বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশাল বিসিকে ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে নির্যাতনের গোপন রহস্য…!

নিজস্ব প্রতিনিধি :: সম্প্রতি বরিশালে প্রকাশ্য দিবালোকে রাস্তায় দাড়িয়ে থাকা স্থানাীয় এক ব্যবসায়ীকে তুলে নিয়ে মিথ্যা অভিযোগে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে। পাওনা টাকা চাওয়ায় ওই ব্যাবসায়ীকে জোরপূর্বক সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে তুলে নিয়ে অস্ত্র ঠেকিয়ে ভয়ভীতি দেখান ফরচুন সুজ লিমিটেডের স্বত্বাধিকারী মিজানুর রহমান এমনটাই অভিযোগ করেন ব্যবসায়ী সোহাগ হাওলাদার। এমনকি নারীদের উত্তক্ত করাসহ বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগ এনে ক্ষমতার অপব্যবহার করে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেন মিজান বাহিনী।

ব্যবসায়ী সোহাগ হাওলাদার অভিযোগ করে বলেন, বুধবার (২০ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে ১০ টায় বরিশাল বিসিক শিল্প নগরীর শাহাদাত এন্টারপ্রাইজের স্বমিলের সামনে পাওনাদারের কাছে পাওনা টাকা উত্তোলনের জন্য মটরসাইকেল যোগে আসেন তিনি। এ সময় মিজান তার ভাড়াটে ক্যাডার বাহিনী নিয়ে তাকে (সোহাগ) টেনে হিঁচড়ে ফরচুন সুজ লিমিটেডের ভিতরে নিয়ে এলোপাতাড়ি মারপিট শুরু করেন। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় পার্শ্ববর্তী বিট পুলিশের সদস্যরা। উপস্থিত পুলিশ সদস্যদের সামনেই ফরচুন মালিক মিজান তার গাড়িতে থাকা শট গান ঠেকিয়ে বিভিন্ন ভয়ভীতি দেখায়। ফের মিজানের ভাড়াটে ক্যাডাররা তাকে মারধর শুরু করে।

তিনি আরও বলেন, অবস্থা বেগতিক দেখে উপস্থিত পুলিশ সদস্যরা হস্থক্ষেপ করলে তাদেরকেও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে ভাড়াটে ক্যাডাররা। এসময় উপস্থিত কঠোর হলে পালিয়ে যায় ভাড়াটে ক্যাডাররা। পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তাকে উদ্ধার করে কাউনিয়া থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। থানায় নিয়ে অদৃশ্য কারনে তার উপর হামলার ঘটনায় মামলা দিতে চাইলে পুলিশ নানান অজুহাতে মামলা নিতে গড়িমশী করে। এমন পরিস্থিতিতে কাউনিয়া থানার সামনে ভীড় করতে থাকে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। এক পর্যায় মামলা না নেয়া ও মিজনসহ তার ক্যাডারদের গ্রেপ্তারের দাবীতে কঠোর বিক্ষোভে উত্তাল হয়ে ওঠে কাউনিয়া থানা চত্ত্বর। ধীরে ধীরে এ উত্তাপ ছড়িয়ে পরে গোটা নগরীতে। অচল হয়ে পড়ে নগরী। অতঃপর মামলা নিতে বাধ্য হয় পুলিশ।

কেনই বা এত বড় শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিক হামলা করলো সামান্য সিমেন্ট ব্যবসায়ীর উপর?

ঘটনার সূত্রপাত, বরিশাল সিটি করপোরেশনের জায়গা দখল করে বিসিকের সীমানা প্রাচীর নির্মাণ কাজ শুরু করেন বরিশাল বিসিকের উন্নয়ন কাজের পিডি জালিস মাহমুদ সানি।কিন্তু বিসিকের উন্নয়ন কাজের অংশে সিটি করপোরেশনের সম্মুখের জায়গায় দেয়াল নির্মাণের কথা না থাকলেও সিটি করপোরেশনের জায়গা দখল করেই কাজ শুরু করেন তিনি। রাস্তার জায়গায় সীমানা প্রাচীর নির্মাণ বন্ধে বিসিককে লিখিত আদেশ দেয় বিসিসি। কিন্তু বিসিসির দেয়া নির্দেশে কর্নপাত না করে রাতের আধারে সিটি করপোরেশনের জায়গায়ই সীমানা প্রাচীর নির্মাণের চেষ্টা করেন বিসিকের উন্নয়ন কাজের প্রজেক্ট ডাইরেক্টর (পিডি) মোঃ জালিস মাহমুদ সানি।এই সীমানা প্রাচীর নিয়ে বিসিক কর্তৃপক্ষের এমন অসাদাচারন কি লক্ষ্যনীয় নয়?

