বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশাল নগরীতে অবৈধ বিট ছাড়া চলে না মাহেন্দ্র-সিএনজি!

সৈয়দ রাইয়ান :: গাড়ির রেজিষ্ট্রশন কাগজ, ড্রাইভিং লাইসেন্স-ফিটনেস না থাকলেও সমস্যার কিছু নেই। শুধু মাত্র (বরিশাল জেলা ম্যাক্স, রাইডার, চ্যাম্পিয়ান, হিউম্যানহলার, মাহেন্দ্র, আলফা, পিয়াজিও, থ্রি হুইলার, বিও, নন্দী মালিক সমিতি) নথুল্লাবাদ বরিশাল লেখা স্টিকার থাকলেই নগরীতে চলতে পারে মাহেন্দ্র ও সিএনজি। ধরেনা ট্রাপিক পুলিশও! আর এই সমিতির স্টিকার না থাকলে পরতে হয় নানাবিধ সমস্যায়, এমনটিই জানিয়েছেন নগরীর কাউনিয়া এলাকার মাহেন্দ্র ড্রাইভার রতন।

সূত্র বলছে- বরিশাল নগরীতে প্রায় ৫ থেকে ৬ হাজার মাহেন্দ্র ও সিএনজি চলাচল করে। আর এসকল থ্রি হুইলার গাড়ি থেকে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে মালিক সমিতি’র সদস্যরা। মালিক সমিতি’র এই টাকা কোন খাদে খরচ হয় এবং এ টাকার ভাগ কে-কে পায়?

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে মালিক সমিতি’র সভাপতি শাহরিয়ার বাবু ওরফে জিএস বাবু বলেন, আমি এখন মিটিংএ আছি। পরে আইসেন! বলে ফোনটি কেটে দেন।

শ্রমিকদের সাহায্য-সহযোগিতা করার নামে টাকা হাতিয়ে নিয়ে শ্রমিকদের উন্নয়ন না করে পাহাড় সমান উন্নয়ন হয়েছে সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক মুশফিকুর রহমান দুলাল। বরিশাল মহানগর ও জেলা জুড়ে মালিক সমিতি’র নামে টাকা কালেকশনের জন্য অর্ধশত সেলসম্যানও রয়েছে দুলালের।

কোন ড্রাইভার মালিক সমিতি’র স্টিকার না নিতে চাইলে তাকে বিভিন্ন ভাবে ভয়ভীতি দেখানো হয়। আর এসকল কাজে ট্রাফিক পুলিশের কিছু অসাধু সার্জেন্ট-সদস্য ও উর্ধ্বতনদের ওপেন সিক্রেট সহযোগিতা রয়েছে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করে। এমনকি তারাও মাস শেষে দুলালের কাছ থেকে একটি ভাগা নিচ্ছেন বলেও ওই সূত্রটি জানায়।

মালিক সমিতি’র নামে স্টিকার বাণিজ্য চালানোর বিষয়ে দুলালের কাছে জানতে চাইলে তিনি ব্যস্ত আছেন জানিয়ে পরে ফোন দেয়ার কথা বলেন। পরবর্তীতে তাকে ফোন দেয়া হলে তিনি ফোনটি রিসিভ করেন নি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) জাকির হোসেন মজুমদার বরিশাল ক্রাইম নিউজকে বলেন- পূর্বেও এমন অভিযোগ আমরা পেয়েছি। অভিযোগ তদন্ত করে পূর্বেও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এর পরেও পুনারয় যদি কেউ এ কাজটি করে থাকেন তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি আরও বলেন- বরিশালে চাঁদাবাজদের কোন স্থান নেই। কোন গাড়ি থেকেই চাঁদা উত্তোলন করা আইনগত বিধান নেই।

ট্রাফিক সার্জেন্ট বা সদস্যরা স্টিকারগুলো দেখলে গাড়ি থামায় না এ বিষয়ে আপনি অবগত রয়েছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন- এ বিষয়টি আমার জানা নেই, খতিয়ে দেখা হবে।

জিয়া সড়কের সিএনজি চালক আকবর বলেন- প্রতিমাসে এই স্টিকারের জন্য গুনতে হয় ৫শ থেকে ১হাজার টাকা। টাকা উত্তলনের জন্য বরিশাল নগরীর কাউনিয়া, নথুল্লাবাদ, রুপাতলি, জেলখানার মোড়সহ একাধিক স্থানে রয়েছে মালিক সমিতি’র লোকজন।

খোঁজ-খবর নিয়ে জানা গেছে- বানারীপাড়া উপজেলার চাখার গ্রামের মুশফিকুর রহমান দুলাল একসময়কার মাহেন্দ্র ড্রাইভার ছিলেন। বর্তমানে তিনি মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। আর এই দুলালই মালিক সমিতি’র নামে বিট বাণিজ্য ও বিভিন্ন ভাবে শ্রমিকদের টাকা হজম করে আজ কোটিপতি বনে গেছেন। মাহেন্দ্র ড্রাইভার দুলালের বর্তমানে বরিশাল নগরীর লুৎফর রহমান সড়কের বাড়িটি দেখলে চোখ ধাঁধাঁবে যে কারো। এছাড়াও দুলালের রয়েছে নামে বেনামে আরো অনেক সম্পদ।

পাঠক আগামী পর্বে থাকছে দুলালের বরিশাল জেলা জুুড়ে স্টিকার বাণিজ্য ও তার সম্পদের পাহাড় নিয়ে বিস্তারিত তথ্য।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :