বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের ওসিসিতে সহায়তা পাচ্ছে না নির্যাতিতা নারীরা!

নিজস্ব প্রতিবেদক :: নারী নির্যাতন প্রতিরোধকল্পে মাল্টিসেক্টরাল প্রোগ্রামের একটি মুখ্য কর্মসূচি ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) । নির্যাতনের শিকার নারী ও শিশুদের প্রয়জনীয় সেবা একস্থান থেকে দেয়ার ধারণার ওপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে ওসিসি। প্রকল্পের প্রথম পর্বে ২০০৬ সালে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওসিসি স্থাপিত হয়। ওসিসিতে স্বাস্থ্যসেবা,পুলিশি সহায়তা, ডিএনএ পরীক্ষা, সামাজিক সেবা, আইনি সহায়তা, মনো-সামাজিক কাউন্সেলিং ও আশ্রয় সেবা দেওয়া হলেও অনেক রোগীই তা জানেনা।

এদিকে ওসিসিতে সেবা নিতে আসা নির্যাতিতার সমস্যা সমাধানের কথা বলে তাদের পরিবারের সদস্য ও প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয় এখানকার দায়িত্বরতরা। এমনটাই অভিযোগ করেছেন নির্যাতিতা একাধিক নারী। দায়িত্বে থাকা প্রকল্প সমন্বয়ক সুলেখা,অ্যাডভোকেট আসমা,পুলিশের এসআই জলিল,এসআই ফরিদা বেগম,নার্স পুষ্প,অফিস সহকারী রেহেনা বেগম,হারুন ওরফে পান হারুন,রেজাউল করীম,মনির নির্যাতনের শিকার নারীদের সাথে খারাপ আচরন করে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। দীর্ঘ বছর এখানে চাকুরী করার সুবাদে এখানকার দায়িত্বরতরা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে।

অভিযোগ রয়েছে- পুলিশের এসআই জলিল ও এসআই ফরিদা নির্যাতিতা গৃহবধূর স্বামীর কাছ থেকে সমাধানের কথা বলে টাকা নিয়ে আসেন। আবার নির্যাতিতা নারীরা যখন ওসিসিতে চিকিৎসাধীন থাকেন তখন ওষুধ দেওয়ার নাম করে টাকা নেয় হাসপাতালের নার্স পুষ্প। অফিস সহকারী হারুন ওরফে পান হারুন,রেজাউল করীম,মনিরকে টাকা না দিলে এখানের খাবারও মেলে না। সর্বশেষ এসব নির্যাতিতা নারীদের গালমন্দ করে তাদের হাতে একটি ভিজিটিং কার্ড ধরিয়ে দেওয়া হয়। এই ভিজিটিং কার্ডটি অ্যাডভোকেট আসমা বেগমের।

বরিশাল কাশিপুরের বাসিন্দা খাদিজা আক্তার এ প্রতিবেদককে বলেন, স্বামী অলি মোল্লা ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন যৌতুকের দাবীতে প্রায় সময় আমাকে মারধর করতো।২০২০ সালের ৭ জুলাই আমাকে মেরে আহত করলে আমি ওসিসিতে আইনী সহায়তা গ্রহণের জন্য যাই। কিন্তু এখানকার দায়িত্বে থাকা পুলিশের এসআই জলিল,এসআই ফরিদা বেগম ও নার্স পুষ্প সমাধানের কথা বলে আমার শ্বশুরালয়ের লোকজনের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়। যার ফলে আমি আর শ্বশুরালয়ে যেতে পারিনি। আর উল্টো আমার বিরুদ্ধে বিমান বন্দর থানায় দলিল চুরির একটি নাটকীয় মামলা দায়ের করে ভাসুর মনির মোল্লা। পরে সংবাদকর্মীদের সহায়তায় বর্তমান পুলিশ কমিশনার সাহাবুদ্দিন খানের শরনাপন্ন হই। এ সময় পুলিশ কমিশনার সাহাবুদ্দিন খান স্যারের নির্দেশে বিমান বন্দর থানায় নারী নির্যাতন মামলা গ্রহন করা হয়।তবে ওসিসির সহায়তা না পাওয়ায় আমি হতাশ হয়ে আমার বাবার বাড়ীতে থাকতে শুরু করি।অন্যদিকে পলাশপুর এলাকার ছুট্টুর স্ত্রী শাহিদা,কাউনিয়া বিসিক এলাকার তানিয়া,সিএন্ডবি রোডের পুলিশ কনস্টাবল আনিচুর রহমানের স্ত্রী সোনিয়া আক্তার হিরা ও ঝালকাঠী রায়াপুরের মাসুমা বেগম ও রুপতলী এ্যাপোলো হাসপাতাল সংলগ্ন জুলিয়াকেও প্রথমে আইনী সহায়তা দেওয়া হয়নি। পরে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা এগিয়ে আসলে নির্যাতিতাদের পক্ষে মামলা গ্রহন করা হয়।সর্বশেষ স্বামীর হাতে নির্যাতনের শিকার নারী জুলিয়া আক্তার জুলি বলেন,৪ লক্ষ টাকা যৌতুকের দাবীতে আমার স্বামী আমাকে প্রায় মারধর করতো। সম্প্রতি আমাকে আবার মারধর করলে আমি হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি হই।আমাকে ওসিসি থেকে কোন খাবার দেওয়া হয়নি। বাহির থেকে সব কিনতে হয়েছে।তাছাড়া আমার স্বামীর ব্যবহৃত মুঠোফোনে শুধু কল করে দায়িত্ব পালন শেষ করেছে এসআই জলিল ও এসআই ফরিদা। পরে আমার হাতে একটি ছাড়পত্র ধরিয়ে দেওয়া হয়। পরিনামে আমার স্বামী আমার মুঠোফোনে কল করে এখনও আমাকে হুমকী দিচ্ছে।

জানতে চাইলে ওসিসির দায়িত্বে থাকা এসআই জলিল বলেন,পরিস্থিতির ওপর বিবেচনা করে সমস্যা সমাধান করা হয়।নির্যাতিতা নারীরা যদি সমাধানে না আসা তাহলে মামলা করে আইনী সহায়তা দেওয়া হয়।
অন্যদিকে বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য অ্যাডভোকেট আসমা বেগমের মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

তবে ওসিসির বিষয়টি নিয়ে কথা হলে হাসপাতালের (ভারপ্রাপ্ত) পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক বলেন, নির্যাতিতা নারীদের সহায়তায় এগিয়ে না আসলে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেন।আমরা অবশ্যই দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :