বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

বোনের প্রেমিকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক গড়তে ভাইয়ের কাণ্ড

অনলাইন ডেস্ক :: আঙুলের ছাপে লাশ উদ্ধারের ৬ মাস পর পরিচয় মিলেছে এক তরুণীর। তার নাম পাপিয়া বেগম (২০)। মূলত ত্রিভুজ প্রেমের বলি হন পাপিয়া। হত্যার পর লাশ জঙ্গলে ফেলে দেন তারই বাবা, ভাই ও প্রেমিক।

অজ্ঞাতনামা ওই তরুণীর লাশের পরিচয়সহ হত্যার রহস্য উদঘাটন করেছে নারায়ণগঞ্জ পিবিআই।

রোববার (২২ নভেম্বর) নারায়ণগঞ্জ পিবিআই সংবাদ সম্মেলন করে তরুণীর মৃত্যুর রহস্য উদঘাটনের এমন তথ্য জানায়।

এর আগে ১৮ নভেম্বর পিবিআইয়ের তদন্তকারী কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্সসহ পাপিয়ার প্রেমিক মো. আরিফুল ইসলামকে গ্রেফতার করে।

পিবিআই সূত্রে জানা যায়, আরিফুল ইসলামের সঙ্গে পাপিয়ার প্রেমের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু এই সম্পর্ক পাপিয়ার ভাই সাম্মি (তৃতীয় লিঙ্গ বলে জনশ্রুতি আছে) মেনে নিতে পারেননি। সাম্মি চাইতেন আরিফুল তার সঙ্গে প্রেমের মাধ্যমে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলুক।

কিন্তু বিষয়টি পাপিয়া জানতে পারলে দু’জনের মধ্যে বিবাদ শুরু হয়। ঘটনার দিন গত ২৭ মে আসামি আরিফুল, পাপিয়া এবং তার ভাই সাম্মি সবাই পাপিয়ার বাসায় ছিলেন। দু’জনের ঝগড়ার কারণে আরিফুল বাড়ি থেকে বের হয়ে যেতে চাইলেও বৃষ্টির কারণে যেতে পারেননি।

এ সময় তার পরিচিত একই বিল্ডিংয়ের দ্বিতীয় তলায় সামিয়ার বাড়িতে অবস্থান করেন তিনি। কিছুক্ষণ পর আরিফুল ফিরে গিয়ে দেখেন পাপিয়ার লাশ তার ঘরের বিছানায় পড়ে আছে। এ সময় ভিকটিমের গলায় ওড়না পেঁচানো ছিল এবং সাম্মি ঘর থেকে বের হয়ে পালানোর চেষ্টা করছিলেন।

কিন্তু আরিফুল ঘরের ভেতরে চলে আসায় সাম্মি আরিফুলকে বলেন, পাপিয়া বেঁচে আছে। পরে তারা একজন স্থানীয় চিকিৎসককে ডেকে এনে জানতে পারেন পাপিয়া মারা গেছেন।

সাম্মির মাধ্যমে তার বাবা জয়নাল পাপিয়ার মৃত্যুর খবর জানতে পেরে ঘটনাস্থলে আসেন। পরে জয়নালের বুদ্ধিতে মো. আরিফুল ইসলাম, জয়নালের আরেক ছেলে মামুন এবং সাম্মি মিলে পাপিয়ার লাশ ভৈরব ব্রিজ থেকে নদীতে ফেলে দেয়ার পরিকল্পনা করেন।

পরিকল্পনামতে তারা সবাই মিলে একটি অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে পাপিয়ার লাশ নিয়ে রওনা হন। কিন্তু পথিমধ্যে পুলিশের চেকপোস্ট থাকায় তারা আড়াইহাজার থানাধীন শিমুলতলা নামক স্থানে রাস্তার পাশে জঙ্গলের ভেতর পাপিয়ার লাশ ফেলে দেন।

শনিবার (২১ নভেম্বর) আসামি মো. আরিফুল ইসলাম আদালতে ১৬৪ ধারা মোতাবেক স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

সেখানে তিনি বলেন, নিহত পাপিয়ার ভাই সাম্মি (তৃতীয় লিঙ্গ বলে জনশ্রুতি আছে) পাপিয়াকে হত্যা করেছে।

পরবর্তীতে পাপিয়ার বাবা জয়নাল মিয়াকে দু’দিনের পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করলে জানা যায়, তার পরিকল্পনামতেই পাপিয়ার লাশ আড়াইহাজার থানাধীন শিমুলতলা নামক স্থানে জঙ্গলের মধ্যে ফেলে দেয়া হয়।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) নারায়ণগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মো. মনিরুল ইসলাম জানান, অজ্ঞাতনামা তরুণীর লাশের আঙুলের ছাপের মাধ্যমে ছয় মাস পর তার পরিচয় উদঘাটন হয়। মূলত ত্রিভুজ প্রেমের বলি হয়েছে পাপিয়া। আর এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিল পাপিয়ার ছোট ভাই সাইফুল ইসলাম যে নাকি তৃতীয় লিঙ্গে রূপান্তরিত হয়ে সাম্মি নাম ধারণ করেছিল।

গত বুধবার (১৮ নভেম্বর) পাপিয়ার প্রেমিক আরিফুল ইসলামকে গ্রেফতার করা হলে হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত রহস্য উদঘাটিত হয়। মামলার বাকি আসামিদের গ্রেফতার করতে অভিযান চলছে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

শেয়ার করুন :
Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :