ্ঠুর প্রতারণায় সংসার এবং জমিজমাসহ সর্বস্ব হারানো দিনমজুর আনোয়ার হোসেন লেদুর চোখের পানিই এখন একমাত্র সম্বল।