মঠবাড়িয়ার সামছুল হক মুক্তিযোদ্ধা নাকি রাজাকার? | বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম – মঠবাড়িয়ার সামছুল হক মুক্তিযোদ্ধা নাকি রাজাকার? মঠবাড়িয়ার সামছুল হক মুক্তিযোদ্ধা নাকি রাজাকার? – বরিশাল ক্রাইম নিউজ ডট কম


মঠবাড়িয়ার সামছুল হক মুক্তিযোদ্ধা নাকি রাজাকার?

প্রকাশ: ১২ মে, ২০১৯ ৯:৫৩ : অপরাহ্ণ

পিরোজপুর থেকে মো.শাহজাহান:: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার সাপলেজা ইউনিয়নের ঝাটিবুনিয়া গ্রামের সামছুল হক ওরফে শামসু দরবেশ মুক্তিযোদ্ধা নাকি রাজাকার এমন প্রশ্ন এলাকার অনেকেরই।
গুলিশাখালী জি,কে মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নূর হোসাইন মোল্লার ফেইসবুক আইডি থেকে “কুখ্যাত রাজাকার এখন মুক্তিযোদ্ধা”শিরোনামে ১৫ জুলাই ২০১৮ তারিখে একটি লেখা প্রকাশ করেন।উক্ত লেখায় তিনি উল্লেখ করেন,পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলাধীন সাপলেজা ইউনিয়নের ঝাটিবুনিয়া(পূর্ব সাপলেজা) গ্রামের মৃতঃ আঃ রসিদ হাওলাদারের পুত্র শামসুল হক ওরফে শামসু দরবেশ একজন কুখ্যাত রাজাকার।

এ ব্যাপারে সাপলেজা ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নজরুল ইসলাম জানান,নূর হোসাইন মোল্লা কোন মুক্তিযোদ্ধা নন।তাই একজন মুক্তিযোদ্ধা সম্পর্কে তার ধারনা স্পষ্ট নয়।মুক্তিযোদ্ধা সামছুল হক ১৯৭১ সনে স্বাধীনতা যুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহন করে সাফল্য অর্জন করেন।তৎকালীন এম এল এ মরহুম সাওগাতুল আলম সগিরের একনিষ্ঠ যোগ্য প্রহরী ছিলেন তিনি।তার নির্দেশক্রমে সামছুল হক পিরোজপুর,ঝালকাঠি,বরিশালসহ বিভিন্ন জায়গায় গুপ্ত যোদ্ধা হিসেবে তথ্য সংগ্রহ করতেন।তাহার মুক্তিবার্তা নং ০৬০১০১০৮৮৫,গেজেট নং৮৪৮।

আপনার মুক্তিযোদ্ধা নিয়ে বিতর্ক কেন?এমন প্রশ্নের জবাবে সামছুল হক বলেন,”আমার বাড়ি থেকে ২০০ গজ পশ্চিমে শামসু রাজাকার নামে এক ব্যক্তি ছিলেন যার পিতার নাম মৃত- মঈনুদ্দীন হাং।দেশ স্বাধীনের পর তিনি মঠবাড়িয়া হাসপাতালের সামনে কিছুদিন খাবার হোটেলের দোকান দিয়ে হঠাৎ মঠবাড়িয়া ছেড়ে অন্যত্র চলে যান।আজ পর্যন্ত এলাকার মানুষের সাথে তার কোন খোঁজ খবর নেই।আমাকে উক্ত শামসু মনে করে কেউ কেউ আমাকে রাজাকার বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে যা আদৌ সঠিক নয়।”
তিনি আরও বলেন,স্বাধীনতার পর আমি দেশবানী পত্রিকার ৫ম স্টাফ রিপোর্টার ছিলাম এবং মুক্তিযোদ্ধা বেস কমান্ডার মজিবুল হক মজনু ছিলেন উক্ত পত্রিকার ১ নং স্টাফ রিপোর্টার।”