এ সময় বিসিসির মেয়র যুবরত্ন সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসলে মেয়রের সম্মান হানীর চেষ্টা চালায় ফরচুন সুজ লিমিটেডের মালিকের ছোট ভাই শফিক। মেয়রকে বদনাম করতে ছাত্রলীগ নেতা রইজ আহমেদ মান্না ও দুই আওয়ামী লীগ কর্মীর নামে কাউনিয়া থানায় একটি মামলাও দায়ের করেন মিজানের ভাই শফিক। মামলায় স্বাক্ষী করা হয় স্থানীয় কিছু শিল্প মালিকদের।

সে সময় মামলার অন্যতম স্বাক্ষী লাভলু বলেছিলেন, তিনি জানতেনই না যে তাকে মামলায় স্বাক্ষী করা হয়েছে। তবে কি বিসিকের উন্নয়ন খাতে আসা কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎ করার জন্য ষড়যন্ত্রের জাল বুনতে শুরু করেন বিসিক কর্তৃপক্ষ ও কথিত মালিক সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান?

বিসিকের উন্নয়ন কাজে টেন্ডার প্রক্রিয়ায় কাজপ্রাপ্ত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউনুস এন্ড বাদ্রার্স প্রাইভেট লিমিটেড, জিদ সন্স কনস্ট্রাকশন লিমিটেড, এমএস বিল্ডার্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড এবং মেসার্স ইসলাম ব্রাদার্সকে কাজ শুরুর নির্দেশ দিলেও মুলত বিসিকের সকল কাজ করছেন বিসিক মালিক সমিতির সভাপতি মিজানুর রহমান ও জে আইপির মালিক ইব্রাহিম। উন্নয়নের নামে শুরু করেন হরিলুট।

বিসিকের রাস্তা খুঁড়ে বের হওয়া ৩৫ বছরের পুরাতন ইট মেশিনে ভেঙে পুনরায় ব্যবহার করেন রাস্তায়। নিন্মমানের কাচামালের ব্যবহার করেই কোন রকম সঠিক কলাকৌশল ব্যবহার না করেই তৈরী করেন অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা যা দিয়ে পানি নামার পরিবর্তে উল্টো পানি বন্দি হচ্ছে শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো।এ ঘটনায় পূর্বে সংবাদ প্রকাশিত হলেও বিসিক কর্তৃপক্ষ ছিলো নীরব। মিজানের বিরুদ্ধে কেউ বিসিক অফিসে নালিশ করতে গেলে উল্টো তাকেই পরতে হয়েছে বিপদে। এমনকি সংবাদকর্মীদের সাথেও বাকবিতন্ডায় লিপ্ত হয় বিসিক কর্তৃপক্ষ।

বিসিক কর্তৃপক্ষকে জানিয়েও কোন সুফল না পেয়ে সকল দূর্নীতি বন্ধ করে মিজানকে মালিক সমিতির পদ থেকে সরিয়ে বিসিকের উন্নয়ন কাজের টাকা রক্ষা করার জন্য বিসিক মালিক সমিতির কমিটির উপরে অনাস্থা জানাতে মেয়রের বাসভবনে গিয়ে গণস্বাক্ষর দেয় বিসিকের অন্যান্য শিল্প মালিকরা। এ সময় বিসিসি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ শিল্প মালিকদের আশ্বাস দেন যে তিনি যে কোন উপায়ে বিসিকের উন্নয়ন কাজের টাকা রক্ষা করার জন্য সর্বোচ্চ সহোযোগিতা করবেন। তারই ফলশ্রুতিতে মেয়র মহোদয়ের নির্দেশে বিসিক মালিক সমিতির সকল কর্মকাণ্ড স্থগিত করা হলে টনক নড়ে মিজান ও কিছু অসাধু শিল্প মালিকদের। শুরু করেন মেয়র থামাও ষড়যন্ত্র। যারই অংশ হিসাবে বুধবার সকালে সোহাগকে মারধর করেন ফরচুন মালিক মিজান ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীরা। মিজানের নিক্ষেপ করা ষড়যন্ত্রের তীর সরাসরি আঘাত হানে লক্ষ্যে। সোহাগকে আক্রমন করে মেয়রকে তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য থেকে বিচলিত করাই ছিলো মুলত মিজানের কৌশল।

