বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বিএম কলেজের প্রভাষকের বিরুদ্ধে হামলা-মামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সরকারি ব্রজমোহন( বিএম) কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক আরাফাত হোসাইনের ব্যবহৃত টয়লেটের ময়লা পানি বসতবাড়ীর চলাচলের রাস্তায় ফেলে জনদূর্ভোগ সৃষ্টির প্রতিবাদ করায় হামলা, মিথ্যা মামলা দায়ের ও প্রাণনাশের হুমকি-দামকির প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে অসহায় ভুক্তভোগী এক নারী।

আজ শনিবার (৩১ অক্টোবর) দুপুর ১২ টায় বরিশাল রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নগরীর নথুল­াবাদ সংলগ্ন জিয়াসড়ক এলাকার মৃত শাহজাহান গাজীর স্ত্রী শাহানা পারভীন রেনু।

লিখিত বক্তব্যে শাহানা পারভীন রেনু বলেন, আমার বসতবাড়ীর চলাচলের একমাত্র রাস্তার পাশে পাশ্ববর্তী বাসিন্দা প্রভাষক ইলিয়াস শিকদারের (কডা শিকদার) বাসা। তারঁ বাসার ব্যবহৃত টয়লেটের সেফটি ট্যাঙ্কি ভরে উপচে পড়ে বাউন্ডারির দেয়াল চুবিয়ে মলমূত্রাদির ময়লা পানিতে রাস্তাটিতে সব সময় জলাবদ্ধতা থাকে। বিগত ৩/৪ বছর যাবত ময়লা পানি জমে থাকা আর দূর্গন্ধে রাস্তায় হাটা-চলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বার বার বলা সত্ত্বেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি ইলিয়াস শিকদারের পরিবার ।

চলতি মাসের ২৭ অক্টোবর মঙ্গলবার বেলা আড়াইটার দিকে আমার ছেলে বরিশাল ল কলেজে এলএলবি শেষ বর্ষে অধ্যায়নরত আমির হোসেন গাজী (বিপ্লব) হাসপাতালে ডাক্তার দেখিয়ে মোটরসাইকেলে করে বাড়িতে প্রবেশ করতে গেলে ওই টয়লেটের জমে থাকা ময়লা পানিতে স্লিপ কেটে মোটরসাইকেলসহ পড়ে গিয়ে আমি ও বিপ্লব দেয়ালে ঘসা খাই। এতে আমার ও বিপ্লবের হাত-পায়ের বিভিন্ন জায়গায় চামড়া উঠে যায় এবং মোটরসাইকেল ভেঙে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়।

এরপর সেখান থেকে কোন রকমের উঠে ইলিয়াস শিকদারের বাসায় গিয়ে ভাই ভাই বলে ডাকলে তাঁরা বাসা থেকে বের হয়। তারপর তাদের টয়লেটের সেফটি ট্যাঙ্কি মেরামত করে ময়লা পানি বন্ধের অনুরোধ জানাইলে ইলিয়াসের পরিবাবের সবাই আমার ও বিপ্লব উপরে চড়াও হয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে।

উভয়ের কথা-কাটাকাটির এক পর্যায় ইলিয়াস শিকদারের ছেলে সরকারি ব্রজমোহন( বিএম) কলেজের প্রভাষক মোঃ আরাফাত হোসাইন রেগে ঘরে ডুকে একটি লোহার পাইপ এনে আমাকে ও বিপ্লব কে বেধড়ক মারধর করে। এতে আমার ও বিপ্লবের হাত-পা ফেটে ও কেটে রক্তাক্ত হয় এবং শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত পাই । আরাফাত আমাদের মারধর করার সময় আর কখনো টয়লেটের ময়লা পানি বন্ধে করতে বললে আমিসহ আমার এক ছেলে ও বিএম কলেজের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী দুই মেয়ে কে প্রাণনাশের হুমকি দেয়।

এসময় তিনি বলেন, আমার ছেলে বিপ্লব! আরাফাত সহ তার পরিবারের মারধর সহ্য না করতে পেরে নিজে কে বাঁচাতে গিয়ে আরাফাতের হাতে থাকা লোহার পাইপ ছিনিয়ে নেয়। এসময় আরাফাত তাঁর পূর্বের ভাঙ্গা ডান হাতে আঘাত পায়৷ এসময় আমরা কোন মতে জীবনে বেঁচে আরাফাতের বাড়ি থেকে দৌঁড়ে চলে এসে চিকিৎসা নেই।

এরপর আরাফাত নিজের ঘর-দরজা ভেঙে বরিশাল কোতোয়ালি থানায় ফোন দিয়ে আমাদের কথা বলে। এবং শেরে বাংলা হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হয়ে পূর্বের সেই ভাঙ্গা ডান হাত নতুন করে বেন্ডিস করে। পাশাপাশি আরাফাত হোসাইন বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় বিপ্লবের নামে পুরো ঘটনার মিথ্যা বিবরণ দিয়ে একটি মামলা দায়ের করে।

এসময় তিনি আরও বলেন, আমার স্বামীর অকাল মৃত্যুর পর ছেলে-মেয়ে নিয়ে অসহায় জীবন-যাপন করে আসছি। এখন আবার ইলিয়াস শিকদার ও তার ছেলে আরাফাতের প্রাণনাশের হুমকি-দামকিতে সবাই কে নিয়ে আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যের অভিযোগ অস্বীকার করে সরকারি ব্রজমোহন( বিএম) কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক মোঃ আরাফাত হোসাইন জানান, শাহানা পারভীন রেনুর ছেলে সন্ত্রাসী বিপ্লব আমার উপরে উদ্দেশ্য প্রনোদিত ভাবে হামলা চালিয়ে আহত করে। এই কারণে আমি থানায় মামলা করেছি। টয়লেটের ময়লা পানিতে নয় বরং বৃষ্টির পানিতে রাস্তাটিতে জলাবদ্ধতা থাকে । আর জলাবদ্ধতা নিরসনের দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :