বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বানে ডুবেছে কৃষকের ধান-সবজি-মাছ, ভেসে গেছে স্বপ্ন

উজানের ঢল এবং অতি বৃষ্টিতে সৃষ্ট বন্যায় উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলাসহ জামালপুর ও সিলেটে বন্যা হচ্ছে। এই বন্যার ফলে লাখ লাখ মানুষ যেমন পানিবন্দি হচ্ছে সেই সঙ্গে ডুবে গেছে ফসলি জমি। হঠাৎ বন্যায় কৃষির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

ধানের ভালো দামের কারণে এবার বোরো কাটার সঙ্গে সঙ্গে চাষিরা আউশ ধান আবাদ করেছেন। বন্যায় আউশ ধান ছাড়াও আমন বীজতলা, কাউন, চিনা বাদাম, তিল, বেগুন, মরিচ, পটল, শশা, চিচিঙ্গা, ঝিঙে, ঢেঁড়স, কাকরোল ও পেপেসহ সবধরনের সবজির খেত এখন পানির নিচে। হাজার হাজার বিঘা খেতের ফসল ডুবে যাওয়ায় অনেক কৃষক এখন দিশেহারা হয়ে পড়েছে। এছাড়া অনেকের পুকুর ডুবে লাখ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে।

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী উপজেলার বল্লভের খাষ ইউনিয়নের সবজি চাষি মজিবর বলেন, এবার চাষিরা পটল, ঢেঁড়শ, চিচিঙ্গা, বেগুন, চালকুমড়াসহ যেসব সবজি চাষ করেছে সব খেতে পানি উঠে গাছ মরে গেছে। আমার দুই বিঘা জমিতে বিভিন্ন প্রকার সবজি করেছিলাম সেগুলো এখন পানির নিচে।

একই গ্রামের কৃষক মফিজুল ইসলাম জানান, ২০ হাজার টাকা ধারদেনা করে চার বিঘা জমিতে করলা, চিচিঙ্গা, ঝিঙে, চালকুমড়া লাগিয়েছিলেন। ফলন আসার প্রাক্কালে পানি উঠে সব শেষ। এই বন্যায় তার প্রায় দেড় লাখ টাকা ক্ষতি হয়েছে বলে জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সরকারি হিসাব অনুযায়ী, বন্যায় কুড়িগ্রাম জেলার ৫৫টি ইউনিয়নের ৩৫৭টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার ১৫ হাজার ৬০০ পরিবারের ৬৪ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। নদীভাঙনে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ ঘরবাড়ি হারিয়েছেন ৫০০ পরিবার।

বন্যায় কৃষিতে ফসলি জমি নষ্ট হয়েছে ৫ হাজার ৬৫৩ হেক্টর। এর মধ্যে আমন বীজতলা ৪৩৫ হেক্টর, আউশ ৮২৫ হেক্টর, তিল ২৪০ হেক্টর, কাউন ৫ হেক্টর, চিনাবাদাম ৮০ হেক্টর, মরিচ ৫৮ হেক্টর এবং পাট অর্ধ নিমজ্জিত হয়েছে ৩৫৯০ হেক্টর। অপরদিকে মৎস্য বিভাগ আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ না জানালেও জানা গেছে ইতোমধ্যে শতাধিক পুকুর প্লাবিত হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন মাছ চাষিরা।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোস্তাফিজুর রহমান প্রধান বলেন, বন্যায় ১ হাজার ৬৯২ হেক্টর জমির ফসল নিমজ্জিত হয়েছে। টানা বৃষ্টি আর বন্যার কারণে কৃষিতে ক্ষতি হয়েছে। বন্যার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আমন বীজতলা তৈরি করে উদ্যোগ নেয়া হবে। এছাড়াও বন্যার পর ক্ষতি নিরূপণ করে তালিকা তৈরি করা হবে। সেই হিসেবে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গাইবান্ধা জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মাসুদুর রহমান বলেন, বন্যার পানিতে জেলায় ৩ হাজার ১০৬ হেক্টর জমির পাট, ১৯৬ হেক্টর আউশ ধান ও ১২৮ হেক্টর শাক-সবজি, ৪৩ হেক্টর আমন ধানের বীজতলা, ৪৪ হেক্টর তিল ও ২০ হেক্টর জমির চিনাবাদাম নিমজ্জিত হয়েছে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা এ কে এম ইদ্রিশ আলী বলেন, জেলার সুন্দরগঞ্জ, গাইবান্ধা সদর, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নের ৪ হাজার ৫৩৬ পরিবারের ১৭ হাজার ৮৪৪ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এর মধ্যে সরকারি ৫০টি আশ্রয় কেন্দ্রে ২ হাজার ৭৭ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। বাকিরা বাঁধ ও সড়কে আশ্রয় নিয়েছেন। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২ হাজার ২৫৫ ঘর-বাড়ি।

জানা গেছে, নীলফামারীর চরাঞ্চলের ৩ হাজার পরিবার বন্যায় পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন। তিস্তার বন্যায় ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই, খগাখড়িবাড়ি, টেপাখড়িবাড়ি, খালিশ চাঁপানি, ঝুনাগাছ চাঁপাান এবং জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ি, গোলমুন্ডা, শৌলমারী, কৈমারীসহ ১০ ইউনিয়নের তিস্তা অববাহিকার ১৫টি চর ও গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। তিস্তার চরাঞ্চলের বাদাম খেত ও আমন ধানের বীজতলা হাঁটু থেকে কোমর পানিতে তলিয়ে রয়েছে। অনেক মৎস্য খামারের মাছ পানিতে ভেসে গেছে।