এছাড়াও ফরচুন সুজের ফিটনেস বিহীন বাসের চাপায় স্থানীয় বেকারি শ্রমিক নিহতের ঘটনা ও ফরচুন সুজ লিমিটেডে বেতন বহির্ভুত ছাটাই ও শ্রমিকদের নির্যাতন বন্ধে মালিক মিজান ও তার স্বৈরাচারী ভাইদের বিরুদ্ধে রাস্তায় মানববন্ধন ও ঝাড়ুমিছিল করেন ফরচুন সুজে চাকরি করতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার শ্রমিক ও স্থানীয় বাসিন্দারা সে সময়ে ফরচুন সুজ মালিকের বিরুদ্ধে হওয়া ঝাড়ু মিছিলে অংশগ্রহণ করেছিলেন সোহাগ।

ফরচুনে নির্যাতনের শিকার এক নারী শ্রমিক জানায়- শারীরিক অসুস্থতা জনিত কারণে মাত্র তিন দিন অনুপস্থিত থাকায় পুরো মাসের বেতন না দিয়েই তাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেয় ফরচুন কর্তৃপক্ষ। ফরচুনের একাধিক শ্রমিক জানান মাসে ৩ দিন অনুপস্থিত হলেই কেটে নেয়া হয় তাদের পূর্ণ মাসের বেতন।কেউ মিডিয়ার দারস্থ হলে পোহাতে হয় ভোগান্তি। মিথ্যা মামলা ও মারধরের ভয়ে মুখ খোলেননা কেউ।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী সোহাগ জানান ফরচুন কোম্পানি নির্মানের সময় মিজানের কাছে নির্মাণ সামগ্রী বিক্রি করেছিলেন তিনি। সেসময়ে এক সাথেই চলতেন ফরচুন মালিকের ছোট ভাই শফিক ও সোহাগ।একই সাথে সোহাগের মায়ের হাতে রান্না করা ভাত ও খেতেন তারা।অনেকটা গভীর সম্পর্কের টানে ও সরল বিশ্বাসেই মিজানকে লাখ লাখ টাকা বাকীতে নির্মান সামগ্রী সরবরাহ করেন সোহাগ। কিন্তু সময়ের ব্যবধানে সম্পর্কের অবনতি হলে সোহাগের বাকী টাকা দিতে অস্বীকার করেন মিজান।এ ঘটনায় বরিশাল কাউনিয়া থানায় একটি অভিযোগ করেছিলেন সোহাগ।এছাড়াও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তিনি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর পন্থী।বিসিকে নিজের অবস্থান ধরে রাখতেই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে মিজান তার উপরে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত হামলা চালিয়েছে বলে দাবি করেন সোহাগ। তিনি আরও জানান আমাকে মেরেই ক্ষান্ত হননি মিজান।নারী উত্তোক্তকারী হিসাবে সংবাদ প্রকাশ করান তার নিয়ন্ত্রিত কতিপয় পত্রিকায় যার কোনটাই সত্যি নয়।

এ ব্যপারে বিসিক মালিক সমিতির সাবেক কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ মিলন জানান, আমি ফরচুন মালিক মিজান ভাইয়ের কমিটির সাধারণ সম্পাদক ছিলাম কিন্তু বিসিকের উন্নয়ন কাজের চেয়ে পদমর্যাদা আমার কাছে দামী নয়। তাদের দূর্নীতি বন্ধ করতে আমি আমার নিজের কমিটির প্রতি অনাস্থা জানিয়ে মেয়র মহোদয়ের নিকট আবেদন করেছি।

এ সকল অভিযোগ অস্বীকার করে জালিস মাহমুদ সানি জানান, বিসিকের পিছনে পানি থাকায় আমরা সেখানের দেয়াল নির্মাণ বন্ধ করে সামনের দেয়াল নির্মাণ শুরু করি।তবে প্রকৌশলীদের ভুলে সেটি সিটি করপোরেশনের জায়গায় হয়েছে।আমাদের জমির পরিমাপ শেষ হলেই সকল সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।রাতের আধারে দেয়াল নির্মাণের ব্যাপারে জানতে চাইলে কোন সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

এ ব্যাপারে জানতে ফরচুন সুজ লিমিটেডের মালিক মিজানুর রহমানের সঙ্গে একাধিক যোগাযোগের চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :