বরিশাল নদীবন্দরে সংকীর্ণ পন্টুনে যাত্রীদের দুর্ভোগ | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – বরিশাল নদীবন্দরে সংকীর্ণ পন্টুনে যাত্রীদের দুর্ভোগ বরিশাল নদীবন্দরে সংকীর্ণ পন্টুনে যাত্রীদের দুর্ভোগ – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম

বরিশাল নদীবন্দরে সংকীর্ণ পন্টুনে যাত্রীদের দুর্ভোগ

প্রকাশ: ১৩ জুন, ২০১৯ ১২:৩৭ : অপরাহ্ণ

বিশেষ দিনগুলোতে এভাবে বরিশাল নদীবন্দরের পন্টুন থাকে যাত্রীতে ঠাসা এবং লঞ্চগুলোর পেছনে নোঙর করা রয়েছে আরও ৭টি লঞ্চ
দীর্ঘদিনেও বরিশাল নদীবন্দরের পন্টুন সম্প্রসারিত না হওয়ায় এক লঞ্চ থেকে অপর লঞ্চে উঠতে গিয়ে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে যাত্রীদের। বিশেষ করে ঈদের সময় ১৬ থেকে ১৮টি লঞ্চ একসঙ্গে নদীবন্দরে ভিড়তে না পেরে লঞ্চের পেছনে নোঙর করে।

এতে করে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে এবং বহু যাত্রী আহত হচ্ছেন। একইসঙ্গে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে লঞ্চগুলোও। পন্টুন সম্প্রসারণের জন্য লঞ্চ মালিক ও স্টাফরা বন্দর কর্তৃপক্ষকে বারবার তাগিদ দিলেও তা বাস্তবায়ন আশ্বাসেই সীমাবদ্ধ।

এছাড়া লঞ্চগুলোর মাস্তুল পন্টুনের বেশিরভাগ জায়গা দখলে রাখায় পন্টুনের ডিজাইন পরিবর্তনেরও দাবি জানাচ্ছেন সংশ্লিষ্টরা।

বরিশাল বিআইডব্লিউটিএ সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবছর বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন অত্যাধুনিক বিলাসবহুল বিশালাকার যাত্রীবাহী লঞ্চ। কিন্তু লঞ্চ বাড়লেও বরিশাল নদীবন্দরের পন্টুন সম্প্রসারিত হয়নি। এ কারণে স্বাভাবিক সময়ে ছয় থেকে সাতটি লঞ্চ ধারণক্ষমতার পন্টুনে ঈদের সময় বরিশাল থেকে ঢাকা নৌরুটে চলাচলকারী ১৮টি লঞ্চ এবং দিনের বেলায় চলাচলকারী ওয়াটারবাসের জায়গা হয় না।

এ সময় ছয়টি লঞ্চের পেছনে বাকি লঞ্চগুলোকে নোঙর করে যাত্রী তুলতে হয়। আর লঞ্চের পেছনে নোঙর করতে গিয়ে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত লঞ্চগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এছাড়া একটি লঞ্চ পেরিয়ে আরেকটি লঞ্চে উঠতে গিয়ে ঘটে দুর্ঘটনা। নদীতে পড়ে যাওয়াসহ রক্তাক্ত জখমও হয়েছেন বহু যাত্রী। আর এ সমস্যাটা দেখা দেয় বিশেষ করে দুই ঈদের সময়।

এছাড়া এখন বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে যাত্রী পরিবহনে যে ধরনের লঞ্চ নির্মিত হচ্ছে, সেগুলোর মাস্তুল অনেক বড়। লঞ্চগুলো ভেড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে মাস্তুলটি পন্টুনের বড় একটি অংশ দখলে নেয়। সেখান দিয়ে যাত্রীরা চলাচল করতে পারেন না।

এ ব্যাপারে সুরভী গ্রুপ অব কোম্পানির পরিচালক রেজিন উল কবির জানান, ‘বরিশাল-ঢাকা নৌরুটে যাত্রী পরিবহন স্বাভাবিক রাখতে পন্টুনের প্রশস্ততা বাড়ানো এবং পন্টুনের সংখ্যা বৃদ্ধির দাবি বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যানকে জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) বন্দর ও পরিবহনের উপ-পরিচালক আজমল হুদা মিঠু সরকার বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নদীবন্দরে আরও তিনটি পন্টুন বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে। পন্টুনের কারণে যাত্রীদের যে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। আশা করি আগামী বছর এ দুর্ভোগ আর থাকবে না।