বন্যায় রংপুরের গঙ্গাচড়া, কাউনিয়া ও পীরগাছা প্লাবিত হয়েছে। প্রায় ১ হাজার পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পানির তোড়ে ভেঙে গেছে বিনবিনা এলাকার পাকা সড়ক। ভাঙন দেখা দিয়েছে বাঁধেও।

জানা গেছে, গঙ্গাচড়ার সাতটি ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তিস্তার প্রায় ১৫টি চরে বসবাসকারী প্রায় ৫০০ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।

লক্ষ্মীটারী ইউপি চেয়ারম্যান আবদুুল্লাহ আল হাদী জানান, তার ইউনিয়নের শংকরদহ, ইচলী, জয়রামওঝা ও বাগেরহাট এলাকায় ৪০০ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। এসব এলাকার ফসলি জমি ডুবে গেছে। ধান, ভুট্টা ও সবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

জানা গেছে, কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে দিনাজপুরসহ বিভিন্ন উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। দিনাজপুর সদরের মাঝাডাঙ্গাসহ আশপাশের গ্রাম, বাঙ্গীবেচা ঘাট এলাকা, সাধুর ঘাট এলাকা, দফতরি পাড়া, হঠাৎ পাড়ার নিচু এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ফুলবাড়ী উপজেলার রাজারামপুর, সুজাপুর, খয়েরবাড়ি ও বেতদিঘী এবং বিরল উপজেলাসহ আরও কয়েকটি উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। কিছু জায়গায় ডুবে গেছে ফসলের খেত। আগাম তৈরি করা আমন ধানের বীজতলা তলিয়ে গেছে অনেকের।

কাহারোল উপজেলার ডাবুর ইউপির বলেয়া ও রসুলপুর ইউপির ভেলোয়া গুচ্ছ গ্রামগুলোর চারদিকে নিম্নাঞ্চল পানিতে তলিয়ে গেছে। দিনাজপুরের কাহারোল উপজেলার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় (বীরগঞ্জ-কাহারোল) সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল।

সিরাজগঞ্জ জেলার চরাঞ্চলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যমুনায় পানি বৃদ্ধির ফলে চরের শত শত হেক্টর জমির পাট, তিল, বাদাম, ভুট্টা, আউশ, কাউন, আখ ও সবজির খেত পানিতে তলিয়ে গেছে।

জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে সিরাজগঞ্জে ৯৫৫ হেক্টর জমির পাট, ৩৭১ হেক্টর তিল, ১০ হেক্টর ভুট্টা, ৫৫ হেক্টর আউশ, ২৩ হেক্টর সবজি, ১৭ হেক্টর কাউন, ৭৮ হেক্টর জমির আখ মিলিয়ে মোট ১ হাজার ৫০৯ হেক্টর জমির ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। এতে কৃষকের ৫০ শতাংশ ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

সদর উপজেলার মেছড়া ইউনিয়নের কৃষক আমজাদ হোসেন বলেন, এবার তিন বিঘা জমিতে পাট, তিল ও আউশ চাষ করেছিলাম। কিন্তু এক সপ্তাহের টানা বৃষ্টিতে নদীর পানিতে তলিয়ে গেছে সব ফসল।

সদর উপজেলার মেছড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বলেন, যমুনায় হঠাৎ পানি বেড়ে যাওয়ায় বেশকিছু জমির ফসল পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি দ্রুত নেমে না গেলে ফসল ঘরে তুলে নেয়াও সম্ভব নয়। পাশাপাশি চলছে নদীভাঙন। চরাঞ্চলে মানুষ চরম বিপাকে দিনাতিপাত করছে। আমরা প্রশাসনকে বিষয়টি জানিয়েছি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (ডিডি) মো. হাবিবুল ইসলাম জানান, বৃষ্টির পানিতে জেলার পাঁচটি উপজেলার প্রায় ৩০টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে ১ হাজার ৫০৯ হেক্টর জমির ফসল তলিয়ে গেছে।

জামালপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক আমিনুল ইসলাম জানান, জেলায় বন্যার পানিতে নিমজ্জিত হয়েছে ৩ হাজার ৬৩২ হেক্টর জমির পাট, ২৮৬ হেক্টর জমির আউশ ধান, ২৯৩ হেক্টরের সবজি, ৬৫ হেক্টর বীজতলা, ৫ হেক্টর জমির তিল, ৫ হেক্টর জমির ভুট্টা ও ৫ হেক্টর জমির বাদাম।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক আব্দুল আহাদ বলেন, ‘পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টির কারণে সৃষ্ট বন্যায় জেলায় ৪৪ হাজার ৪১০টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার খবর পেয়েছি। আটটি উপজেলায় আমরা ৭৮টি আশ্রয় কেন্দ্র খুলেছি। যেকোনো সমস্যা সমাধান ও সহযোগিতার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।’

ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে বিতরণের জন্য প্রশাসন ৪১০ মেট্রিক টন জিআর চাল ও ২৯ লক্ষ ৭০ হাজার টাকা বরাদ্দ দিয়েছে বলে তিনি জানান।

সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, সরকারের পক্ষ থেকে বন্যার্তদের সহায়তা চলমান রয়েছে। আমার নির্বাচনী এলাকায় (জামালগঞ্জ-তাহিরপুর-ধর্মপাশা ও মধ্যনগর) সরেজমিন পরিদর্শন করে বন্যার্তদের খোঁজ-খবর নিচ্ছি। যেখানে সড়ক ভেঙে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে সেখানে স্থানীয় প্রশাসন ও এলাকাবাসীকে নিয়ে আপাতত সমস্যার সমাধান করছি।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।