বরিশাল ক্রাইম নিউজ

বরিশাল ক্রাইম নিউজ

অন্যায়ের বিরুদ্ধে আমরা

Print Friendly, PDF & Email

মঠবাড়িয়ায় গোয়াল ঘরে দুর্বৃত্তদের অগ্নিসংযোগ, ৪টি গবাদি পশু মুমূর্ষু অবস্থায়

মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি :: পিরোজপুর মঠবাড়িয়ায় দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে গোয়ালঘর পুড়ে ৪টি গবাদি পশু আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। গত ১২ মার্চ গভীর রাতে উপজেলার বেতমোর ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, দুর্বৃত্তরা রাতের আঁধারে ঘোপখালী গ্রামে বেলায়েত হোসেনের (৬০) গোয়াল ঘরে আগুন লাগিয়ে দেয়। বাড়ির লোকজন টের পাওয়ার আগেই আগুনে ভস্মীভূত হয় গোয়াল ঘর। এ সময় গোয়াল ঘরে থাকা ৪টি গবাদি পশু আগুনে পুড়ে যায়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, ইতোপূর্বে দুর্বৃত্তরা বেলায়েত হোসেনের পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। এ ঘটনায় প্রায় ৫০ হাজার টাকার মাছ মারা যায়। রুই, কাতল, তেলাপিয়া,সিলভার কার্প সহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ ছিল। মাছগুলো কিছুদিন পরেই বিক্রি করতে পারতেন, ঠিক এ অবস্থায়ই কে বা কারা পুকুরে বিষ প্রয়োগ করে। ইতোপূর্বে কৃষক বেলায়েত হোসেনের ২১ শতক জমিতে রোপিত টমেটো গাছ ফুল ও ফল ধরা অবস্থায় রাতের আঁধারে কেটে ফেলে দুর্বৃত্তরা। যা স্থানীয় গ্রাম পুলিশ সহ ইউপি সদস্য ও ইউপি চেয়ারম্যান জানেন।

গত বছর দুর্বৃত্তরা ৩০ শতক জমিতে রোপিত প্রায় ৩০ হাজার টাকার আঁখ চারা রাতের আঁধারে কেটে কুচি কুচি করে রেখে যায়। সকালে ওই কৃষক ক্ষেতে যেয়ে চারাগুলো কেটে ফেলার দৃশ্য দেখে অবাক হয়ে যান। কেন তাদের চারাগুলো কেটে ফেলা হয়েছে তার কোন কারণ তাদের জানা নেই। বেলায়েত হোসেন একজন পেশাদার কৃষক তা সবাই জানে। গত বছর ২৫ শতক জমিতে রোপিত ফুল কপি ও আনাজ কপি ফলন ধরা অবস্থায় রাতের আঁধারে কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলে দুর্বৃত্তরা।

স্থানীয়রা জানান, প্রায় ৬০ হাজার টাকার সবজি বিক্রি করতে পারতেন ওই কৃষক। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে রাতের আঁধারে চারশ লাউ গাছের গোড়া কেটে ফেলে দুর্বৃত্তরা। লাউগুলো কেবল বেড়ে উঠেছিল। আর দশ/পনের দিন পরেই কাটা হতো লাউগুলো। এর মধ্যেই গাছের গোড়া কেটে ফেলায় নষ্ট হয়ে যায় লাউগুলো। প্রায় ২০ হাজার টাকার লাউ নষ্ট হয়। ইতোপূর্বে প্রায় ২৫ শতক জমিতে থাকা মরিচ গাছ গভীর রাতে উপড়ে ফেলে দুর্বৃত্তরা। একের পর এক এমন ঘটনায় ক্ষুব্ধ এলাকার মানুষ। সবজি বিক্রি করেই সংসার চালান কৃষক বেলায়েত। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে দুর্বৃত্তদের বেপরোয়া ক্ষতি সাধনে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে পরিবারটি। এ ঘটনায় কৃষকের ক্ষতিপূরণসহ দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্ত চান এলাকাবাসী।

সরেজমিনে সোমবার বিকালে (৩০ মার্চ) ঘোপখালী গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, পুড়ে যাওয়া গরুগুলো বস্তার চট দিয়ে ঢেকে রাখা। চট জাগিয়ে পোড়া ক্ষত দেখানোর সময় গরুর মালিক কেঁদে ফেলেন এবং ফ্যাল ফ্যাল করে গরুগুলোর দিকে তাকিয়ে থাকেন।

কৃষক বেলায়েত হোসেন জানান, স্থানীয় এবং আমার একই বংশের হুমায়ুন কবির গংদের সাথে আমাদের দীর্ঘদিনের বিরোধ রয়েছে। কোন সালিশী ব্যবস্থা না মেনে গায়ের জোরে আমার ভোগ দখলীয় জমি দখল করার পাঁয়তারা চালাচ্ছে। পূর্ব শত্রুতার জেরেই কেউ হয়তো গোয়াল ঘরে আগুন দিয়েছে।

মঠবাড়িয়া উপজেলা এসিল্যান্ড অফিসের এক আদেশে দেখা যায়, হুমায়ুন কবির গংদের দাবিকৃত জমির দাগ-খতিয়ানের সাথে বেলায়েত হোসেন গংদের ভোগ দখলীয় জমির দাগ-খতিয়ানের কোন মিল নাই।এ আদেশে ক্ষুব্ধ হয়ে হুমায়ুন গং কৃষক বেলায়েত হোসেনের পরিবারটিকে নিঃস্ব করার জন্য বিকল্প পথ বেছে নিতে পারে বলে ধারনা করছেন অনেকেই।

হুমায়ুন কবির জানান, “বেলায়েত হোসেন আমার চাচা।তাদের সাথে আমার কোন বিরোধ নাই। মঠবাড়িয়া থানা সূত্রে জানা যায়,”এ ঘটনায় একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শেয়ার করুন :

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on whatsapp
WhatsApp

আপনার মন্তব্য করুন :

আমাদের সকল আপডেট পেতে মোবাইল অ্যাপ ডাউনলোড করুন প্লে-ষ্টোর থেকে।